জি এম মিন্টু: কেশবপুরে মৎস্য ঘেরের বিরোধকে কেন্দ্র করে ঘের মালিক সমিতির সভাপতির দায়ের করা মামলায় উপজেলার মঙ্গলকোর্ট আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদুজ্জামান মাসুদকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। মঙ্গলবার সকালে থানা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করে।

কেশবপুরে কন্দর্পপুর পশ্চিম হাজরাতলা কুড় বিলের জমির মালিকদের সঙ্গে মৎস্য ঘের মালিকের বিরোধকে কেন্দ্র করে সম্প্রতি এক সংঘর্ষে ৪ জন গুরুত্বর আহত হলে ঘের মালিক সমিতির সভাপতি থানায় তার বিরুদ্দে মামলা দায়ের করেন।

জানা যায়, কন্দর্পপুর পশ্চিম হাজরাতলা কুড় বিল কমিটির সভাপতি আব্দুল লতিফ মোড়ল বাদী হয়ে ৫ নম্বর মঙ্গলকোট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মনোয়ার হোসেনের ছেলে খালিদ হোসেন এবং ৫ নম্বর মঙ্গলকোট ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদুজ্জামান মাসুদসহ ১০ জনের নাম উল্লেখ করে কেশবপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং: ১৭, তারিখ: ১৪/০২/২০২১।

মামলার পর থানা পুলিশ মঙ্গলবার সকালে অভিযান চালিয়ে ২নং আসামী মঙ্গলকোর্ট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কন্দর্পপুর গ্রামের আফছার সানার ছেলে মাসুদুজ্জামান মাসুদকে গ্রেফতার করেছে।

থানায় এজাহার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার কন্দর্পপুর ৮২ নং মৌজার হাজরাতলা কুড়ের জমির মালিকদের সাথে অবৈধ ঘের মালিক খালিদ হোসেনের মৎস্য ঘেরের ডিড বাতিল ঘোষণা করায় ক্ষিপ্ত হয়ে তার নেতৃত্বে পেটুয়া ও সন্ত্রাসী বাহিনী দলবদ্ধভাবে গত ১১ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার বিকেলে চাইনিজ কুড়াল, রামদা, লোহার রড, হাতুড়ী, বাঁশের লাঠিসহ বে-আইনি অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে কন্দর্পপুর গ্রামের মৃত মাদার গাজীর ছেলে বাবরালী গাজী (৬০) ও তার ছেলে জাহিদ হোসেন গাজী (২৩) এবং আফসার মোড়লের ছেলে মশিয়ার মোড়লের (৩৫) বাড়িতে হামলা চালায় এবং ঘরের মধ্যে অনাধিকার প্রবেশ করে তাদেরকে ঘর থেকে টেনে হেচড়ে বের করে এনে ৫ নম্বর মঙ্গলকোট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদুজ্জামান মাসুদের হুকুমে মঙ্গলকোট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মনোয়ার হোসেনের ছেলে দূর্ধর্ষ ও এলাকার ত্রাস খালিদ হোসেনের নেতৃত্বে কন্দর্পপুর গ্রামের সুরোত আলী গাজীর ছেলে আঃ রশিদ, মৃত মাওলা বক্স গাজীর ছেলে লিটন গাজী, আঃ রশিদ সানার ছেলে কাঞ্চন সানা মিলে রামদা, হাতুড়ী, চাইনিজ কুড়াল দিয়ে এলোপাতাড়ী ভাবে মারপিঠ করে গুরুত্বর রক্তাক্ত জখম করে।

এ সময় বাবরালীর ডাক চিৎকারে তার স্ত্রী আয়রা বেগম ঠেকাতে আসলে সকল সন্ত্রাসীরা তাকেও এলোপাতাড়ী কিল ঘুসি মারে ও পরনের কাপড় টানাটানি করে বিবস্ত্র করে শ্লীলতাহানী ঘটায়। এ সময় তার গলায় থাকা ১২ আনা ওজনের স্বর্ণের চেইন ছিড়ে নেয় এবং বাবরালীর ঘরে ঢুকে তসকের তলে রক্ষিত ৫০ হাজার টাকা লুট করে।

এলাকাবাসী জখমীদের উদ্ধার করে কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করেন। মৎস্য ঘেরের জমি দখল নেওয়ার জন্য খালিদ হোসেনের সন্ত্রাসী কর্মকান্ড থেমে নেই। সন্ত্রাসীরা অস্ত্রে সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে মৎস্য ঘের এলাকায় সন্ত্রাসী বিভিন্ন কর্মকান্ডসহ মহড়া অব্যাহত রাখে।

তারই ধারাবাহিকতায় ১২ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার দুপুরে আবারও কন্দর্পপুর গ্রামের আমের আলী মোড়লের ছেলে হাবিবুর রহমানকে (২৭) বাড়ির পশ্চিম পাশে জমিতে একা পেয়ে তাকেও বেধড়ক মারপিট করে আহত করে। তাকেও এলাকাবাসী উদ্ধার করে কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করেন।

মঙ্গলকোট ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি বজলুর রহমান জানান, মাসুদুজ্জামান মাসুদ মঙ্গলকোট ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক।

এ ব্যাপারে কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ জসীম উদ্দীন বলেন, মৎস্য ঘেরের বিরোধকে কেন্দ্র করে হামলার ঘটনায় ঘেরের সভাপতির দায়ের করা মামলায় মাসুদুজ্জামান মাসুদকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে তাকে আদালতে প্রেরণ করেছে। মামলার বাকী আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Previous articleঠাকুরগাঁওয়ে বিএনপি’র বিক্ষোভ সমাবেশ
Next articleকেশবপুরে বিল খুকশিয়ায় ২৭টি বিলের জলাবদ্ধতা নিরসনে কাজ করছে এলাকাবাসী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।