স্বপন কুমার কুন্ডু: সরকারের স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার বিধানকে ড্যামকেয়ার করে ঈশ্বরদীর ব্যাংকগুলোতে গাদাগাদি ভীড় জমিয়েছেন গ্রাহকরা। সপ্তাহের ও মাসের প্রথমদিনে ঈশ্বরদীর ব্যাংকগুলো ঘুরে এই চিত্র দেখা যাচ্ছে।
শুক্র ও শনিবারের সাপ্তাহিক ছুটি কাটিয়ে মাসের প্রথমে রবিবার (২ মে) ব্যাংকের প্রথম কর্মদিবস শুরু হয়। ব্যাংক খোলার আগে থেকেই গ্রাহকরা ব্যাংকের সামনে জমিয়েছেন ভীড়। ব্যাংকের ভেতরে ও বাইরে গাদাগাদি-ঠাসাঠাসি করে গ্রাহকদের অপেক্ষা করতে দেখা যায়।
মাসের হওয়ায অনেকেই এসেছেন বেতন তুলতে। আবার ডিপিএসের টাকা জমা দেওয়ার জন্যও অনেকে এসেছেন। আগামী ১০ এপ্রিল এই অবস্থা ঈশ্বরদীর ব্যাংকগুলোতে বিরাজ করবে বলে জনৈক ব্যাংক কর্মকর্তা জানিয়েছেন।
রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের বিভিন্ন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানে প্রায় ৩০ হাজার শ্রমিক বর্তমানে কর্মরত রয়েছে। এছাড়া ইপিজেডে, প্রাণ কোম্পানীসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে প্রায় ২০ হাজার শ্রমিক-কর্মচারী কাজ করছেন। এসব প্রতিষ্ঠানের বেতন ব্যাংকের মাধ্যমে পরিশোধ হয়।
মাসের প্রথম দিকে বেতন তোলার জন্য সবসময়ই ব্যাংকগুলোতে ভীড় জমে থাকে। নাম প্রকাশ না করে ব্যাংকে অপেক্ষামান শ্রমিক-কর্মচারীরা জানান, টাকার প্রয়োজনই স্বাস্থ্য বিধি মানা সম্ভব হচ্ছে না।
এরই মধ্যে স্কুল-কলেজসহ সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরতদের বেতনের সাথে বোনাস দেয়া হয়েছে। বোনাস তুলে ঈদের কেনাকাটার জন্য অনেকে এসেছেন ব্যাংকে টাকা তুলতে।
সবমিলিয়ে অন্যান্য বছরের মতো এসময়ে ব্যাংকে এমনিতেই চাপ থাকে বেশী। কিন্তু এবারে করোনার কারণে পরিস্থিতি ভিন্ন হলেও টাকা-পয়সার প্রয়োজনে গ্রাহকরা স্বাস্থ্য বিধির তোয়াক্কা না করে ড্যামকেয়ার ভাবেই ব্যাংকে ভীড় করছেন।

Previous articleডিমলায় ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু
Next articleতাহিরপুরে মাছের প্রজনন মৌসুমে মা মাছ রক্ষায় উপজেলা প্রশাসনের মাইকিং
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।