এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় যে কয়েকজন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাধারন মানুষের হৃদয়ে দাগ কেটেছে তাদের মধ্যে আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক অন্যতম। গত বছর নভেল করোনা ভাইরাসের শুরুর দিকে খুবি খারাব পরিস্থিতির সময় তিনি কলাপাড়া যোগদান করেন। যোগদানের পরে খুব স্বল্প সময়ের মধ্যেই তিনি কলাপাড়ার একপ্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ঘুরে বেড়িয়েছেন। করোনা পরিস্থিতির অবনতি ও লকডাউনের মাঝেও তিনি অসহায় মানুষের পাশে গিয়ে দাড়িয়েছেন। প্রতিটি বাড়ি বাড়ি গিয়ে সাধারণ মানুষের দুঃখ লাগবে নিরলসভাবে কাজ করেছেন। করোনা পরিস্থিতি ও লকডাউনে তার আগ্রগামী চিন্তার সুফল হিসেবে কলাপাড়ায় করোনার প্রকোপ ছিলো খুবই কম। উপজেলাবাসীর উন্নয়নেও রেখেছেন অনন্য ভূমিকা। তাঁর স্পষ্টবাদিতা ও সততায় কিছু মুষ্টিমেয় লোকের স্বার্থ নষ্ট হলেও এলাকার আপামর জনগণ ছিলেন স্বস্তিতে, এমন একজন যোগ্য কর্মকর্তাকে কাছে পেয়ে তারা যেনো স্বস্তি ফিরে পান। আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক এমন একজন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা যিনি তার উপর অর্পিত কর্মকে ধর্মের ন্যায় পালন করে থাকেন। নেই কোন ক্লান্তি বা বিশ্রামের ভাবনা। তার চিন্তা ও চেতনায় শুধু মানুষের সেবা করা। জানা যায়, ২০২০ সালের ২২ মার্চ কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসাবে যোগদান করেন আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক। যোগদানের পড়েই বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কাজ ও মানবিক অফিসার হিসেবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার নাম ছড়িয়ে পরে। মানবিক বিভিন্ন কাজের জন্য খুব অল্প দিনের মধ্যেই জায়গা করে নেন সাধারণ মানুষের অন্তরে। উপজেলার সাধারন মানুষের মাধ্যমে জানা যায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক একজন সৎ, দক্ষ ও নিষ্ঠাবান ব্যাক্তি। যে কেউ তাদের সমস্যা নিয়ে তার কাছে গিয়ে অনায়াসেই সেবা গ্রহণ করতে পারে। এছাড়াও উপজেলার কেউ কোন দুঃস্থ ও অসহায় লোককে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সাহায্যের আবেদন জানালে ও তাকে অবহিত করলে তাৎক্ষণিক তিনি তার খোঁজ-খবর নিয়ে সর্বোচ্চ সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন। তার মাধ্যমে উপজেলার সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীরা তাদের অধিকার ফিরে পেয়েছে ও সরকারি সকল সাহায্য সহযোগিতা পাচ্ছে। রুবিনাকে দেখতে যদি তোমরা সবে চাও হোসেন পুরের ছোট্ট গায়ে যাও, এই শিরোনামে একটা পোস্ট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে নজরে আসলে কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সেখানে ছুটে গিয়ে তাদের খাদ্য, বিশুদ্ধ পানি ও একটি ঘরের ব্যবস্তা করে দেন। এছাড়াও বালুর ধুপে মানবেতর জীবনযাপন করছে শামসুন্নাহার এই শিরোনামে একটি নিউজ প্রকাশিত হলে তার ঘরের ব্যবস্তা করে দেন তিনি। ডালবুগঞ্জে ৮০ বছরের বৃদ্ধার জীবন সংগ্রাম তাকেও একটি ঘর উপহার দেন। ডালবুগঞ্জের মানসিক ভারসাম্যহীন মমতাজের ঘরের কাগজ পএ পাঠিয়েছেন কিছু দিনের মধ্যেই সে ঘর

পাবে, ডালবুগঞ্জের ৮ নং ওয়ার্ডের সালাম হাওলাদারের ঘর পুড়ে যায় সংবাদটি দেখা মাএ তাদেরকে কম্বল চাল সহ ত্রাণ পাঠিয়ে দেন ও ঘরের টিন সহ ঘর দেওয়ার আশ্বাস দেন মানবতার ফেরিওয়ালা ক্ষাত কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক। এছাড়া, কলাপাড়ায় মানসিক ভারসাম্যহীন এক বৃদ্ধার পায়ে পচন ধরলে স্থানীয় সংবাদকর্মীদের সহযোগিতায় তাকে কলাপাড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে তাকে বাঁচাতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করেন তিনি। কলাপাড়ায় দুটো কিডনি নস্ট হওয়া সোনিয়াকে নগদ অর্থ সহ ঘরের ব্যবস্থা করে দেন। মাথা বড় হয়ে যাওয়া এক বাচ্চাকে নগদ অর্থ দিয়ে সহযোগিতা করেন। কলাপাড়া সংবাদকর্মীদের মাধ্যমে অনেক মানুষের ঘর দেওয়া হতে অনেক ধরনের সহায়তা করেন কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। কুয়াকাটায় মানসিক ভারসাম্যহীনদের মাঝে খাবার বিতরণ সহ, অনেক ভালো কাজের মাধ্যমে তিনি মানবিক অফিসার হিসেবে উপজেলার সাধারন মানুষের মাঝে জায়গা করে নিয়েছেন । এই বিষয় কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক বলেন, রুবিনার বিষয়টি স্থানীয় সাংবাদিক মিলন কর্মকার রাজু আমাকে প্রথম জানায়। বিষয়টি আমাকে অত্যান্ত হতাশ করে। আমি তাদের ভালোভাবে থাকার ব্যবস্থা করার চেষ্টা করেছি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে মানবিক পোস্টগুলো আমার নজরে আসে সেগুলো আমি সাথে সাথে খোঁজ নিয়ে সমাধান করার চেষ্টা করি। মফস্বলে অনেক মানুষের খোঁজ আমার আজানা তাই মফস্বলের কোন তথ্য পেলেই সে বিষয়গুলো আমি গুরুত্ব সহকারে দেখি ও সমাধান করার চেষ্টা করি।

Previous articleকলাপাড়ায় স্বেচ্ছাসেবক লীগের মাস্ক বিতরণ
Next articleরায়পুরে গাছের ঢাল পড়ে শিশুর করুন মৃত্যু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।