বাংলাদেশ প্রতিবেদক: কুড়িগ্রামের রাজিবপুর উপজেলার চরসাজাই নয়াপাড়া গ্রামে পরকীয়ার জেরে স্ত্রী শাহিনা বেগমকে শ্বাসরোধে হত্যার দায়ে স্বামী বকুল মিয়াকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে তার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার নির্দেশনা দেন জেলা ও দায়রা জজ আদালত।

মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারি) দুপুরে মামলার আসামিদ্বয়ের উপস্থিতিতে এ রায় দেন জেলা ও দায়রা জজ আব্দুল মান্নান। রায়ে মামলার অপর আসামি নুরন্নাহারকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।

আদালত এবং মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, বিগত ২০০৫ সালের দিকে পার্শ্ববর্তী জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার কারখানা পাড়া (ডাংধরা) এলাকার শামছুল হকের কন্যা শাহিনা বেগমের (২০) সঙ্গে কুড়িগ্রামের রাজিবপুর উপজেলার চরসাজাই নয়াপাড়া গ্রামের মৃত আজিজল হকের ছেলে বকুল মিয়ার (২৫) বিয়ে হয়।

এ অবস্থায় বকুল মিয়ার সঙ্গে তার বড় ভাই বাবুল মিয়ার স্ত্রী নুরন্নাহার বেগমের পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ভাবির সঙ্গে স্বামীর এই অবৈধ সম্পর্ক টের পেয়ে স্ত্রী শাহিনা বেগম বাধা দিলে ঝগড়ার সৃষ্টি হয়। এরই জেরে বিগত ২০০৭ সালে ২ ডিসেম্বর সকাল ৭টার দিকে স্ত্রী শাহিনা বেগমকে গলা টিপে শ্বাসরোধে হত্যার পর ঘরের ভেতর লাশ ঝুলিয়ে রেখে আত্মহত্যা করেছে বলে প্রচার করে।

এ ঘটনায় ওই দিন থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা রেকর্ড করা হয়। পরে ময়নাতদন্তে শ্বাসরোধ করে হত্যার রিপোর্ট আসলে নিহত শাহিনার বাবা শামছুল হক বাদী হয়ে বকুল মিয়া ও তার ভাবি নুরন্নাহারকে আসামি করে বিগত ২০০৮ সালের ১৬ জানুয়ারি থানায় হত্যা মামলাটি দায়ের করেছিলেন।

এদিকে দীর্ঘদিন ধরে এই মামলার বিচার চলাকালে ২০ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৭ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে।

রাষ্ট্রপক্ষে পাবলিক প্রসিকিউটর এসএম আব্রাহাম লিংকন এবং আসামি পক্ষে অ্যাডভোকেট মুহা. ফখরুল ইসলাম মামলাটি পরিচালনা করেন।