তাবারক হোসেন আজাদ: দেনায়েতপুর গ্রামের দিনমজুর হাসান আহম্মদসহ কয়েক ব্যক্তি শুক্রবার সকালে (২৬ ফেব্রুয়ারী) আড্ডা দিচ্ছিলেন স্থানীয় চা-দোকানে। ভোট নিয়ে কী ভাবছেন জানতে চাইলে, তারা সবাই একই সুরে জানান, দলের কর্মীরা আর কাউন্সিলর সাহেব ভোটের কথা বলছেন। তাঁদের মন্তব্য, শক্তিশালী বিরোধী দল না থাকলে ভোট জমে না। জেলার আ’লীগের সাধারন সম্পাদকই ঘোষনা দিয়েছেন, ভোটের সময় প্রকাশ্যে নৌকার সীল মারবে। ৫৭ কাউন্সিলরও একাত্বতা ঘোষনা দিয়েছেন। তবে কাউন্সিলরদের মধ্যেও মারামারি হবে। এতে খুব বেশি মানুষ ভোটকেন্দ্রে যাবেন বলেও মনে হয় না।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, লক্ষ্মীপুরের রায়পুর পৌরসভার বেশির ভাগ এলাকায় ভোটের চিত্র অনেকটা এমনই। তবে প্রার্থী ও তাঁদের সমর্থকদের মতে, অবস্থার পরিবর্তন হচ্ছে। ভোটাররা যাতে কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেন, সে লক্ষ্যে কাজ করছেন তাঁরা। এখানে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন, আ’লীগের সমর্থীত মেয়র প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন রুবেল ভাট (নৌকা), বিএনপির এবিএম জিলানী (ধানের শীষ), ইসলামী আন্দোলনের আবদুল খালেক (হাতপাখা), স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ মনির আহাম্মদ (মোবাইল), নাসির উদ্দিন সগির (পানির জগ) ও মাসুদ উদ্দিন (নারিকেল গাছ)।

উপজেলা নির্বাচন কমিশন সূত্র জানায়, ২৮ ফেব্রুয়ারী নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গত রোববার প্রিসাইডিং ও পোলিং কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট লোকবল নিয়োগ এবং তাঁদের প্রশিক্ষণ শেষ করা হয়েছে। শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা থাকলেও ৯টি ওয়ার্ডের ১৩টি কেন্দ্রকেই ঝুঁকিপূর্ণ। তার মধ্যে ৩টি কেন্দ্রকে বেশী ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে প্রশাসন। বুধবার বিকালে (২৪ ফেব্রুয়ারী) ৬ মেয়র ও ৫৮ কাউন্সিলর প্রার্থীকে নিয়ে বৈঠক করেছেন জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারসহ নির্বাচন কমিশন।

নির্বাচনের প্রস্তুতি সম্পর্কে জেলা পুলিশ সুপার ডক্টর এএইচ এম কামরুজ্জামান জানান, শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য নিয়োজিত থাকবেন। তাঁদের মধ্যে থাকবেন পুলিশ, আনসার এবং গ্রাম পুলিশের সদস্য।

এ ছাড়া প্রতিটি ওয়ার্ডে একটি করে পুলিশের স্টাইকিং ফোর্স ও একজন করে ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োজিত থাকবেন। ভ্রাম্যমাণ ফোর্স হিসেবে থাকবে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

বিভিন্ন এলাকার ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রথম থেকে রুবেল ভাট আওয়ামী লীগ-
সমর্থিতদের নিয়ে প্রচারণা শুরু করেন। তাঁরা নৌকা প্রতিকে পোস্টার নিয়ে মাইকিং, গণসংযোগ ও কেন্দ্রীয়, জেলা ও উপজেলার নেতাদের নিয়ে পথসভা করেছেন। আচরনবিধি লঙ্ঘন করায় (গাড়ীতে পোষ্টার লাগানো) তাকে ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড কররন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট রিপা রানি দেবি। পাশাপাশি ধানের শীষ প্রতিকে দুইবারের সাবেক মেয়র এবিএম জিলানী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী অধ্যাপক মনির আহাম্মদও গনসংযোগ করছেন। তারা তিন প্রার্থীই বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারী) বিকালে ও সন্ধায় পৌরবাসীর জন্য নির্বাচনি ইশতেহার ঘোষনা দিয়েছেন।

Previous articleনায়িকা বুবলীকে গাড়ি চাপা দিয়ে হত্যাচেষ্টা, অল্পের জন্য রক্ষা
Next articleপীরগাছায় তিস্তার ফুটন্ত বালুতে মিষ্টি আলুর চাষ, ভাল ফলনের সম্ভাবনা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।