কামাল সিদ্দিকী: পাবনায় আওয়ামীলীগরে রাজনীতিতে আবার অশনি সংকেত শুরু হয়েছে। দলের মধ্যে দ্বিধাবিভক্তি দেখা দিয়েছে আসন্ন পৌর নির্বাচনে মেয়র প্রার্থীতা নিয়ে। মেয়র প্রার্থী করা নিয়ে চলমান ইস্যুতে পাবনা জেলা আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে প্রভাবশালী শিল্পপতির নগ্ন হস্তক্ষেপ প্রতিবাদে এবং আসন্ন পৌর নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী পরিবর্তনের দাবীতে জেলা আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ এবং সহযোগী সংগঠন বিশাল সমাবেশের আয়োজন করে।

মঙ্গলবার দুপুরে শহরের প্রধান সড়ক আব্দুল হামিদ রোডে জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ের সামনে এই সমাবেশের আয়োজন করা হয়। বেলা ১১টা থেকে সদর উপজেলা ও পৌর এলাকার বিভিন্ন ইউনিয়ন, ওয়ার্ড থেকে নেতা-কর্মিরা নানা শ্লোগান লেখা সম্বলিত প্ল্যাকার্ড নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করে সমাবেশে যোগদান করেন। সমাবেশে বক্তারা বলেন, আসন্ন পাবনা পৌরসভা নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী ১০ জন প্রার্থী একত্রিতভাবে যুবলীগ নেতা শরীফ উদ্দিন প্রধানকে সমর্থন দিয়ে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের কাছে জোরালো আবেদন জানান। অথচ এক প্রভাবশালী অনুপ্রবেশকারী তার পছন্দের প্রার্থী জেলা যুবলীগের আহবায়ক আলী মর্তুজা বিশ্বাস সনির পক্ষে তদবির করে তাকে আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী করেছেন। অবিলম্বে বিক্ষোভকারীরা দলীয় প্রার্থী পরিবর্তনের দাবী জানান। জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি আবুল কালাম আজাদ বাবুর সভাপতিত্বে ও দপ্তর সম্পাদক এডভোকেট আব্দুল আহাদ বাবুর পরিচালনায় বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য দেন, সাবেক এমপি ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার মকবুল হোসেন সন্টু, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আব্দুল হামিদ মাস্টার, জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক এডভোকেট বেলায়েত আলী বিল্লু, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক সরদার মিঠু আহমেদ, অর্থ সম্পাদক আব্দুল হান্নান, প্রচার সম্পাদক কামিল হোসেন, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোশারোফ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক সোহেল হাসান শাহীন, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি এড. তসলিম হাসান সুমন, সাধারন সম্পাদক শাহজাহান মামুন, আওয়ামীলীগ নেতা ইদ্রিস আলী বিশ্বাস, যুবলীগের

সাবেক সভাপতি শরীফ উদ্দিন প্রধান, সাবেক সম্পাদক রকিব হাসান টিপু, শ্রমিকলীগের সভাপতি ফুরকান মালিথা, সম্পাদক প্রদীপ সাহা, কৃষকলীগের সভাপতি শহীদুর রহমান শহীদ, সাধারন সম্পাদক তৌফিকুল আলম তৌফিক, সদর উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগ সভাপতি শামসুন্নাহার রেখা প্রমুখ। জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক তাজুল ইসলামসহ জেলা, উপেজলা, পৌর ও ইউনিয়ন পর্যায়ের বিভিন্ন পর্যায়ের হাজার হাজার নেতা-কর্মির সমাগম ঘটে সমাবশে। বক্তারা বলেন, একজন শিল্পপতি পাবনার আওয়ামীলীগরে রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ করে তার পছন্দের একজন মানুষকে দলের মেয়র প্রার্থী করে এনেছেন। বক্তাদের অভিযোগ যাকে প্রার্থী করা হয়েছে তিনি দলে সদ্য অনুপ্রবেশকারী। তিনি কখনো রাজনীতি করেননি এবং পেশায় একজন ব্যবসায়ী। বক্তারা অবিলম্বে এই প্রার্থী পরিবর্তনের জোর দাবী জানান। উল্লেখ্য, পাবনা পৌরসভায় আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে জেলা যুবলীগের আহবায়ক আলী মর্তুজা বিশ্বাস সনিকে। অপরদিকে জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি শরীফ উদ্দিন প্রধানও মেয়র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। আগামী ৩০ জানুয়ারী পাবনা পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১০ জানুয়ারী।