তাবারক হোসেন আজাদ: গত ৭দিনে লক্ষ্মীপুরে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে দ্বি-গুণ। বুধবার (৩১ মার্চ) ১৩১ জনকে নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ২০ জনের পজেটিভ আসে তার মধ্যে-(সদর- ১০, রামগঞ্জ- ৭, কমলনগর- ১, রামগতি- ২, রায়পুরে-০) সর্বমোট পজেটিভ আসে- ২৪১৮ জনের। আজ বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) করোনার ফলাফল আসতে রাত হবে বলে জানান সিভিল সার্জন।

রোগীদের বেশিরভাগকেই অক্সিজেন দেওয়ারও প্রয়োজন হয়। তবে স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে শুধুমাত্র কোভিড-১৯ চিকিৎসার জন্য নির্ধারিত (ডেডিকেটেড) হাসপাতালে বেশিরভাগেই সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্ল্যান্ট নেই। জেলার কমলনগর ও রামগঞ্জ সরকারি হাসপাতালে সেন্ট্রাল প্ল্যান্ট আছে। রায়পুরে ৫০ শয্যা সরকারি হাসপাতালের ওয়ার্ডের বেডে অক্সিজেন সরবরাহের ব্যবস্থা নেই, রোগীর অবস্থা নাজুক হলে শুধু অক্সিজেন দিতে হলেও তাকে নিতে হয় আইসিইউ বা সিসিইউতে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কোভিড-১৯ আক্রান্ত জটিল রোগীদের মধ্যে যাদের আইসিইউতে নিতে হয় সে হারও কমিয়ে আনা সম্ভব, যদি প্রতিটি বেডের সঙ্গে অক্সিজেন সরবরাহ থাকে। আর অক্সিজেন সরবরাহ যখন নিশ্চিত করা সম্ভব হয় না (ফেইল করে) তখনই দরকার হয় ভেন্টিলেটর। যদি অক্সিজেন সাপ্লাই ঠিক থাকে, তাহলে ভেন্টিলেটর পর্যন্ত যাওয়ারই দরকার হয় না। তাই কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালে প্রথমেই দর অক্সিজেন।

জানতে চাইলে রায়পুর সরকারি হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডাক্তার বাহারুল আলম যুগান্তরকে বলেন, আমাদের পাশ্ববর্তী রামগঞ্জ ও কমলনগর সরকারি হাসপাতালে সেণ্ট্রাল অক্সিজেন রয়েছে। রায়পুর হাসপাতালে খুবই জরুরি। আর তখনি আইসিইউ এর আগ পর্যন্ত রোগীর চিকিৎসা দেয়া সম্ভব হবে। এটা সরবরাহ দিয়ে থাকে জাইকা নামক প্রতিষ্ঠান।

লক্ষ্মীপুর সিভিল সার্জন ডাক্তার আবদুল গফ্ফার সত্যতা স্বীকার করে যুগান্তরকে বলেন, রায়পুর উপজেলা প্রশাসন থেকে সরবরাহ না দিলে আমাদের করার কিছুই নেই। রামগঞ্জ ও কমলনগর উপজেলা প্রশাসন দিয়েছেন বলেই হাসপাতাল পেয়েছেন। তারপরও রায়পুর উপজেলা প্রশাসন থেকে এখনো হাসপাতালে সেণ্ট্রাল অক্সিজেন-দেয়ার সুযোগ রয়েছে।

দেশে কোভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাব শুরুর পর থেকেই হাসপাতালগুলোর প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হয়েছে। কিন্তু রায়পুর হাসপাতালকে এখন পর্যন্ত সর্ম্পূণভাবে ডেডিকেটেড করা হয়েছে কোভিড আক্রান্ত রোগীদের জন্য। সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্ল্যান্ট ছাড়া হাসপাতালে মেনিফোল্ড দিয়ে প্রাথমিক ধাক্কা কাটানো যাবে হয়তো, কিন্তু যখন রোগী বেশি হবে তখন সিলিন্ডার দিয়ে ভেন্টিলেটর চালানো যাবে না, কারণ ভেন্টিলেটর চালাতে হলে ‘হাইফ্লোর’ অক্সিজেন দরকার। হাসপাতালে প্রপার প্ল্যান্ট রয়েছে, ওয়ার্ড পর্যন্ত যাদের সেন্ট্রাল সাপ্লাই রয়েছে সেসব হাসপাতালে কোভিড আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার ব্যবস্থা হলে সবদিক দিয়েই ভালো হতো, নিরাপদ হতো।

Previous articleশার্শা সীমান্তে ১৫ টি স্বর্ণের বারসহ পাচারকারী আটক
Next articleটাঙ্গাইলে সিধঁ কেটে মায়ের মুখে গামছা বেঁধে শিশু চুরি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।