বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও পৌরসভা কার্যালয় মাঠে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৬তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানের প্যান্ডেলে দুর্বৃত্তরা হামলা ও ভাঙচুর চালিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) কেন্দ্রীয় সাংগঠিনক সম্পাদক ডা. আবু জাফর চৌধুরী বিরুর সমর্থকদের উদ্যোগে শনিবার বিকালে নির্মিত এ প্যান্ডেলে হামলা ও ভাঙচুর চালানো হয়। এ সময় চেয়ার টেবিল ভাঙচুর, সাঁটানো ব্যানার ও ফেস্টুন ছিঁড়ে ফেলা হয়।

জানা যায়, সোনারগাঁও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা দুভাগে বিভক্ত হয়ে এ বছর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন করার উদ্যোগ গ্রহণ করেন।

সোনারগাঁও উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির ব্যানারে নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল্লাহ আল কায়সারের নেতৃত্বে আহ্বায়ক কমিটি ও নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. আবু জাফর চৌধুরী বিরুর নেতৃত্বে তার সমর্থকরা পৃথকভাবে দিবসটি উদযাপনের প্রস্তুতি গ্রহণ করেন।

এ উপলক্ষ্যে উভয় গ্রুপের সমর্থিত নেতাকর্মীরা উপজেলার বিভিন্ন স্থানে আলোচনাসভা, মিলাদ মাহফিল, দোয়া ও গণভোজের আয়োজন করেন ও প্যান্ডেল নির্মাণ করেন।

সোনারগাঁও পৌরসভা কার্যালয় মাঠে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে আবু জাফর চৌধুরী বিরুর সমর্থক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা মোহাম্মদ হোসাইন ও সোনারগাঁও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক হাসান মিলাদ মাহফিল, দোয়া ও আলোচনাসভার জন্য প্যান্ডেল নির্মাণ করে।

শনিবার বিকালে তাদের নির্মিত প্যান্ডেল ফাঁকা পেয়ে দুর্বৃত্তরা অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় হামলাকারীরা প্যান্ডেলের ভেতরে ও বাহিরে থাকা চেয়ার টেবিল ভাঙচুর ও প্যান্ডেলটি গুঁড়িয়ে দেয়।

এ ছাড়া হামলাকারীরা জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবিসংবলিত সাঁটানো ব্যানার, ফেস্টুন ছিঁড়ে ফেলে। এ ঘটনায় আওয়ামী লীগ নেতা ডা. আবু জাফর চৌধুরী বিরুর সমর্থিত নেতাকর্মীদের মধ্যে চরম ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে।

গত বৃহস্পতিবার গভীর রাতে মেঘনাঘাট থেকে কাঁচপুর পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য, জাতীয় পার্টির অতিরিক্ত মহাসচিব ও প্রেসিডিয়াম সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকার সৌজন্যে সাঁটানো প্রায় তিন শতাধিক ফেস্টুন ও ব্যানার ছিঁড়ে ফেলে দুর্বৃত্তরা।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা মোহাম্মদ হোসাইন বলেন, আওয়ামী লীগের রাজনীতি করতে হলে বঙ্গবন্ধুকে মনে-প্রাণে ও বুকে ধারণ করতে হবে। যারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হৃদয় দিয়ে ভালোবাসেন, তারা এ ধরনের ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটাতে পারে না।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে মিলাদ মাহফিল ও দোয়ার আয়োজন করা প্যান্ডেলে ভাঙচুর করা ও ব্যানার ফেস্টুন ছিঁড়ে ফেলার ঘটনাটি অত্যন্ত ন্যক্কারজনক। আমরা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

সোনারগাঁও উপজেলা শ্রমিক লীগের আহ্বায়ক মাহবুব আলম মিলন বলেন, জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানের প্যান্ডেলে দুর্বৃত্তরা ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটপাট চালিয়েছে। যারা এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত, তাদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনতে হবে। আমরা এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবি করছি।

নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. আবু জাফর চৌধুরী বিরু বলেন, বঙ্গবন্ধুর প্রতি যাদের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা নেই, তারাই এ ধরনের ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটাতে পারে। আমি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

সোনারগাঁও থানার ওসি মোহাম্মদ হাফিজুর রহমান বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত প্যান্ডেলে যারা হামলা, ভাঙচুর চালিয়েছে, তাদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হবে।

Previous articleশোক দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
Next articleজাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি আবেদনের সময় বাড়ল
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।