অতুল পাল: পটুয়াখালীর বাউফলে কারসাজি করে টাকার বিনিময় মেডিকেল সনদ নিয়ে সরকারের সামাজিক নিরপত্তা কর্মসূচির আওতায় সুস্থ্য-সবল ব্যাক্তিরা পাচ্ছেন প্রতিবন্ধী ভাতা।

এমন কয়েকজন ভূঁয়া প্রতিবন্দীর সন্ধান মিলছে উপজেলার কেশবপুর ইউনিয়নের ভড়িপাশা গ্রামে। ভূঁয়া ওই প্রতিবন্দীরা এক বছর ধরে নিয়মিত ভাতা উত্তোলন করলেও এর দায় সংশ্লিষ্ট কেউই নিতে চাচ্ছেন না। সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, উপজেলার কেশবপুর ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের মো. কাদের মাস্টারের ছেলে মো. মিজানুর রহমান একজন সুস্থ্য-সবল মানুষ। পেশায় তিনি একজন কৃষক। তার রয়েছে একাধিক মাছের ঘের ও কৃষি খামার। তিনি পাচ্ছেন প্রতিবন্দী ভাতা। একই গ্রামের মো. চান্দু হাওলাদারের মেয়ে মোসা. নুরজাহান বেগম, মো. চাঁন মিয়া ফরাজীর ছেলে আ.হক ফরাজী, মো.আফসের মল্লিকের মেয়ে মোসা. নিলুফা বেগম এবং জোনাবালী খাঁনের মেয়ে সাদেজা বেগম পাচ্ছেন প্রতিবন্দী ভাতা। অথচ এরা কেউই প্রতিবন্দী নয়। আ.হক ফরাজী একজন কটনাশক ব্যবসায়ী এবং অন্যরা গৃহিণী। স্থানীয়রা জানান, এরা কেউই প্রতিবন্দী নয়। সকলেই সুস্থ্য ও সবল মানুষ। স্থানীয় খলিল মেম্বার টাকা খেয়ে তাদেরকে প্রতিবন্দী তালিকায় নাম দিয়েছেন বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেন। সুস্থ্য হয়েও কেনো প্রতিবন্দী ভাতা নিচ্ছেন এমন প্রশ্ন করা হলে কোন উত্তর দেননি ওই ভূঁয়া প্রতিবন্দীরা। অনুসন্ধানে জানা যায়, কেশবপুর ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য মো. খলিলুর রহমান বাউফল হাসপাতালের একটা চক্রকে ম্যানেজ করে কারসাজির মাধ্যমে সুস্থ্য মানুষদের প্রতিবন্দী হিসেবে মেডিকেল সনদ সংগ্রহ করেন। পরে উপজেলা সমাজসেবা অফিস থেকে প্রতিবন্দী পরিচয়পত্র নিয়ে তাদেরকে প্রতিবন্দী ভাতার তালিকাভূক্ত করেন।

অভিযোগ উঠেছেম সাবেক ইউপি সদস্য খলিলুর রহমান প্রতি নামে ৫ থেকে ৭ হাজার করে টাকা নিয়েছেন। এই কারসাজির সাথে জড়িত রয়েছে বাউফল হাসপাতালের একটি চক্র। স্থানীয়রা আরো অভিযোগ করেন, মো. খলিলুর রহমান ইউপি সদস্য থাকাকালিন কেশবপুর অনৈতিক সুবিধা নিয়ে ইউনিয়নের প্রতিবন্দী, বয়স্ক, বিধিবাসহ অন্যান্য ভাতা তালিকায় অনেক অনিয়ম করেছেন এবং অনেকের নামে বিভিন্ন ভাতার কার্ড করিয়ে নিজেই উত্তোলণ করে নিয়েছেন। যাহা প্রকৃত ভাতাভোগীরা জানেন না। ইউপি সদস্য খলিলুর রহমান শুধু কেশবপুর ইউনিয়নেই নয়, উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের সুস্থ্য মানুষকে প্রতিবন্দী সাজিয়ে টাকার বিনিময়ে মেডিকেল সনদ সংগ্রহ করে দিয়ে প্রতিবন্দী ভাতার আওতায় নিয়ে এসেছেন। হাসপাতালের একটি চক্র তাকে এই কাজে সহায়তা করেছেন। এবিষয়ে সাবেক ওই ইউপি সদস্য মো. খলিলুর রহমান বলেন, আমার কাছে প্রতিবন্দী ভাতার জন্য আসলে আমি সুপারিশ করে হাসপাতালে পাঠাই। ডাক্তাররা তাদেরকে প্রতিবন্দী সনদ দিলে তারা সমাজসেবা অফিসের মাধ্যমে প্রতিবন্দী ভাতা পান। সুস্থ্য ব্যক্তিদের কিভাবে প্রতিবন্দী হিসাবে সুপারিশ করেছেন এমন প্রশ্নের কোন উত্তর তিনি দিতে পারেননি।

কেশবপুর ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ সাল্ধেসঢ়;হ উদ্দিন পিকু বলেন, আমি নতুন চেয়ারম্যান হয়েছি। এগুলো সাবেক চেয়ারম্যানের সময় হয়েছে। বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পণা কর্মকর্তা ডা. প্রশান্ত কুমার সাহা বলেন, এবিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বাউফল উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মো. মনিরুজ্জামান জানান, প্রতিবন্দী মেডিকেল সনদ ও ইউনিয়ন পর্যায়ে প্রতিবন্দী যাচাই-বাছাই কমিটির মাধ্যমে তালিকা আমাদের কাছে জমা দেওয়া হয়। আমরা শুধু এটা বাস্তবায়ন করি। যদি কোন অনিয়ম হয়ে থাকে তাহলে অবশ্যই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এবষিয়ে বাউফল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা প্রতিবন্দী ভাতা বাস্তবায়নণকমিটির সভাপতি আবদুল মোতালেব হাওলাদার বলেন, তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Previous articleভূঞাপুরে বঙ্গমাতার ৯১তম জন্মদিন পালিত
Next articleকাদের মির্জার অনুসারী কেচ্ছা রাসেলের গুলিতে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা গুলিবিদ্ধের অভিযোগ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।