বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুলাদীতে ঘর সংলগ্ন জমি থেকে মাটি কাটতে বাধা দেওয়ায় একজনকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে প্রতিপক্ষরা। সোমবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলার মুলাদী সদর ইউনিয়নের বড়পাতারচর গ্রামের হাফিজ হাওলাদার ও তার লোকজন একই বাড়ির ফরিদ হাওলাদারের ছেলে জহিরকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা চালায়। জহিরের চাচা কবির হাওলাদার জানান জমিজমা নিয়ে হাফিজ হাওলাদারের সাথে তাদের পূর্ব থেকেই বিরোধ চলে আসছিলো। সোমবার বেলা ১১টার দিকে হাফিজ ও তার লোকজন জহির হাওলাদারের ঘর সংলগ্ন জমি থেকে ভেকু দিয়ে মাটি কাটা শুরু করে। ভবন হেলিয়া পড়ার আশঙ্কায় জহির হাওলাদার তাদের মাটি কাটতে নিষেধ করলে তারা ক্ষিপ্ত হয়। পরে হাফিজ, তার ভাই হাসিব, হামিদ ও হান্নান হাওলাদারসহ ৮/৯জন রামদা, ড্যাগার, লোহার রড নিয়ে জহিরের ওপর হামলা চালায়। হামলাকারীরা জহির হাওলাদারের ঘাড়, পেট ও পিঠে এলোপাথারি কুপিয়ে ও পিটিয়ে মারাতœক জখম করে। তার ডাকচিৎকারে বোন নাসরিন ছুটে গেলে হামলাকারীরা তাকেও পিটিয়ে আহত করে এবং তার গলায় থাকা স্বর্ণালংকার ছিনিয়ে নেয়। পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে মুলাদী হাসপাতালে নিয়ে আসলে চিকিৎসক জহিরকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরণ করেন। এঘটনায় জহিরের চাচা কবির হাওলাদার বাদী হয়ে হাফিজসহ ৯জনকে আসামী করে মুলাদী থানায় মামলা দায়ের করেছেন। এব্যাপারে মুলাদী থানার অফিসার ইনচার্জ এস এম মাকসুদুর রহমান জানান অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তপূর্বক আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Previous articleদিহানের মেডিকেল কলেজে ভর্তির দায়িত্ব নিলেন রংপুরের জেলা প্রশাসক
Next articleশাহজাদপুরে দুই হাজার দুস্থ ও কর্মহীনদের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ করলেন এমপি স্বপন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।