আব্দুদ দাইন: পাবনার সাঁথিয়ায় ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডে(পাউবো)র আই-৩,এস-১৯ আত্রাইক্যানালে মাছ চাষের জন্য দেওয়া অর্ধশত বাঁধ উচ্ছেদ করেছে। এতে মাছ চাষের জন্য ঋন নেয়া মৎস্যচাষীরা হতাশ। তাদের দাবী কোন প্রকার নোটিশ ছাড়াই উচ্ছেদ করা হচ্ছে লীজ নেয়া জলাশয়ের বাঁধ। জানাযায়, বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই সাঁথিয়া উপজেলার কাশিনাথপুর ব্রীজ এলাকা থেকে আই-৩,এস-১৯ আত্রাইক্যানালে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান শুরু করে। আদালত দুপুর নাগাদ উপজেলার রঘুরামপুব ব্রীজ পর্যন্ত প্রায় অর্ধশতাধিক বাঁধ উচ্ছেদ করে। ভ্রাম্যমান আদালত বুধবার মাধপুর থেকে ক্যানালের বাঁধ উচ্ছেদ অভিযান কাজ শুরু করে। এতে বৈধ ও অবৈধ লক্ষ লক্ষ টাকার মাছ ভেসে যায় মৎস্য চাষীদের। সাঁথিয়া উপজেলার রঘুরামপুর গ্রামের মজিদ ড্রাইভারের ছেলে বিল্লাল জানান, পাবনা পানি উন্নয়ন বোর্ডের মাধ্যমে প্রায় ৫ একর জলাশয় বৈধ ভাবে লীজ কেটে মাছ চাষের জন্য রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক সাঁথিয়া শাখা খেকে ৫ লক্ষ টাকা ঋন গ্রহণ করেন। কোন প্রকার নোটিশ ছাড়াই লীজ নেয়া জলাশয় থেকে বাঁধ উচ্ছে করা হয়েছে। এতে তার প্রায় ২০ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে। সুজানগরের দুর্গাপুর গ্রামের আসলাম জানান, ক্যানালের বাঁধ উচ্ছেদ করায় তার প্রায় ১৫ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে। ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খন্দকার মাহমুদুল হাসান জানান, ক্যানাল পাড়ের প্রভাবশালী ব্যক্তিরা অবৈধ ভাবে ক্যানাল দখল করে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করছে। বর্তমানে কোন মৎস্যচাষীকে নতুন করে লীজ দেওয়া হয় নাই। ক্যানাল থেকে বাঁধ উচ্ছেদের ঘটনায় সাধারণ মানুষ স্বস্তি প্রকাশ করেছে। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার সময় উপস্থিত ছিলেন পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী রফিকুল আলম চৌধুরী, উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী শাহীন রেজা,পাউবোর সহকারী পরিচালক মোশারফ হোসেন, উপ-প্রধান সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মোতাহার হোসেন, সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা আ: মমিন ও আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা।

Previous articleঈশ্বরদীতে অবৈধ বালুমহাল ও পদ্মার মাটি বিক্রি বন্ধে পুলিশের অভিযান, তিনটি ট্রাক্টরসহ আটক ২
Next articleমাদারীপুরে প্রেমিকার বাড়ির সামনে গাছ থেকে প্রেমিকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।