অতুল পাল: পটুয়াখালীর বাউফলে জড়াজীর্ণ ডকঘরে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলছে নিত্যনৈমিত্তিক কাজ। ডাকঘরটির চরপাশ লতাপাতায় ছেয়ে গেছে। ছাদের উপরে ঘাষসহ অন্যান্য গাছপালা বেড়ে উঠেছে।

হয়েছে সাপকোপের বাসা। ছাদ চুঁইয়ে পড়ছে পানি। নষ্ট হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র। নেই পর্যাপ্ত আসবাবপত্র। যে কোন সময় ঘটতে পারে দুঘর্টনা। এমনই করুন অবস্থার মধ্য দিয়ে চলছে বাউফল উপজেলা ডাক অফিস ও ডাক সেবা। সরেজমিনে দেখা যায়, ডাকঘরটির চারপাশে ঝোপঝাড়ের মধ্যে নাজুক অবস্থায় দাঁড়িয়ে রয়েছে ডাকঘরটি। প্রবেশ পথও লতাপাতাঢয় ছেয়ে গেছে। ভবনের ছাদ ও দেয়াল থেকে খসে পড়ছে পলেস্তারা। ছাদ চুইয়ে পড়ছে পানি। সেবা নিতে আসা সাধার মানুষের জন্য নেই বসার কোন স্থান। নেই পর্যাপ্ত চেয়ার-টেবিলও। নষ্ট হয়ে যাচ্ছে আসবাবপত্র ও গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র। সূত্র জানায়, আশির দশকে বাউফল উপজেলা ডাকঘরটি নির্মাণ করা হয়েছিল। এরপর কয়েকবার সংস্কারও করা হয়েছিল। কিন্তু এখন সম্পূর্ণ ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

ডাকঘরটিতে দৈনিক ৩০০ থেকে ৪০০ মানুষ সেবা নিতে আসেন। সেবা নিতে আসা সাধারন মানুষদের জন্য বসার কোন ব্যবস্থা নেই। স্থানীয়রা জানান, অফিস বন্ধের পর ডাকঘররের চারপাশে মাদকাসক্তদের আড্ডা বসে। ডাকঘরের সীমানার মধ্যে বেশ কিছু সুপারী গাছ রয়েছে। সেগুলোর ফল নিয়ে যাচ্ছে দুর্বৃত্তরা। উপজেলা পোস্ট মাস্টার মো.ইব্রাহিম সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ভবনটি ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। যেকোন সময় ঘটতে পারে দুঘর্টনা। বিষয়টি উর্ধত কর্তৃপক্ষকে কয়েকবার অবহিত করা হয়েছে। এবিষয়ে জেলা পোষ্ট অফিস পরিদর্শক আবু সালেহ মোঃ মুছা বলেন,বাউফলের ডাকঘরটি ব্যবহারের অনুপযোগী হওয়ায় অন্যত্র অফিস ভাড়া নেয়ার চিন্তা করা হচ্ছে। জরাজীর্ণ ভবনটি ভেঙ্গে নতুন ভবন নির্মাণের জন্য খুলনায় প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

Previous articleকুষ্টিয়ায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় গ্রীন ভয়েসের খাদ্য সহায়তা কর্মসূচি
Next articleজামালপুরে ৩ ছাত্রী নিখোঁজ: মাদ্রাসা পরিচালকসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।