জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুর উপজেলায় সজিনার বাম্পার ফলন হয়েছে। ফলন আরো বাড়াতে এবং কৃষকদের আগ্রহী করে তুলতে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে ৫’শাতাধিক সজিনার ডাল রোপন করা হয়েছে। কেশবপুর উপজেলার গ্রাম-গঞ্জে, হাট-বাজারে ভরপুর সজিনার। উৎপাদন ও পরিচর্যা কম বলেই চাষীরা সজিনার চাষে আগ্রহী। জেলা, উপজেলা চাহিদা মিটিয়ে এখানকার উৎপাদিত সজিনা এখন রাজধানী ঢাকায় সরবরাহ হচ্ছে। প্রতিদিন পাইকারী ব্যবসায়িরা গ্রাম ও ছোট হাট বাজার ক্রয় করে তা ঢাকায় সরবরাহ করছে। মৌসুমের শুরুতেই স্থানীয় বাজার থেকে কম মূল্যে ক্রয় করে তা ঢাকায় ২শ’ থেকে ৫শ’ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে বলে ব্যবসায়ীরা জানিয়েছে। তবে বর্তমানে তা কমে ৮০ থেকে ১০০টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। বিক্রেতারা বলছে বাজারে যে ভাবে সজিনা আমদানী হচ্ছে তা কিছু দিনের মধ্যেই ৪০ থেকে ৫০ টাকায় নেমে আসবে। ফলে ক্রেতারাও বেশ খুশি হবেন। গ্রাম গজ্ঞে সজিনার ব্যাপক চাষ হয়ে থাকে। স্বাদে ও গুনে ভরপুর এই সবজিটি। এ কারণেই সবার কাছে অত্যন্ত প্রিয়। গ্রামে সজিনা নাই এমন বাড়ি খুজে পাওয়া বিরল। জমির আইল, সড়কের ধার, বাড়ির আঙ্গিনায় ও অনাবাদি জমিতে সজিনার চাষ হয়। তবে বাণিজ্যিকভাবে সজিনার উৎপাদন করতে পারেল অন্যান্য যেকোন সবজি উৎপাদনের থেকে এটি খুব লাভজনক। সজিনা বহুদিন ধরে আমাদের দেশে এটি সবজির পাশাপাশি ঔষধ, গরু ছাগলের খাদ্য হিসাবে ব্যবহার হয়ে আসছে। সজিনার ফুল ও পাতা শুধু শাখ হিসেবে নয় এটি ঔষধ হিসাবে ব্যবহার হয়। মুখের স্বাদ আনতে সজিনার জুড়ি নাই। সজিনার ফুল সর্দি-কাশিতে, যকৃতের কার্যকারিতায়, কৃমি প্রতিরোধে এবং শক্তি বৃদ্ধিতে সহয়তা করে। সজিনার ডাটাতে প্রচুর এমাইনো এসিড আছ। সজিনার বিচ থেকে তেল ও পাওয়া যায় যা বাতের ঔষধ তৈরির কাজে ব্যবহার হয়। এ ছাড়া ঘড়ি ঠিক করার জন্য যে বেল ওয়েল ব্যবহার করা হয় তা এর বীজ থেকে পাওয়া যায়। সজিনা ২০ থেকে ৩৫ ডিগ্রী তাপমাত্রায় ভাল হয় এবং ২৫০ হতে ১৫০০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয় সেখানে ভাল জন্মায়। বেলে দোয়াশ মাটিতে সজিনা ভাল হয়। সজিনা চাষের সারের তেমন প্রয়োজন হয় না। তরে ইউরিয়া এবং জৈব সার প্রয়োগে সজিনা ভাল হয়। এটি সাধারণত গাছের ডাল থেকে বংশ বিস্তার করে। বীজ থেকেও বংশ বিস্তার হয়। তবে কেশবপরে ডাল থেকে বংশ বিস্তার ঘটানো হয়। সজিনার চাষের কোন সঠিক পরিসংখ্যান নেই কেশবপুরে। কৃষিকর্মকর্তা মহাদেব সানা বলেন, সজিনা একটি লাভ জনক সবজি। রোগ বালাই প্রায় নেই এবং উৎপাদন খরচ খুব কম। তাই কৃষকদের সজিনা চাষের উদ্বদ্ধ করা হচ্ছে। সজিনা উৎপাদনকারীদের জমির আইল, রাস্তা ও পতিত জায়গা,বাড়ির আঙ্গিনায় সজিনা লাগনোর পরামর্শ্য দেয়া হয়ে থাকে। বাণিজ্যক ভাবে সজিনা চাষে কৃষকদের আগ্রহ করে তুলতে কৃষি কর্মকর্তারা নানামুখি পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। কৃষিকর্মকর্তা আরো বলেন, কৃষকদের সজিনা চাষের আগ্রহ তৈরি করার জন্য কেশবপুর উপজেলায় বিভিন্ন গ্রামের ৫শতাধিক সজিনা ডাল লাগানোর হয়েছে। এবছর বৃষ্টিপাত কম হওয়ায় কেশবপুরে রেকর্ড ছাড়া সজিনার বাপ্পার ফলন হয়েছে। বাণিজ্যিকভাবে সজিনার উৎপাদন করতে পারেল এবং উপজেলার চাহিদা মিটিয়ে রাজধানীসহ সারাদেশে রপ্তানির মাধ্যমে চাষীরা আর্থিকভাবে স্বাবলম্ভি হতে পারবে।

Previous articleবনানীতে ১৪ তলা ভবনে আগুন
Next articleকেশবপুরে অসহায় পরিবারের উপর সন্ত্রাসী হামলা, পুলিশ হিফাজতে আহতদের হাসপাতালে ভর্তি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।