বাংলাদেশ প্রতিবেদক: হিলি-পানামা বন্দর দিয়ে করোনা সনদ ছাড়াই বন্দরে ঢুকছেন ভারতীয় ট্রাক চালক ও সহকারীরা। তবে ভয়াবহ ভারতীয় করোনার ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে কাজ করছে বলে জানিয়েছে বন্দর কর্তৃপক্ষ।

এদিকে ভারতে করোনা সংক্রমণে ঊর্ধ্বগতির কারণে বেনাপোল স্থলবন্দরে কমেছে আমদানি রপ্তানি কার্যক্রম। গত ১ মাসে বন্দরে শুল্ক আদায় কমেছে ১৩০ কোটি টাকা।

ভারত থেকে হিলি পানামা স্থলবন্দরে পণ্যবাহী ট্রাক প্রবেশ করলেই পুরো ট্রাকে করা হচ্ছে জীবানুনাশক স্প্রে, মাপা হচ্ছে তাপমাত্রা। আমদানি-রপ্তানি স্বাভাবিক রাখতে স্বাস্থ্যবিধির ব্যাপারে প্রয়োজনীয় এসব পদক্ষেপ নিয়েছে হিলি পানামা কর্তৃপক্ষ।

তবে, করোনা সনদ ছাড়াই বন্দরে প্রবেশ করছে ট্রাক চালক ও সহকারীরা। মাস্ক ছাড়া ভারতীয় ট্রাক চালকদের অবাধে চলাচল করায় আতংক বিরাজ করছে বন্দরের ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদের মাঝে।

এদিকে, করোনার প্রভাবে দেশের সর্ববৃহৎ বেনাপোল স্থলবন্দরে আমদানি-রফতানি বাণিজ্য ও বন্দর থেকে পণ্য খালাস কমে যাওয়ায় রাজস্ব আয় কমে এসেছে। গত মার্চ মাসে আমদানি পণ্য থেকে সরকারের রাজস্ব আয় হয়েছে ৬শ’ কোটি টাকা। যা এপ্রিলে এসে দাড়িয়েছে ৪৭০ কোটি টাকা।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন বলেন, করোনায় ব্যাংকিং সময় কমসহ নানা প্রতিবন্ধকতায় বিরূপ পড়েছে রাজস্ব আয় ও বাণিজ্যে। রাজস্ব আয়ের স্বার্থে ব্যাংক ব্যবস্থা যেটা ১০ থেকে ১২টা পর্যন্ত চালু আছে সেটা কমপক্ষে ৩টা পর্যন্ত চালু রাখা প্রয়োজন।

প্রতিবছর এ বন্দর দিয়ে প্রতিবেশী দেশ ভারতের সাথে প্রায় ৪০ হাজার কোটি টাকার আমদানি ও ৮ হাজার কোটি টাকার রফতানি বাণিজ্য হয়ে থাকে। আমদানি পণ্য থেকে সরকারের রাজস্ব আসে ৫ হাজার কোটি টাকা।

Previous articleবুধবার মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেবেন মমতা
Next articleরায়পুরে দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স নির্মাণ কাজ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।