অতুল পাল: পটুয়াখালীর বাউফলের ১৫ টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় করোনার গণ টিকা কার্যক্রম সার্ভার জটিলতায় চরম ভোগান্তির মধ্যে পড়তে হয়েছে টিকা গ্রহীতাদের।

জাতীয় পরিচয়পত্র দেখিয়ে টিকা নিতে পারবেন সংবাদ মাধ্যমে এমন প্রচার-প্রচারণা করা হলেও কেন্দ্রগুলোতে প্রথম দুই থেকে তিন ঘটনা নিবন্ধন ব্যাতিত টিকা দেওয়া বন্ধ ছিল। পরে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নির্দেশে জাতীয় পরিচয়পত্র দেখিয়ে টিকা প্রদান কার্যক্রম শুরু করা হয়। সরেজিমনে দেখা গেছে, সকাল থেকেই কেন্দ্রগুলোতে টিকা নিতে আসা শত শত নারী ও পুরুষের ভীর। এদের মধ্যে বয়স্ক মানুষের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মত। ৭ আগস্ট শনিবার বাউফলে ৯ হাজরা ৪০০ জনকে এই টিকার আওতায় আনা হবে বলে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পণা অফিস সূত্র জানিয়েছেন। শনিবার সকাল ১০ট থেকে বিকেল ৩ টা পর্যন্ত ওই টিকা প্রদান কার্যক্রম চলমান রাখা হয়েছিল। এদিকে টিকা নিতে এসে অনেকেই নিবন্ধন জটিলতায় চরম ভোগান্তির মধ্যে পড়েছেন। বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলে কেবলমাত্র জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে হাজির হলেই টিকা দেয়া হবে জানানো হলেও কেন্দ্রগুলোতে নিবন্ধন ছাড়া টিকা দেওয়া হচ্ছিলনা। অপরদিকে ইউনিয়ন পরিষদের সহায়তায় বিভিন্ন কেন্দ্রে নিবন্ধন করার জন্য একাধিক ল্যাপটপ নিয়ে নেওয়া হলেও সার্ভার ব্যস্ত থাকায় অনেক ক্ষেত্রেই ঢুকতে পারা যায়নি। বাহিরের কম্পিউটারের দোকনেও একই অবস্থা দেখা গেছে। কোন কোন ক্ষেত্রে নিবন্ধনের জন্য ৫০ থেকে ১০০ টাকা ব্যয় করতে হয়েছে টিকা প্রত্যাশীদের। আবার অনেকে নিবন্ধন না করতে পেরে টিকা না নিয়েই চলে গেছেন। কালাইয়া ইদ্রিচ মোল্লা ডিগ্রি কলেজে স্থাপিত টিকা কেন্দ্রে টিকা নিতে আসা মোসা. হাজেরা বেগম জানান, এখানে নিবন্ধন করতে পারিনি। দীর্ঘ সময় অপেক্ষার পর বাহিরে দোকান থেকে ১০০ টাকা দিয়ে নিবন্ধন করাতে হয়েছে। অপরদিকে নিবন্ধন করতে না পেরে টিকা গ্রহণ করতে পারনেনি মো. সোহেল, মোসা.নিলুফা বেগম, মো. জলিলসহ অনেকেই। নিবন্ধন জটিলতায় টিকা দেওয়া হচ্ছে না বিষয়টি এই প্রতিনিধির দৃষ্টিতে এলে তিনি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পণা কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করলে জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি রেখে টিকা দেওয়ার নির্দেশ দেন ওই কর্মকর্তা। এরপর ওই কেন্দ্রে টিকা গ্রহীতার সংখ্যা বেড়ে যায়। বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পণা কর্মকর্তা ডা. প্রশান্ত কমুমার সাহা জানান, ১৫টি ইউনিয়নের প্রত্যেকটিতে ৬০০ ও পৌরসভায় ৪ জনকে ভ্যাকসিন প্রদানের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল। লক্ষ্যমাত্রার শতকরা ৯০ ভাগ অর্জন হয়েছে।

Previous articleবেরোবির স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ের স্থগিত পরীক্ষা শুরু আগামী ১২ থেকে ২২ আগস্টের মধ্যে
Next articleপাবনা জেনারেল হাসপাতাল অবশেষে সেন্ট্রাল অক্সিজেন ও আইসিইউ ইউনিট চালু হলো
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।