হোসেন আজাদ রায়পুর: লক্ষ্মীপুরের রায়পুর পৌরসভার নব নির্বাচিত মেয়র গিয়াস উদ্দিন রুবেল ভাট নির্বাচিত হওয়ার দুই মাস পরেও শপথ নিতে পারেননি। ২৮ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে ৮ হাজার ৪শ’ ২ ভোট পেয়ে বিএনপির ধানের শীষের প্রার্থীকে পরাজিত করে বিজয়ী হন তিনি। একই অবস্থা নির্বাচিত ৯ পুরুষ ও ৩ নারী কাউন্সিলরের। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নির্বাচন কমিশনের একটি সূত্র জানায়, নির্বাচনে অনিয়মের বিষয়ে সংবাদপত্রে প্রকাশিত প্রতিবেদন ও কয়েকজনের লিখিত অভিযোগের কারণে তদন্ত কার্যক্রম চলমান থাকায় গেজেট নোটিফিকেশন হয়নি। কমিশন সচিবালয়ের উপ-সচিব (সংস্থাপন) মোহাম্মদ এনামুল হক ও সহকারী সচিব (জনবল ব্যবস্থাপনা-১) মোঃ শহীদুর রহমান ২১-২২মার্চ দু’দিন সরেজমিন রায়পুরে এসে তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনায় গণশুনানি করেন। শুনানির এক মাস ১০ দিন পেরিয়ে গেলেও এখনো দৃশ্যমান কোনো সিদ্ধান্ত দেওয়া হয়নি। তদন্ত প্রতিবেদনের এ দীর্ঘসূত্রিতায় হতাশা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন নির্বাচিত অধিকাংশ জনপ্রতিনিধি ও তাদের সমর্থকরা। ওই নির্বাচনে মেয়র ছাড়াও কাউন্সিলর হিসেবে নতুন নির্বাচিত হয়েছেন আবুল নাছের বাবু, মাহবুবুর রহমান রিজভি, ইউসুফ আলী, আনোয়ার হোসেন বাহার, মেহেদী হাসান শিশির, আবুল হোসেন ও রুবেল প্রধানীয়া। পুরাতনদের মধ্যে নির্বাচিত হন জাকির হোসেন নোমান, আইনুল কবির মনির ভূঁইয়া, নাজমে আরা মণি, শামছুন্নাহার লিলি, ফেরদৌসী বেগম স্বপ্না। নতুনরা শপথ নিতে না পারায় বরাদ্ধ ও সহায়তা কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করতে পারছেন না। তবে পুনরায় নির্বাচিতরা পরিষদের পূর্বের সদস্য হিসেবে কার্যক্রমে সরব রয়েছেন। কমিশনে লিখিত অভিযোগকারী পৌরসভা নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মাসুদ উদ্দিন, কাউন্সিলর প্রার্থী পীরজাদা মানিক ও শফিউল আজম চৌধুরী জুয়েল বলেন, সাক্ষ্য-প্রমাণসহ ২৮ ফেব্রুয়ারি ভোট গ্রহণে অনিয়মের বিষয়গুলো তারা কমিশনের নিকট লিখিতভাবে জানিয়েছেন। তদন্তকালেও কমিটি এর অনেক সত্যতা পেয়েছেন। তারা ন্যায় বিচার পাবেন বলে প্রত্যাশা করেন। নতুন কাউন্সিলর আবু নাছের বাবু, মাহবুবুর রহমান রিজভী, ইউছুফ আলী, আনোয়ার হোসেন বাহারের সঙ্গে আলাপ করলে তারা বলেন, শপথের দেরী হওয়াতে আমরা হতাশ। ব্যক্তিগতভাবে জনগণের পাশে থাকতে পারলেও সরকারি বরাদ্ধে আমাদের কোনো অংশগ্রহণ নেই। এ দূর্ভোগের মাঝেও জনগণকে দেওয়া প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন করতে না পারাটা দু:খজনক। নব নির্বাচিত মেয়র গিয়াস উদ্দিন রুবেল ভাট বলেন, অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই শান্তিপূর্ণ নির্বাচনে আমি নৌকা প্রতীকে বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়েছি। প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থী ধানের শীষের এবিএম জিলানীও দিনভর নির্বাচনে জিতবেন বলে মিডিয়ায় বক্তব্য দিয়েছেন। তাঁরা কোথাও কোনো অভিযোগ করেননি। নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেনি। অথচ একটি মাত্র পত্রিকার নিউজকে কেন্দ্র করে তদন্তের নামে আমাদের গেজেট ও শপথ আটকে রাখা হয়েছে। উন্নয়নকে বাধাগ্রস্থ করতে এটা পরিকল্পিতভাবে করানো হচ্ছে। তদন্তে আমাদের কথার সত্যতা বেরিয়ে আসবে। ইনশাআল্লাহ সহসা আঁধার কেটে যাবে, আলো আসবে।

বর্তমান মেয়র ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী ইসমাইল খোকন বলেন, শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন হয়েছে। শপথ ও গেজেট বিলম্বিত হওয়া দু:খজনক। নতুন মেয়রের কাছে দায়িত্ব হস্তান্তরের জন্য আমাদের সকল ধরণের প্রস্তুতি রয়েছে। শপথ না হলেও নব নির্বাচিত মেয়রের সঙ্গে আমাদের চমৎকার সমন্বয় রয়েছে। সকলের সহযোগিতায় উন্নয়ন কর্মকান্ড চলমান রয়েছে। রায়পুর উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও পৌরসভা নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং অফিসার দীপক বিশ্বাস বলেন, গেজেট প্রকাশের সকল নিয়মকানুন মেনে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নির্বাচন কমিশনে প্রেরণ করা হয়েছে। কী কারণে গেজেট বা শপথ হচ্ছে না এ ধরণের সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য আমাদের কাছে নেই। এটির সঠিক কারণ নির্বাচন কমিশন বা কমিশন সচিবালয় নিশ্চিত করতে পারবেন।

Previous articleউৎপাদন খরচ কম ও লাভজনক হওয়ায় বাদাম চাষে ঝুকছে কৃষকরা
Next articleউল্লাপাড়ায় গোপন বৈঠক থেকে জামাত শিবিরের ৮ নেতাকর্মী গ্রেফতার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।