বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুলাদীতে বিলুপ্ত হতে চলছে ভাসমান পদ্ধতিতে খাঁচায় মাছ চাষ। ২০১১ সালে সফলতা দিয়ে শুরু হলেও পর্যায়ক্রমে চাষিরা মাছ চাষ ছেড়ে অন্য পেশায় যুক্ত হয়েছেন।

শ্রমিকের মজুরি বৃদ্ধি, মৎস্য খাদ্যের দাম বৃদ্ধি, সরকারি সহযোগিতার অভাবসহ বিভিন্ন সমস্যার কারণে উপজেলার মাছ চাষিরা খাঁচায় মাছ চাষের প্রতি আগ্রহ হারিয়েছেন। জানাগেছে, ২০১১ সালে মুলাদী উপজেলার কাজিরচর ইউনিয়নের চরকমিশনার গ্রামের বাবুল খান বিদেশ থেকে ফেরত এসে রংপুর মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটে প্রশিক্ষণ নেন। প্রশিক্ষণ শেষে তিনি উপজেলার আড়িয়ালখাঁ নদীতে ভাসমান পদ্ধতিতে খাঁচায় মাছ চাষ শুরু করেন। ছয় মাসের মধ্যে তিনি একজন সফল মাছ চাষী হয়ে ওঠেন। প্রায় ১১ বছর আগে শুরু হওয়ায় সম্ভাবনাময় মাছ চাষ ক্রমান্বয়ে কমে বর্তমানে মাত্র ১জন খাঁচায় মাছ চাষ করছেন। তাঁর খাঁচার সংখ্যাও ১টি। পাঁচ বছর আগে উপজেলার ১২৩ জন মৎস্য চাষির খাঁচা ছিলো ৮৫০টি। এমনকি মুলাদীতে ভাসমান পদ্ধতিতে মাছ চাষের উদ্যোক্তা বাবুল খানও খাঁচায় মাছ চাষ বন্ধ করে দিয়েছেন। উপজেলার বর্তমান ভাসমান পদ্ধতির একমাত্র মাছ চাষি ডিক্রীরচর বাধঘাট এলাকার কাওসার প্যাদা জানান, তিনি ২০১১ সাল থেকে ভাসমান পদ্ধতিতে মাছ চাষ করছেন। নানান প্রতিকূলতার মধ্য দিয়েও তিনি এই পদ্ধতি মাছ চাষ করছেন। ২/৩ বছর আগে তার খাঁচার সংখ্যা ছিল প্রায় ৮টি। খাদ্যের দাম ও শ্রমিকের মজুরি বৃদ্ধির ফলে লোকসান গুনে কুলিয়ে উঠতে না পারায় এখন ১টি খাঁচায় মাছ চাষ করছেন। মৎস্য খাদ্যের দাম না কমলে এবং সরকারি সহায়তা না পেলে তিনিও খাঁচায় মাছ চাষ ছেড়ে দেবেন বলে জানান। উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা সুব্রত গোস্বামী বলেন, ভাসমান পদ্ধতিতে মাছ চাষিদের পরামর্শ দেয়া ছাড়া আর কিছু করার নেই। এ খাতে সরকারের কোনো আর্থিক বরাদ্দ নেই। তবে পরবর্তীতে জেলেদের জন্য কোনো বরাদ্দ এলে ভাসমান মাছ চাষিদের সহযোগিতা করা হবে।

Previous articleতাহিরপুরে ২শত জনের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর উপহার খাদ্যসামগ্রী বিতরণ
Next articleপুত্রবধূ হত্যার অভিযোগে মায়ের মামলায় ছেলে গ্রেফতার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।