সাহারুল হক সাচ্চু: উল্লাপাড়া সরকারী সড়ক বলতে আছে কাঁচা হালট পথ। আবাদী মাঠের জমি সমান পথই বেশী অংশ । পরিচিতি রয়েছে গ্রামের উত্তরপাড়া নামে। বসবাস করছে প্রায় আশি পরিবার। এদের চলাচলে বেশী দুর্ভোগ পোহাতে হয় বর্ষাকালে । সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ার নাগরৌহা গ্রামের উত্তরপাড়ায় উচু সড়ক পথ না থাকা আর প্রায় দেড় কোটি টাকার ব্রীজটি বেয়ে যানবাহন নিয়ে সরাসরি চলতে না পারাই যতো দুর্ভোগ আর ভোগান্তি বসতিদের । গড়ে উঠেনি সহজ চলাচল ব্যবস্থা। আন্তঃইউনিয়ন সড়ক যোগাযোগ সফলতা আসেনি। উল্লাপাড়া উপজেলার সদর উল্লাপাড়া ইউনিয়নের নাগরৌহা গ্রামের উত্তরপাড়ার বসতি পরিবারের বেশীজনই কৃষি আর দিন আয়ের বিভিন্ন পেশায় জড়িত।এদের বসবাস খন্ড খন্ড পাড়ায়। এখানকার বসতিদের অনেকেই দিন আয়ের কাজে বাড়ী ছেড়ে শহরসহ বিভিন্ন এলাকায় যান। উত্তরপাড়ায় সড়ক বলতে প্রায় আধা কিলোমিটার দীর্ঘ একটি মূল হালট পথ আছে। আবাদী মাঠের মাঝ দিয়ে পথটি বয়ে গেছে। আবার মূল পথ থেকে প্রায় আড়াইশ মিটার আরো একটি হালট পথ রয়েছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে হালট পথের বেশী অংশ জমি সমান। বর্ষাকালে হালট পথের বেশী অংশ পানিতে তলিয়ে যায়। এছাড়া বৃষ্টি হলেও কাদা জমে থাকে । এতে বসতিদেরকে বেশদুুর্ভোগ আর ভোগান্তিতে চলাচল করতে হয় বলে জানানো হয়। এদিকে নাগরৌহার উত্তরপাড়ার এ পথ হয়ে আন্তঃইউনিয়ন ইউনিয়ন যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়তে বিগত ২০১০ সালে নাগরৌহার কচুয়া নীর উপর প্রায় দেড় কোটি টাকা ব্যয়ে এলজিইডি থেকে প্রায় ৩৬ মিটার দীর্ঘ একটি ব্রীজ নির্মাণ করা হয়েছে । ব্রীজটি হয়ে উত্তরপাড়ায় আসা যাওয়া করতে হয়। জানা গেছে নাগরৌহার উত্তরপাড়া হয়ে সরাসরি উল্লাপাড়া ও পূর্ণিমাগাঁতী ইউনিয়নের মধ্যে আন্তঃইউনিয়ন দ্রুত ও সহজ যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়তে ব্রীজটি নির্মাণ করা হয় । ব্রীজটির এক পাশের মুখ থেকে মাত্র প্রায় আড়াইশ ফুট সরকারী সড়ক পথ না থাকায় সে যোগাযোগ ব্যবস্থা আর ১১ বছরেও গড়ে উঠেনি । উত্তরপাড়ার বসতি অনেকের মধ্যে বেল্লাল হোসেন , মিণ্টু মিয়া, সোহরাব হোসেন , নুরুন্নবীর কথায় তারা যোগাযোগ ব্যবস্থায় একেবারে অবহেলিত অবস্থায় আছে। এক থেকে দেড় যুগ আগে হালট পথের একেবারে নীচু অংশের দ্#ু৩৯;একজায়গায় সরকারী টাকায় মাটি ফেলা ছাড়া কিছুই করা হয়নি। উত্তরপাড়ার বসতিরা চাইছেন হালট পথ মাটি ফেলে উচু করা এবং এ পথ হয়ে আন্তঃইউনিয়ন সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলা। এতে চলাচলে তাদের দুর্ভোগ আর ভোগান্তির অবসান হবে। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার ইঞ্জিনিয়ার মাহবুবুর রহমান ভুইয়া বলেন, তার বিভাগ থেকে সড়কটি মাটি ফেলে উচু করার উদ্যোগ নেওয়া হবে। উপজেলা প্রকৌশলী মাঈন উদ্দিন বলেন, ব্রীজটির মুখ থেকে আড়াইশ ফুট সরকারী সড়ক না থাকায় আন্তঃইউনিয়ন সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়া যায়নি। ব্রীজটির মুখ থেকে নদী পাড় হয়ে সড়ক নির্মাণ বিষয়টি সরেজমিনে দেখা হয়েছে । বিভিন্ন সমস্যায় সে সড়ক নির্মাণ করা যাচ্ছে না । ব্রীজটির মুখ থেকে সোজাসুজি সড়ক পথের জন্য জায়গা দেয়া হলে তার বিভাগ থেকে হালট পথ হয়ে আন্তঃইউনিয়ন যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়তে জোরালো উদ্যোগ নেওয়া হবে। প্রয়োজন মোতাবেক হালট পথ মাটি ফেলে উচু সড়ক করা হবে।

Previous articleপ্রজনন মৌসুমে মা মাছ নিধনের প্রস্তুতি
Next articleচান্দিনায় জোর পূর্বক ধান কাটা নিয়ে সংঘর্ষ, আহত ৪
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।