জয়নাল অঅবেদীন: মাছ উৎপাদনে দেশ স্বয়ংসম্পন্ন হলেও রংপুর বিভাগে প্রতিবছর মাছের ঘাটতি রয়েছে প্রায় ৯০ হাজার মেট্রিক টন। রংপুর বিভাগের রংপুর, গাইবান্ধা, লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, নীলফামারী, দিনাজপুর ঠাকুরগা ও পঞ্চগড় জেলার প্রায় পৌনে দুই কোটি মানুষের জন্য প্রতিবছর মাছের চাহিদা ৩ লাখ ৪০ হাজার মেট্রিক টন। উৎপাদন হয় ২ লাভ ৫০ হাজার মেট্রিক টন। ফলে প্রতিবছর এই বিভাগের ৮ জেলায় আমিষের সংকট থেকেই যাচ্ছে।মৎস গবেষক আল-আমীন প্রধান আজকের বাংলাদেশকে রংপুর বিভাগে মৎস ঘাটতির কারণ হিসেবে তিনি জানান, জলবায়ুর পরিবর্তনে রংপুর অঞ্চলের নদী নালা খাল বিলে পানি তাড়া তাড়ি শুকিয়ে যাচ্ছে। নদীগুলো অগভীরতা, অবাধে পোনা নিধন, জমিতে রাসায়নিকের ব্যবহার,খাল বিল ভরাট করে ভবন নির্মাণসহ বিভিন্ন কারণে এই অঞ্চলে মাছের উৎপাদন কম বলে তিনি জানান। তবে মৎস্য বিভাগ বলছে এই খাতকে যান্ত্রিকিকরণ করা হলে দ্রæত এই ঘাটতি পূরণ সম্ভব। রংপুর বিভাগীয় মৎস্য অফিস সূত্রে জানা গেছে, রংপুর বিভাগের ৮ জেলায় দেড় কোটি ওপর মানুষের বাস। শিশু ও প্রাপ্ত বয়স্ক মিলে একজন মানুষের গড়ে প্রতিদিনে মাছের চাহিদা ৬০ গ্রাম। সেই হিসেবে একজন মানুষের প্রতিবছর মাছের চাহিদা প্রায় ২২ কেজি। কিন্তু চাহিদা অনুয়ায়ি মাছ খেতে পারছে না এই অঞ্চলের মানুষ। ফলে সারা বছরই মাছের ঘাটতি থেকে যাচ্ছে। প্রতিবছর এ অঞ্চলের মাছের চাহিদা ৩ লাখ ৪০ হাজার মেট্রিক টন। এর বিপরিতে উৎপাদন হয় প্রায় আড়াই লাখ মেট্রিক টন। সেই হিসেবে ঘাটতি থেকে যাচ্ছে ৯০ হাজার মেট্রিক টন। রংপুর বিভাগের ৮ জেলায় অর্ধশত নদী, প্রায় ৪ লাখ হেক্টর খাল, ৮ শত ৩৭টি বিল ২ লাখ ৪৮ হাজার ৭ শত ২টি পুকুরে মাছ চাষ হয়। এছাড়া বর্ষাকালে প্লাবন ভূমিতে মাছ চাষ হয়।মৎস বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মানুষের সৃষ্টি পরিবেশগত পরিবর্তনের সাথে সাথে প্রকৃতিতে মারাত্মক প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়ায় জলাশয়গুলোতে প্রভাব পরছে। ফলে মাছ উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে।এ অঞ্চলের ভূপ্রকৃতিকে প্রধানত দুটি ভাগে ভাগ করা যায়। যেমন তিস্তা অববাহিকার পলিমাটি অঞ্চল এবং দিনাজপুরের কাঁকরযুক্ত বালি অঞ্চল। তিস্তার পলিমাটি অঞ্চল প্রধানতঃ বন্যা প্লাবিত হওয়ায় জলজ প্রাণীর নিরাপদ আশ্রয়স্থল হিসেবে সর্বদাই বিবেচিত হয়ে আসছে। এ অঞ্চলে অতীতে ৩ শ প্রজাতির মাছের নিরাপদ আশ্রয়স্থল ছিল। কালের বিবর্তনে জলবায়ুর পরির্বতন ও পরিবেশগত কারণে প্রায় ১ শত ৩৭ প্রজাতির মাছ বিলুপ্তির পথে । এছাড়া অর্ধশত প্রাজাতির মাছ এ অঞ্চল থেকে হারিয়ে গেছে। ফলে এঅঞ্চলের মানুষের মাছের অপর্যাপ্ততায় আমিষ জাতীয় খাদ্যের অভাবে স্বাস্থ্য সমস্যার সম্মুখিন হচ্ছে। দিনাজপুর অঞ্চলের কাঁকর ও বালিযুক্ত মাটির পানির ধারন ক্ষমতা কম। এরপরে তিস্তার উজানে বাঁধ নির্মিত হওয়ায় এঅঞ্চলে জলশূন্যতা বিরাজ করছে। সর্বত্রই প্রতিকূল পরিস্থিতির সৃষ্টি হওযায় মাছের ঘাটতি দেখা দিয়েছে। রংপুর মৎস্য অধিদপ্তররের অতিরিক্ত পরিচালক মঞ্জরুল ইসলাম জানান, এ্ই অঞ্চলে মাছের ঘাটতি পূরণে বিশেষ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। মৎস অভয়াশ্রম সংরক্ষন ও মেরামত, সম্প্রসারণ কার্যক্রম চলছে। এছাড়া মৎসকে যান্ত্রিকি করণের প্রক্রিয়া হাতে নেয়া হয়েছে। এই প্রক্রিয়া বাস্তবায়ন হলেন এ অঞ্চলে মাছের ঘাটতি করে যাবে।

Previous articleযশোরে ৩১৯ টি শিক্ষা তিষ্ঠানে মধ্যে ২৫১ টিতেই নেই কোনো শহীদ মিনার
Next articleরংপুরে লাইট হাউজের উদ্যোগে তৃতীয় লিঙ্গের মানুষের মাঝে ত্রান সামগ্রী বিতরণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।