রেজাউল ইসলাম পলাশ: নিজের বাবা, সৎ-মা ও সৎ ভাইয়ের হামলা- মামলা ও হয়রানির হাত থেকে স্বামীকে বাঁচতে সরকার, প্রশাসন ও সচেতন দেশবাসীর সহযোগিতা চেয়েছেন মেয়ে সালেহা বেগম। বুধবার ২৪ মার্চ রাজাপুর প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই সহযোগিতা চান তিনি। অভিযুক্ত বাবা আনোয়ার হোসেন খন্দকার উপজেলার ২ নং শুক্তাগড় ইউনিয়নের শুক্তাগড় গ্রামের বাসিন্দা। সংবাদ সম্মেলনে দেওয়া লিখিত বক্তব্যে সালেহা বেগম জানান, তার বাবার আচার- ব্যবহারে সালেহা বেগমের পরিবারের সাত সন্তানসহ স্বামী সিদ্দিকুর রহমান অতিষ্ঠ। ফলে নিরুপায় হয়ে বাবার এ হয়রানীর থেকে বাঁচার জন্য সরকার, প্রশাসন ও সচেতন দেশবাসীর কাছে আকুতি জানাতে বাবার বিরুদ্ধে তিনি এই সংবাদ সম্মেলন করতে বাধ্য হয়েছেন। সালেহা বেগম অভিযোগ করেন, ঢাকায় ১০ বছর গৃহ পরিচারিকার কাজ করে সঞ্চিত নগদ ৩ লাখ টাকা ও ২ ভরি স্বর্নালংকার ফেরত চাইতে গিয়ে প্রথমে বিরোধের সূত্রপাত। বাবা আনোয়ার হোসেন খন্দকারের কাছে গচ্ছিত রাখা নগদ ৩ লাখ টাকা ও ২ ভরি স্বর্নালংকার ফেরতের চাপ দিলে বাবা তার বাগানের গাছ বিক্রি করে পরিশোধের প্রতিশ্রুতি দেন। পরে বাবার কথা অনুযায়ি তার বাগান থেকে একটি গাছ কেটে রেখে আসলে বাবার প্ররোচনায় সৎ-মা ও ভাই রুবেল লোকজন নিয়ে সরিয়ে ফেলতে চেষ্টার সময় তারা আমার বাধার মুখে পরেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তারা আমার স্বামীর সহ কয়েকজনকে আসামী করে আদালতে মামলা দায়ের করেন। যা বর্তমানে ঝালকাঠি ডিবি পুলিশের কাছে তদন্তাধীন। সংবাদ সম্মেলনে সালেহা বেগম তার সৎ ভাইকে পেশাদার মাদক কারবারী ও চোর আক্ষা দিয়ে জানান ইতিপূর্বে সৎ-ভাই রুবেল একাধিকবার তাকে লাঞ্চিত করেছে। সংবাদ সম্মেলনে সালেহা বেগম বলেন আসন্ন ইউপি নির্বাচনে মেম্বর প্রার্থী তার স্বামীর সম্মান রক্ষার্থে নির্বাচন বিরোধীদের প্ররোচনায় সাজানো মামলা তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পুলিশ প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন এবং সেই সাথে সাম্প্রতিক দায়ের করা তার বাবার দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার সহ বাবার কাছে গচ্ছিত নগদ ৩ লাখ টাকা ও ২ ভরি স্বর্নালংকার ফেরত পাওয়ার দাবী জানান।

Previous articleসড়কে দাঁড়িয়ে মৃত্যুদূত শতবর্ষী গাছ
Next articleপাঁচবিবিতে ফেনসিডিলসহ নারী আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।