তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলেছে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ কাজ। ২ কোটি ১৪ হাজার ৮শ’ ৮৭ কোটি টাকা ব্যয়ে কাজটি বাস্তবায়ন করছে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ (এলজিইডি)। চলতি বছরের ৪ ফেব্রুয়ারি শুরু হওয়া কাজটি আগামী ৩০ জুনের মধ্যে বুঝিয়ে দেওয়ার কথা রয়েছে। এলজিইডির রায়পুর উপজেলা অফিস সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। তবে এ পর্যন্ত কাজের যে অগ্রগতি তাতে এ সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করাটা অনিশ্চিত পর্যায়ে রয়েছে। অপরদিকে ভবনটির প্রবেশমুখ পূর্ব দিকে না হয়ে পশ্চিম দিকে হওয়া নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া মুক্তিযোদ্ধাদের। এক কোটি ৩৮ লক্ষ টাকা দিয়ে মন্ত্রণালয়ের ক্রয়কৃত ৮ শতাংশ জমিতে চলছে এ নির্মাণ কাজ। জমিটি উত্তর দক্ষিণে ৭০ ফুট লম্বা ও পূর্ব পশ্চিমে ৫০ ফুট পাশ বা প্রস্থ। রায়পুর-লক্ষ্মীপুর-ঢাকা মহাসড়কের পাশে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সংলগ্ন সড়ের পশ্চিম পাশে ৩ তলা বিশিষ্ট ভবনটির নির্মাণ কাজ চলছে। কাজটি করছেন লক্ষ্মীপুরের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান রিসায়াত এন্ড ব্রাদার্স। ইতোমধ্যে বেজ ঢালাই করে মূল স্থাপনার জন্য কলাম করা হয়েছে। কাজটি তদারক করছেন রায়পুর উপজেলা প্রকৌশল অফিস। কাজটি বুঝিয়ে দেওয়ার সময় স্বল্পতার কারণে দ্রুত গতিতে সকাল থেকে সন্ধ্যা অবধি কাজ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ঠিকাদারের লোকজন। তবে এ সময়ের মধ্যে কাজটি পুরোপুরি শেষ করা সম্ভব না হওয়ার সম্ভাবনা বেশি বলে তাদের দাবি। এক্ষেত্রে সময় বৃদ্ধির আবেদন করার পরিকল্পনা তাদের। দেনায়েতপুর গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল হালিম বলেন, বাড়ির পাশে এতোবড় একটি প্রকল্প হচ্ছে কিন্তু আমরা কিছুই জানি না। আমরা ভেবেছিলাম এটি কোনো ব্যক্তি নিজের জন্য বাসভবন বানাচ্ছেন। মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য প্রকল্পটি করা হলেও এখানে কোনো নাম ফলক বা প্রকল্পের পরিচিতি সাইনবোর্ড নেই। একটি সাইনবোর্ড থাকলে লোকজনও সরকারের উদ্যোগের কথা জানতে পারতো। মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, এক হাজার দু’শ তেইশ কোটি চুয়ান্ন লক্ষ টাকা ব্যয়ে দেশের ৬৪টি জেলার ৪শ’ ৭০টি উপজেলায় এ ধরণের কমপ্লেক্স নির্মাণ চলছে। ইতোমধ্যে ৩শ’ ৮৩টি ভবন নির্মাণ শেষ হয়েছে। এখন রায়পুরসহ ৪০টি উপজেলায় নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে তুলে ধরে সকলকে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধকরণ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কার্যক্রম অধিকতর সুষ্ঠু ও সুচারুরূপে সম্পন্ন করার জন্য ভৌত সুবিধাদি বৃদ্ধির মাধ্যমে প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়ন সাধন, দীর্ঘমেয়াদী কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টির মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁদের সন্তান-সন্তুতিগণের আর্থ-সামাজিক কল্যাণ সাধন এবং ভবনের অর্জিত আয় থেকে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের দৈনন্দিন ব্যয় নির্বাহ, নির্মিত ভবনের রক্ষণাবেক্ষণ এবং ভবিষ্যতের জন্য সঞ্চয় সৃষ্টি করাই প্রকল্পটির উদ্দেশ্য। রায়পুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা নিজাম উদ্দিন পাঠান বলেন, আমরা ভবনটি নিয়ে খুশি নই। আমরা প্রধান সড়কের দিকে পূর্বমুখী ভবন চেয়েছিলাম। কিন্তু ভবন করার পূর্বে আমাদের সাথে কোনো আলোচনা করা হয়নি। কাজ শুরুর পর আমাদেরকে বলা হয়েছে। ভবনের পূর্বে খালি জায়গা রেখে একজনের বাড়ির রাস্তামুখী করে ভবনটি করা হয়েছে। ভবিষ্যতে ওই বাড়ির

লোকজন সড়কের পাশে স্থাপনা তৈরি করলে ভবনটির সৌন্দর্য নষ্ট হবে। এমনকি তারা তাদের বাড়ির রাস্তা বন্ধ করে দিলে আমাদের কিছুই করার থাকবে না। এলজিইডির রায়পুর উপজেলা সহকারী প্রকৌশলী তাজুল ইসলাম বলেন, কাজটি যথাযথভাবে তদারকি করা হচ্ছে। প্রকল্পের একটি সাইনবোর্ড লাগনোর জন্য ঠিকাদারকে আজই নির্দেশনা প্রদান করা হবে। সময়ের মধ্যে কাজটি না হলে কর্তৃপক্ষ সময় বিবেচনা করতে পারেন। নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য সচিব রায়পুর উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) মোঃ হারুনুর রশিদ বলেন, শহরে জমি পাওয়া কঠিন কাজ। বহু চেষ্টা-তদবির করে এ জমিটি পাওয়া গেছে। প্রবেশমুখ কোনো নির্দিষ্ট দিকে দেওয়া না দেওয়া আমাদের কারো ইচ্ছা-অনিচ্ছার বিষয় নয়। মন্ত্রণালয়ের ড্রইং অনুযায়ী কাজটি সম্পন্ন করতে পূর্ব-পশ্চিমের চাইতে উত্তর-দক্ষিণে লম্বা ২০ ফুট বেশি হওয়ায় প্রবেশমুখ দক্ষিণমুখী করা হয়েছে।

Previous articleকরোনা সনদ ছাড়া দেশে ঢুকছে ভারতীয় ট্রাক
Next articleযশোর ও বেনাপোল ২৯টি হোটেল এখন কোয়ারেন্টাইন সেন্টার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।