অতুল পাল: করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকার ঘোষিত “কঠোর লকডাউনের বিধিনিষেধ” মানা হচ্ছে না বাউফলের বিভিন্ন হাটবাজারগুলোতে। সরেজমিন দেখা গেছে, হাট-বাজারগুলোতে চলছে চোর-পুলিশ খেলা।

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী আসলে দোকান বন্ধ! চলে গেলে খোলা! মাস্কবিহীন শত শত মানুষ হাটবাজারে ঘোরাঘুরি করছে। ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা করা এবং পুলিশের চেকপোষ্ট বসানো হলেও রোধ করা যাচ্ছেনা মানুষসহ যানবাহন চলাচলের। জানা গেছে, বাউফলে তালিকাভূক্ত ৪৪টি হাট বাজার রয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন ইউনিয়নের গ্রামীণ সড়কের পাশে গড়ে উঠেছে প্রায় অর্ধ শতাধিক হাট-বাজার। ওই সকল হাট-বাজারগুলোতে মোটেই স্বাস্থ্য বিধি মানা হচ্ছে না। আগের মতোই সব্জি ও মাছের দোকানগুলো গাদাগাদি করে বসায় ক্রেতারা ভীর করে কেনাকাটা করছেন। ক্রেতাদের অনেকের মুখেই মাস্ক নেই। কিছু লোকের মাস্ক থাকলেও সেটা পকেটে ভরে রাখা হয়েছে। চায়ের দোকানের আড়ালে কিছু মুদি মালামাল তুলে দোকানীরা দোকান খোলা রাখছে। বাজারগুলোতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী যতক্ষণ অবস্থান করেন ততক্ষণ কিছু দোকান বন্ধ থাকে। চলে গেলেই আবার খুলে বেচাকেনা শুরু হয়। এযেন চোর-পুলিশের খেলা। আজ মঙ্গলবার সকালে কালাইয়া বন্দর ও বাউফল পৌর শহরের সব্জি বাজারে গিয়ে দেখা যায়, লকডাউন ঘোষণার আগে যেভাবে ছিল এখনো সেভাবেই রয়েছে। অথচ বিধিনিষেধ অনুযায়ি খোলা মাঠে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে দাকান খুলে বেচাকেনার নিয়ম রয়েছে। মো. নাছির উদ্দিন হেলালী নামের এক ব্যক্তি কালাইয়া বাজারে সব্জি কওয় করতে এসে বলেন, বাউফলে কঠোর ভাবে লকডাউন পালিত হচ্ছে অথচ কাঁচাবাজার ও মাছ বাজারে স্বাস্থবিধি মানা হচ্ছে না। কোন প্রকার মনিটরিংও নেই। শাহ আলম নামের এক সবজি বিক্রেতা বলেন, দোকানের সামনে কোন প্রকার ভীর যাতে না হয় সে দিকে লক্ষ্য করেই আমরা বেচাকেনা করছি। এদিকে করোনা সংক্রমণ রোধে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের বৃহত্তম দেশী গরু মহিষের বাজার বাউফলের কালাইয়া বন্দরের পশুর হাট বন্ধ করে দিয়েছেন প্রশাসন। প্রতি বছর কোরবানীর আগে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে পাইকাররা দেশী গরু, ছাগল ও মহিষ কিনতে এই বাজারে আসতেন। পশু বাজার বন্ধ করে দেয়ায় পাইকাররা আসছেন না। এরফলে হাজার হাজার গরু-ছাগল ও মহিষ বিক্রেতারা বিপদে পড়েছেন। কালাইয়া ইউপি চেয়ারম্যান এস.এম. ফয়সাল আহমেদ জানান, পশুর হাট বন্ধ হয়ে যাওয়ায় শত শত গৃহস্থ পশু বিক্রি করতে না পড়ায় তাদের ক্ষতি হয়েছে। অপরদিকে দেখা গেছে, সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউন মেনে চলার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাকির হোসেন ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) আনচিুর রহমান বালির নেতৃত্বে দুটি ভ্রাম্যমাণ আদালতের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। প্রধান প্রধান সড়কে পুলিশের চেষ্টপোষ্ট বসানো হয়েছে। সেনাবাহিনীর টহলও অব্যহত রয়েছে। বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পণা কর্মকর্তা ডা. প্রশান্ত কুমার সাহা জানান, বাউফলে মঙ্গলবার বেলা ১২ টা পর্যন্ত ৩৪ জন করোনার রোগি রয়েছে। এরমধ্যে একজনকে বরিশাল শের-ই- বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। ৬ জন হাসপতালের আইসোলেশনে রয়েছে। বাকি রোগিরা বাড়িতে বসে চিকিৎসা নিচ্ছে। এপর্যন্ত ১ হাজার ৭৩১ জনের নমূণা পরীক্ষায় ২৪৯ জন সনাক্ত হয়েছেন। কালাইয়া কর্পূরকাঠী ইসলামিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তুষার কান্তি ঘোষ জানান, মানুষকে ঘরে রাখতে প্রতিনিয়িত মাইকিং করাসহ প্রশাসনকে আরো কঠোর হওয়া দরকার। অন্যথায় করোনার এই ঢেউ প্রতিরোধ করা কঠিন হয়ে যাবে। একই মন্তব্য করেছেন বাউফলের সচেতন মহল।

Previous articleতাহিরপুর সীমান্তে ভারতীয় মদ ও নাসির বিড়ির চালান আটক
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনায় গত ২৪ ঘন্টায় আরও ৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩৩
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।