ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: ছোট দুই শিশু সন্তান, মা বাসনা ও স্ত্রী সপ্তমি নিয়ে ছোট একটি সংসার ছিল চাঁপাইনবাবগঞ্জের শ্রী অতুল হালদারের। তিনি জেলার গোমস্তাপুর উপজেলার চৌডালা ইউনিয়নের নতুন পাড়া গ্রামের মৃত নিমাই হালদারের ছেলে।

অতুল নাচোল উপজেলার মুন্টু জুয়েলার্সে কারগিরের কাজ করতেন। সব মিলিয়ে সুখেই কাটছিল তাঁর সংসার। কিন্তু হঠাৎ গত ১৫ জুলাই খবর আসে অতুল অসুস্থ। তৎক্ষণিক স্বজনরা ছুড়ে গিয়ে দেখেন মাটিতে পড়ে আছেন তিনি নেই শুধু প্রাণটায়।
আর শরীরে হয়েছে বেশ কিছু আঘাতের চিহৃ। তবে পুলিশ বলছে অতুলের শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন ছিল না।
অতুলের চাচা দিলিপ হালদার জানান,অতুল ৫-৬ মাস থেকে নাচোলের মুন্টু জুয়েলার্সে কাজ করত। সেই সুবাদে ওখানেই থাকতে হত তাঁকে। সব মিলিয়ে ভালোই চলছিল। কিন্তু হঠাৎ গত ১৫ জুলাই রাত ১১ টায় বাড়িতে ফোন করে মুন্টু জুয়েলার্সের মালিক মুন্টু জানান, অতুল হার্ট অ্যাটাক করেছে খুব অসুস্থ। খবর পেয়ে আমিসহ স্বজনরা তাৎক্ষণিক ছুটে যায় তাঁর কাছে। আমাদেরকে জুয়েলার্স মালিক মুন্টু,আপেল,সুবাসসহ ৬-৭ জন নিয়ে যায় যে বাড়িতে অতুল থাকত। সেখানে গিয়ে দেখি অতুল মৃত অবস্থান পাড়ে আছে টিউবওয়েলের পাশে।
সরাশরীর ভিজা কপালসহ অনেক মাথা পিঠ এবং কপালের বিভিন্ন অংশে রয়েছে আঘাতের চিহ্ন। দেখে আমি অবাক হয়ে বলি আমার ভাতিজাকে তো খুন করা হয়েছে। আপনারা কেন বলছেন হার্ট অ্যাটাক করছে। আর সঙ্গে সঙ্গে মোবাইল করি ৯৯৯ এ। মোবাইল করি এমন কথা শুনে পালিয়ে যায় দোকানের মালিকমুন্টুসহ তার সহযোগীরা শুধু আমদের সঙ্গে তাকে আপেল। পরে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।
আমার ভাতীজাকে হত্যা করা হয়েছে। এই হত্যাকণ্ডের আমরা বিচার চাই।
মৃত অতুলের মা শ্রী বাসনা জানান, বাড়িতে আয়রোজগার করার কেউ নেই। আমার স্বামী অনেক আগেই মারা গেছে। আয় করার একমাত্র ছিল আমার ছেলে অতুল হালদার সেই নেই। আমরা এক মাস থেকে প্রায় না খেয়ে থাকছি। কি এমন শত্রুতা ছিল আমার অতুলেন সঙ্গে যে এভাবে মারতে হলো তাঁকে। আজ দুইটা ছোট বাচ্চা বোউ নিয়ে আমি কোথাই যাব। পুলিশের কছে গিয়ে বিচার পাচ্ছিনা। কত আর মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরব। আমার ছেলের হত্যাকরিদের সুষ্ঠু তদন্ত করে বিচার হোক। অতুলের স্ত্রী সপ্তমি জানান,ছোট বেলায় মাকে হারিয়েছি।পরে বাবা আবারও বিয়ে করে সংসার করে।সৎ মায়ের সংসারে অভাব অনটনের মধ্যে অনেক কষ্ট করতে হয়েছে আমাকে।আবার অল্প বয়সে স্বামী হারা হলাম।
এখন দুই শিশু সন্তান নিয়ে একেবারেই অন্ধকার দেখছেন। তিনি স্বামী হত্যার বিচার দাবি করে পুলিশের সহযোগিতা কামনা করেন। তাঁর দাবি- আমার স্বামীর কোন অসুখ ছিলনা।
তার পরেও সে যদি অসুস্থ্য হয়ে মারা যাবে তবে-শরীরের বিভিন্ন স্থানে কেন আঘাতের চিহ্ন? এ বিষয়ে অভিযুক্ত মুন্টু জুয়েলার্সের মালিকের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোনে মন্তব্য করতে রাজি হননি। তবে তিনি নাচোল থানার ওসির সঙ্গে কথা বলতে বলেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে নাচোল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সেলিম রেজা জানান, এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু দায়ের হয়েছে ময়নাতন্তের রিপোর্ট পেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানান যাবে। তবে মৃতের শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন ছিলনা।

Previous articleসাপাহারে দেড় কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে বাবু হত্যার ১২ ঘণ্টায় মধ্যে আসামী গ্রেফতার ও রহস্য উদঘাটন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।