বাংলাদেশ প্রতিবেদক: আগের মতো সম্পর্ক না রাখায় ক্ষিপ্ত হয়ে প্রেমিকা সুপ্তি মল্লিককে শ্বাসরোধ করে খুন করেছেন প্রেমিক। আর সেই হত্যা মামলায় পরিবারের পক্ষ থেকে আসামি করা হয়েছে স্বামী বাসুদেব চৌধুরী এবং ভাসুর অনুপম চৌধুরীকে। কিন্তু হত্যা রহস্য বেশিদিন আর গোপন রাখা যায়নি। ঠিকই তদন্তকারী সংস্থা পিবিআই বের করে এনেছে হত্যাকাণ্ডের প্রকৃত তথ্য।

গ্রেফতার করা হয়েছে হত্যাকারী প্রেমিক জাকির হোসেনকে। এমনকি আদালতে দেয়া স্বীকারোক্তিতে জাকির হোসেন জানিয়েছে হত্যাকাণ্ডের আদ্যপ্রান্ত। চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে নগরীর ডবলমুরিং এলাকায়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইয়ের পরিদর্শক সন্তোষ চাকমা সময় সংবাদকে বলেন, ‘ঘটনার পর থেকেই থানা পুলিশের পাশাপাশি পিবিআই মামলাটির ছায়া তদন্ত করছিল। পরবর্তীতে মামলার তদন্তভার পিবিআইতে আসলে শুরু হয় প্রকৃত আসামিকে চিহ্নিত করার পাশাপাশি আইনের আওতায় আনার কার্যক্রম। পিবিআই এক্ষেত্রে সফল হয়েছে। তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ঢাকার আশুলিয়া থেকে গ্রেফতার করা হয় মূল হত্যাকারী জাকির হোসেনকে। তার কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে হত্যার শিকার প্রেমিকা সুপ্তি মল্লিকের মোবাইল ফোন।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, গত বছরের ৪ নভেম্বর ডবলমুরিং থানাধীন পানওয়ালা পাড়া এলাকায় নাছিমা মঞ্জিলের চতুর্থ তলার ফ্ল্যাট থেকে ২২ বছর বয়েসী গৃহবধূ সুপ্তি মল্লিকের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় তার বাবা সাধন কুমার মল্লিক বাদী হয়ে ডবলমুরিং থানায় যে মামলা করেন তাতে আসামি করা হয় সুপ্তির স্বামী বাসুদেব চৌধুরী এবং ভাসুর অনুপম চৌধুরীকে। পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে কারাগারেও পাঠিয়েছিল। কিন্তু তদন্তভার নিয়েই তদন্ত কর্মকর্তা সন্তোষ চাকমা বুঝতে পারেন কাহিনী ভিন্ন।

আদালতে দেয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে জাকির হোসেন স্বীকার করে প্রতিবেশী হওয়ায় ২০১৪ সাল থেকেই ছিল জাকিরের সঙ্গে সুপ্তি মল্লিকের প্রেমের সম্পর্ক। ২০১৮ সালে তারা পালিয়ে বিয়েও করেছিল। কিন্তু ৩ থেকে ৪ মাসের মধ্যে মনোমালিন্য সৃষ্টি হলে জাকিরকে ডিভোর্স দিয়ে বাবার বাড়ি ফিরে আসে সুপ্তি। পরবর্তীতে তার বিয়ে হয় বাসুদেব চৌধুরীর সাথে।

কিন্তু ঘটনার দিন জাকির বাসায় কেউ না থাকার সুযোগ নিয়ে সুপ্তির কাছে আসে। আগের নানা বিষয় নিয়ে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে জাকির সুপ্তির গলায় গামছা পেছিয়ে হত্যা করে লাশ ফেলে পালিয়ে যায়। তবে পালিয়ে যাওয়ার সময় প্রমাণ না রাখতে সঙ্গে করে নিয়ে যায় সুপ্তির দুটি মোবাইল সেট। আর এ মোবাইল সেটের মাধ্যমে হত্যাকারী জাকিরকে শনাক্ত করে পুলিশ।