বাংলাদেশ প্রতিবেদক: শরীয়তপুরে আওয়ামী লীগ নেতা হাবিবুর রহমান ও তার ভাই মনির হোসেনকে হত্যার ঘটনায় ৬ জনকে মৃত্যুদণ্ড এবং ৪ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়া ৩ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজার আদেশ দেওয়া হয়েছে।

রোববার (২১ মার্চ) অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. শওকত হোসাইন এ হত্যা মামলার রায় ঘোষণা করেন।

এ ছাড়াও মামলার ৫৩ আসামির মধ্যে ২ জনের মামলা চলাকালীন অবস্থায় মৃত্যু হয়েছে আর মামলা থেকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয় ৩৮ জনকে। মৃত্যুদণ্ড রায় প্রাপ্ত ৬ আসামির মধ্যে শহীদ তালুকদার পলাতক রয়েছে বাকি ৫ জন আটক রয়েছে।

মৃত্যু দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন-শাহিন কোতোয়াল, শহিদ কোতোয়াল, শফিক কোতোয়াল, শহিদ তালুকদার, সোলেমান সরদার ও মজিবর রহমান তালুকদার (ল্যাংড়া)।

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন-সারোয়ার হোসেন বাবুল তালুকদার, ডাবলু তালুকদার, বাবুল খান ও টোকাই রশিদ। বিভিন্ন মেয়াদে সাজা ও অর্থদণ্ড প্রাপ্ত আসামি মন্টু তালুকদার, আসলাম সরদার ও মজনু ওরফে জাকির হোসেন।

এই মামলার এজাহারে ৫৩ জনকে আসামি করা হয়। এর মধ্যে ইতোমধ্যে সাবেক সাংসদ হেমায়েত উল্লাহ আওরঙ্গসহ দুইজন মৃত্যু বরণ করেছে। অপর ৩৮ জন আসামি বেকসুর খালাস পেয়েছেন।

২০০১ সালের ৫ অক্টোবর বিকালে নিজ বাড়িতে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী সভা চলাকালীন সময়ে সন্ত্রাসীদের গুলিতে জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক ও শরীয়তপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সাবেক পিপি অ্যাডভোকেট হাবিবুর রহমান ও মনির হোসেন মুন্সি নিহত হয়।

ওই ঘটনায় ৫৩ জনকে আসামি করে ৬ অক্টোবর পালং মডেল থানায় মামলা করেন নিহত হাবিবুর রহমানের স্ত্রী জিন্নাত রহমান। এই মামলায় ২০০৩ সালের ২৩ মার্চ অভিযোগ পত্র দাখিল করে পুলিশ।

অভিযোগ পত্রের বিরুদ্ধে বাদী পক্ষের নারাজী আবেদন থাকায় আদালত পুনরায় তদন্তের আদেশ প্রদান করে। পরবর্তীতে ২০১৩ সালের ৩ অক্টোবর সম্পূরক অভিযোগপত্র আদালতে দাখিল করা হয়। মামলার বিচার কার্য শুরু হলে বাদী পক্ষে ২৯ জন সাক্ষী সাক্ষ্য প্রদান করে। আসামি পক্ষে সাফাই সাক্ষী প্রদান করেছেন ২৫ জন। আদালতের চাহিদা মতে আরও দুই জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়।

দীর্ঘ ২০ বছর পরে রোববার রায় ঘোষণা করেছে আদালতের বিচারক। আদালতের রায়ে সন্তুষ্ট নয় বাদী ও আসামি পক্ষ। এদিকে রায়ের পর থেকে শরীয়তপুর জেলার বিভিন্ন স্থানে সড়ক অবরোধ করে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করেছেন বাদী পক্ষের সমর্থকরা।

এদিকে শহর জুড়ে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ রক্ষায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এই রায়ের বিরুদ্ধে উভয় পক্ষই উচ্চ আদালতে আপিল করবেন বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা।

Previous articleকক্সবাজার ভ্রমণকারীরা বেশি আক্রান্ত হচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
Next articleটিকার দ্বিতীয় ডোজ ৮ এপ্রিল থেকে শুরু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।