আব্দুদ দাইন: পাবনার সাঁথিয়া কলেজটি সরকারি হবার পর এখন বেহাল দশা। ২০১৬ সালে কলেজটি জাতীয়করণের ঘোষণা দেওয়া হয়। এ ঘোষণায় আনন্দের বন্যা বয়ে যায় কলেজের শিক্ষক-কর্মচারি শিক্ষার্থীসহ স্থানীয়দের মধ্যে। কিন্তু এখন জাতীয়করণের নানা জটিলতা কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির জন্য। প্রতিষ্ঠানটিতে দীর্ঘদিন ধরে অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষসহ শিক্ষক-কর্মচারীদের গুরুত্বপূর্ণ ১৬টি পদ খালি থাকলেও তাতে নিয়োগ দেওয়া যাচ্ছে না। এমনকি অবসরজনিত কারণে কলেজটির কোনো কোনো বিভাগ একেবারে শিক্ষকশূন্য হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় জনবল সংকটে প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম স্থবির হওয়ার উপক্রম হয়েছে। কলেজ কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা যায়, সাঁথিয়া সরকারি কলেজকে জাতীয়করণের ঘোষণা দিয়ে ২০১৬ সালের ১৬জুন এর যাবতীয় নিয়োগ কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়া হয়। ওই সময় পর্যন্ত কলেজটিতে অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষসহ মোট ৫৭ জন শিক্ষক-কর্মচারী কর্মরত ছিলেন। কিন্তু এর পর থেকে প্রায় পাঁচ বছরে অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষসহ মোট ১৬ জন শিক্ষক-কর্মচারী অবসরে গেছেন। নিয়োগ কার্যক্রমে নিষেধাজ্ঞা থাকার কারণে এসব পদে এখনও কোনো নিয়োগ দেওয়া সম্ভব হয়নি। ফলে পদগুলো দীর্ঘদিন ধরে ফাঁকা পড়ে আছে। এরই মধ্যে ২০১৮ সালের ১২ আগস্ট কলেজটিকে জাতীয়করণের জন্য প্রজ্ঞাপন জারি হয়। কিন্তু প্রজ্ঞাপন জারির পর দুই বছর পার হলেও কলেজের শিক্ষক-কর্মচারীদের যেমন আত্তীকরণ হয়নি তেমনি শিক্ষার্থীরাও কোনোরকম সরকারি সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছে না। সব মিলিয়ে কলেজটির জাতীয়করণের কার্যক্রম একেবারেই স্থবির হয়ে আছে। আর এ ক্ষেত্রে কলেজটি সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়েছে নিয়োগ সংক্রান্ত জটিলতায়। কারণ সেখানে অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষের পদসহ শিক্ষক-কর্মচারীর ১৬টি পদ অবসরজনিত কারণে শূন্য হয়ে পড়লেও জটিলতার কারণে তাতে নিয়োগ দেওয়া যাচ্ছে না। কলেজ সূত্রে জানা যায়, হিসাব বিজ্ঞান বিভাগে একসময় দুজন শিক্ষক থাকলেও দুজনেই অবসরে চলে গেছেন। ফলে এই বিভাগটি চলছে কোনো শিক্ষক ছাড়া। বাংলা ও অর্থনীতি বিভাগে একসময় তিনজন করে শিক্ষক থাকলেও এখন সেখানে একজন করে শিক্ষক রয়েছেন। এর মধ্যে অর্থনীতি বিভাগের একমাত্র শিক্ষক মোহাম্মদ আলী ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। বছর খানেকের মধ্যে তাঁরও অবসরে যাওয়ার কথা রয়েছে। ফলে নিয়োগ জটিলতা না কাটলে অর্থনীতি বিভাগও শিক্ষকশূন্য হয়ে পড়বে। এ ছাড়া কলেজটিতে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির তিনজন কর্মচারীর পদও শূন্য হয়ে রয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কলেজের একাধিক শিক্ষক জানান, করোনা পরিস্থিতির কারণে ক্লাস বন্ধ থাকায় শিক্ষক সংকটের বিষয়টি আপাতত: চোখে পড়ছে না। কিন্তু গত ১৭ মার্চ করোনার কারণে কলেজ বন্ধ হওয়ার আগ পর্যন্ত শ্রেণি পাঠদানে বেহাল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছিল। কলেজ খোলার পর আবারও একই অবস্থা দেখা দেবে। তাঁরা বলেন কলেজ জাতীয়করণের

আনন্দ এখন উল্টো বিষাদে পরিণত হয়েছে। কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোহাম্মদ আলী জানান, ‘জনবল সংকটে কলেজের সার্বিক অবস্থা বেহাল হয়ে পড়েছে। এই সমস্যার সমাধান না হলে অবসরজনিত কারণে সামনে জনবল সংকট আরও বাড়বে। এ অবস্থায় কলেজ চালানো অসম্ভব হয়ে পড়বে।’ কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও সাঁথিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম জামাল আহমেদ জানান, ‘করোনার কারণে সরাসরি ক্লাস বন্ধ থাকলেও অনলাইন ক্লাস চালু আছে। কিন্তু শিক্ষক সংকটের কারণে অনলাইন ক্লাসেও পড়ালেখা বিঘিœত হচ্ছে। বিষয়টির দ্রুত সমাধান হওয়া দরকার।

Previous articleতাহিরপুরে অটোরিকশা উল্টে বৃদ্ধের মৃত্যু
Next articleভূঞাপুরে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে টি২০ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট উদ্বোধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।