অতুল পাল: একটি চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে বাউফলের সূর্যমনি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দায়ের করা চাঁদাবাজি মামলায় ওয়ারেন্ট হওয়ায় ইউনিয়ন পরিষদের স্বাভাবিক কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়েছে। এদিকে লকডাউনের কারণে আদালতের স্বাভাবিক কার্যক্রম বন্ধ থাকায় ওই চেয়ারম্যান হাজিরও হতে পারছেন না। এনিয়ে স্থানীয় জনগণের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে জেলা পুলিশ সুপারের কাছে দেয়া অভিযোগ তদন্তে মিথ্যা প্রমানিত হয়েছে। জানা গেছে, উপজেলার সূর্যমনি ইউনিয়নের ইন্দ্রকুল গ্রামের মৃত.হারুন অর রশিদের ছেলে মো. আনিচুর রহমানের ঘরে গত ১৬ মার্চ চুরির ঘটনা ঘটে। চুরির ঘটনায় নগদ টাকা এবং স্বর্ণালংকারসহ প্রায় নয় লাখ টাকার মালামাল খোঁয়া যায়। গত ২৬ মার্চ স্থানীয় ইউপি মেম্বার মো. শাহাবুদ্দিন হাওলাদার এবং সন্দেহভাজন চোর একই বাড়ির ফয়সাল হোসেন মিঠুর বাবা আবদুল মান্নানসহ মিঠুর অন্যান্য অভিভাবক ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিরা সালিশ বৈঠক করে মিঠুনকে চোর হিসেবে চিহ্নিত করেন এবং এক সপ্তাহের মধ্যে মালামাল ফেরৎ দেয়ার সিদ্ধান্ত দেন। যথা সময়ে মালামাল ফেরৎ না পাওয়ায় মিঠুর চাচি হামিদা বেগমের সাথে আনিচুর রহমানের কথা কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে মিঠুনের চাচি মোসা. হামদিা বেগম চেয়ারম্যান, তার ভাই এবং ছেলেসহ অন্যান্যরা তার কাছে চাঁদা দাবি করেছে মর্মে অভিযোগ এনে জেলা পুলিশ সুপারের কাছে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। একই ধরণের অভিযোগ এনে মিঠুন এবং তার এক আত্মীয় বাদি হয়ে গত ৪ এপ্রিল পটুয়াখালী সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দ্বিতীয় আমলী আদালতে চেয়ারম্যানসহ আট জনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা করেন। মামলা নং যথাক্রমে সিআর-১৪১/২১ এবং সিআর-১৪২/২১। আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মো. আমিনুল ইসলাম ১৪১ নং মামলার আসামিদের বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট জারি করেন এবং ১৪২ নং মামলাটি তদন্তের জন্য পটুয়াখালী র‌্যাব-৮ এর কাছে দায়িত্ব দেন। এরপর থেকে সূর্যমনি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বাচ্চু গা ঠাকা দিয়ে রয়েছেন। ফলে ইউনিয়ন পরিষদের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে। চেয়ারম্যানের নিকটাত্মীয়রা জানান, লকডাউনের কারণে চেয়ারম্যানসহ অন্যান্যরা আদালতে হাজিরা দিতে পারছেন না। এদিকে জেলা পুলিশ সুপারের কাছে মোসা. হামিদা বেগমের করা চাঁদাবাজির অভিযোগ নিয়ে বাউফল থানা পুলিশ তদন্ত করে পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট দিয়েছেন। ওই রিপোর্টে মোসা. হামিদা বেগমের অভিযোগ মিথ্যা বলে জানানো হয়। জানা গেছে, মোসা. হামিদা বেগম আদালতে দায়ের করা চাঁদাবাজি মামলার স্বাক্ষী হিসেবেও রয়েছেন। সূর্যমনি ইউনিয়ন পরিষদের ৪,৫,ও ৬ নং সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডের সদস্য মোসা. শাহিনুর বেগম জানান, চুরি যাওয়া মালামাল ফেরৎ না দিয়ে উল্টো চেয়ারম্যানকে জড়িয়ে মামলা করায় আমরা হতভম্ব। এখন চেয়ারম্যান অনুপস্থিত থাকায় জনগণ ভোগান্তির মধ্যে পড়েছেন।

Previous articleউল্লাপাড়ায় শুরু হয়েছে ইরি ধান কাটা
Next articleবাউফলে জমি নিয়ে বিরোধ: দাদি-নাতিনকে পিটিয়ে জখম
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।