জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুরে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ শেষে চাকরি না করে কৃষিকাজে মনোযোগি হয়ে ব্যাপক সাফল্য পেয়েছেন দু’সহদর। অত্যাধুনিক মালচিং পদ্ধতিতে গ্রীষ্মকালিন তরমুজ চাষ করে উপজেলাব্যাপি তাক লাগিয়ে দিয়েছেন অপু ও তপু।

মাত্র ৫/৬ হাজার টাকা বিনিয়োগ করে ১৬ শতক জমিতে ৪৫ দিনে তরমুজচাষ করে প্রায় অর্ধলক্ষ টাকা আয় করবেন তাঁরা। তাঁদের স্বপ্ন অনেকটা পুরণ হতে চলেছে। ইতোমধ্যে ৩০ হাজার টাকার তরমুজ বিক্রি করেছেন। সরেজমিন জানাগেছে, উপজেলার মংগলকোট গ্রামের আব্দুল গনি দফাদারের ৩ পুত্রের মধ্যে অপু ও তপু মাস্টার্স পাশ। ক্যারিয়ার গড়তে বছরের পর বছর চাকরির পিছনে না ছুটে তাঁরা কৃষি কাজে মনোনিবেশ করেন। প্রথমে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইউটিউব ও যশোরের ঝিকরগাছার সফলচাষি তাদের ফুফাত ভাইয়ের পরামর্শ ও সহযোগিতায় মাত্র ১৬শতক জমিতে মালচিং পদ্ধতিতে গ্রীষ্মকালিন তরমুজ চাষ করেন। আর তাতে সাফল্যও আসে। তাঁরা বলেন, মাত্র ৪৫ দিনে অল্প টাকা বিনিয়োগ করে গ্রীষ্মকালিন তরমুজ চাষে হাজার হাজার টাকা আয় করা সম্ভব। জেসমিন-২ জাতের তরমুজের স্বাদ যেমন ভাল, তেমনি ভাল ফলনও পাওয়া যায়। কড়া মিষ্টির কারণে বাজারে এর চাহিদাও বেশি। ১৬ শতক জমিতে তরমুজচাষে তাঁদের প্রায় ৫/৬ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। তাঁরা জানান, প্রথমে ৫ শতাধিক চারা রোপন করে প্রত্যেক গাছে দু’টি ফল রেখে বাকি ফল কেটে দিতে হয়। ঐ দু’টি ফল ও গাছ সঠিক পরিচর্যা করলে প্রায় ২ হাজার কেজি তরমুজ উৎপাদন করা সম্ভব। সপ্তাহে ২/৩ দিন পরপর জমি থেকে তরমুজ তুলে বাজারজাত করতে হয়। ইতোমধ্যে অনেকটা সফল হয়েছেন তারা। আরও জানান, এ পর্যন্ত ৩০হাজার টাকার তরমুজ বিক্রি হয়েছে। ক্ষেতে অবশিষ্ট তরমুজ যা আছে সব মিলিয়ে ৫০ হাজার টাকা বিক্রি হবে। বর্তমানে গ্রীষ্মকালিন দু’টি জাতের তরমুজের ভাল ফলন পাওয়া যাচ্ছে। এর মধ্যে জেসমিন-২ জাত ৪৫ দিনে ও ব্লাক জাম্বু ৬৫ দিনে উৎপাদন হচ্ছে। জেসমিন-২ ওজনে প্রায় আড়াই কেজি ও ব্লাক জাম্বু ৫ থেকে ৬ কেজি হয়। ইউরিয়া সার বাদে মালচিং পদ্ধতিতে চাষ করলে প্রায় সব ধরণের সার ব্যবহার করতে হয়। ২৫ থেকে ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় এ জাতের তরমুজের বীজগুলো ভালভাবে অঙ্কুরিত হয়। ফুল ও ফল আসার পর গাছে জিঙ্ক, বোরণ ও ছত্রাকনাশক ব্যবহার করলে ভাল ফলন পাওয়া যায়। উষ্ণ জলবায়ুতে সবচেয়ে তরমুজ ভাল জন্মায়। এক প্রশ্নের জবাবে সহদর অপু ও তপু বলেন, উপজেলা কৃষি অফিস থেকে পরামর্শ ও সহযোগিতা পেলে আরও ভাল ফলন পাওয়া যেত। ৫নং ইউনিয়ন এলাকার উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তাকে অনেকবার ফোন দিয়েও তরমুজ ক্ষেতে আনতে পারেনি তাঁরা। ৬নং ইউনিয়নের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা অনাথ বন্ধু দাস বলেন, তরমুজের জন্য প্রচুর রোদ এবং শুস্ক আবহাওয়া প্রয়োজন। মেঘাচ্ছন্ন আবহাওয়া ও অতিবৃষ্টির কারনে ফুল ও ফলের বৃদ্ধি কমে যায় এবং বর্ষাকালে পাকলে তরমুজের মিষ্টির পরিমাণ কমে যায়। বাংলাদেশের আবহাওয়ায় এ জাতের বীজ বপন ও উৎপাদন মৌসুম ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিল মাস পর্যন্ত। তবে বীজ বপনের জন্য ফেব্রুয়ারি মাস সর্বোত্তম। গ্রীষ্মকালিন তরমুজ অসময়ে একটি লাভজনক ফসল। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ঋতুরাজ সরকার বলেন, অধিক আর্দ্রতা তরমুজ চাষের জন্য ক্ষতিকর। খরা ও উষ্ণ তাপমাত্রা সহনশীল উন্নত জাতের তরমুজের বীজ উর্র্বর দোআঁশ ও বেলে দোআঁশ মাটিতে রোপন করলে ভাল ফলন পাওয়া যায়।

Previous articleরায়পুরে গাজাসহ নারী মাদক ব্যবসায়ী আটক
Next articleসোনামসজিদে চোরাই মোবাইল ও কালটার বিষসহ আটক ৬
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।