বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মহামারি করোনার থাবা রুখে দিতে আবারো এল সুখবর। অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন ভারতে চূড়ান্ত অনুমোদন পাওয়ায় চলতি মাসেই টিকা হাতে পাওয়ার আশা বাংলাদেশের। এদিকে টিকা সংরক্ষণ, বিতরণ, প্রয়োগ থেকে শুরু করে প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে টিকা কেন্দ্রেরও। হাতে পেলে স্বল্প সময়ের মধ্যেই অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ফ্রন্টলাইনারদের দেওয়া হবে টিকা।

দীর্ঘ অচলাবস্থার পর অবশেষে বাংলাদেশ হাতে পেতে যাচ্ছে মহামারি করোনার ভ্যাকসিন। অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন ভারতে চূড়ান্ত অনুমোদন পাওয়ার খবর, আশার সঞ্চার করেছে সাধারণ মানুষের মনে।

স্বাস্থ্য অধিদফতর বলছে, ভারত অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন অনুমোদন দেয়ায় কেটে গেছে সংকট। চলতি মাসেই ভ্যাকসিন হাতে পাওয়ার আশাবাদ জানিয়ে প্রতিষ্ঠানটি বলছে, টিকা হাতে পেলে স্বল্প সময়ের ব্যবধানে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা প্রয়োগ করা হবে ফ্রন্টলাইনারদের।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মুখপাত্র ডা. হাবিবুর রহমান বলেন, ‘আমরা আশা করছি যে চলতি মাসেই টিকাগুলো পেয়ে যাব। টিকা পাওয়ার স্বল্প সময়ের মধ্যে আমরা টিকা প্রয়োগ শুরু করতে পারব।’

টিকা সংরক্ষণ, দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে বিতরণ, টিকা প্রয়োগ থেকে শুরু করে টিকাদান কেন্দ্রও প্রস্তুত করা হয়েছে বলে জানান তিনি। পাশাপাশি, টিকা স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রশিক্ষণের বিষয়টিও এগিয়ে নেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মুখপাত্র ডা. হাবিবুর রহমান বলেন, ‘টিকা প্রয়োগের জন্য যে প্রস্তুতি আমাদের প্রয়োজন, সে প্রস্তুতি আমরা ইতিমধ্যে নিয়ে রেখেছি। স্বাস্থকর্মীদের জন্য ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা রেখেছি। ট্রেনিংটা আমরা খুব শিগগির করে দেব।

এদিকে টিকা সংরক্ষণ থেকে প্রয়োগ প্রতিটি ধাপেই কঠিনভাবে আধুনিক নিয়মকানুন মেনে চলার পরামর্শ জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের।

প্রতি লটে ৫০ লাখ করে সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে ৩ কোটি ভ্যাকসিন কিনবে বাংলাদেশের বেক্সিমকো।