তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুর-চাঁদপুর আঞ্চলিক মহাসড়কের উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের সামনে রাস্তায় বেশ কয়েকটা সিএনজি অটোরিকশা দাঁড়ানো। প্রায় সময় রোগীর সঙ্গে তাদের স্বজনরাও অনেকে বের হচ্ছেন হাসপাতাল থেকে। রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকছেন পরিবহনের জন্য। গন্তব্যে যেতে সিএনজি-অটোরিকশা চালকদের সঙ্গে ভাড়া নিয়ে দরদামও করছেন। বনিবনা না হওয়ায় আবার তারা ফিরে আসছেন হাসপাতালের গেটের দিকে। বারবার এমন দৃশ্য দেখে এগিয়ে গিয়ে কথা বলে জানা গেল মূল কারণ।

শনিবার (১৮ সেপ্টেম্ব) সকাল নয়টার সময় সিএনজি চালকদের কাছে হয়রানির শিকার হতে দেখা গেছে রোগীসহ বিভিন্ন-যাত্রীদের।
অন্যদিকে- কয়েকমাস মাস ধরে হাসপাতালের সামনে থেকে রায়পুরে বিভিন্ন স্থানসহ লক্ষ্মীপুর ও চাঁদপুরে যাত্রী পরিবহন করছে সকাল ৭ টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত।

দেখা যায, সড়ক দুর্ঘটনায় হাত ও পা ভেঙে যাওয়া বাবাকে আজমল হককে (৫৫) নিয়ে রায়পুর সরকারি হাসপাতালে এসেছেন আবদুল কাইয়ুম (৩০)। ভিতরে বেশ কিছুদিন যাবৎ চিকিৎসাধীন ছিলেন তারা। সেবা করতে গিয়ে কাইয়ুম কিছুটা অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। আর সেই কাইয়ুমকে নিয়ে চরমোহনা গ্রামে এক আত্মীয়ের বাড়িতে যেতে চাচ্ছিলেন তারই বন্ধু জুয়েল (২৯)। কিন্তু বিপত্তি বাধে সেখানেই। হাসপাতালের সামনে থাকা একটি সিএনজি দুইশ টাকার নিচে যাবে না। অথচ স্বাভাবিকভাবে সর্বোচ্চ ১০০ টাকা ভাড়া হওয়া উচিত বলে অভিযোগ কাইয়ুমের।

তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, হাসপাতালে অসুস্থ হয়ে যাওয়া বন্ধুকে নিয়ে আত্মীয়ের বাসায় রাখতে যাব। কিন্তু একটা সিএনজিও স্বাভাবিক ভাড়ায় যেতে রাজি হচ্ছে না। তারা দ্বিগুণ ভাড়া দাবি করছে। আমরা তো গরিব মানুষ, কীভাবে এত ভাড়া বেশি দিয়ে যাই?

দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত পায়ের চিকিৎসা পরবর্তী সেবা নিতে মায়ের সঙ্গে এসেছে অল্প বয়সী হামিদ। সেবা নেয়া শেষে হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে তারও একই অবস্থা। তিনি বললেন, পা ভালো থাকলে তো বাসেই চলে যেতাম। কিন্তু পা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাই বাসে চড়ে যেতে পারছি না। এই অসহায়ত্ব দেখে সিএনজি চালকরা ভাড়া বেশি চাচ্ছে।

হাসপাতালের সামনে থাকা অস্থায়ী ওষুধ দোকানি মোঃ রাশেদ ও মোঃ মাজেদ এ বিষয়ে যুগান্তরকে বলেন, প্রতিটি সিএনজি চালক রোগী ও রোগীর স্বজনদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করে। শুধু তাই না, চাঁদুর হয়ে ঢাকা যাওয়ার সময় হয়রানীর শিকার হতে হয়। মানুষের অসহায়ত্বকে পূঁজি করে এরা গলা কাটা ভাড়া নেয়। মানুষও হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে বেশি ভাড়ায় যেতে বাধ্য হয়। কারণ একজন রোগীকে নিয়ে বের হয়েছে তখন গাড়ির জন্য কতক্ষণ অপেক্ষা করবে? তাই বাধ্য হয়ে তারা যায়। আর এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে সিএনজি চালকরাও একজোট হয়ে ভাড়া বেশি চায়। তাই এসব অসহায় মানুষরাও ভাড়া নিয়ে দরদাম করার সুযোগ পায় না।

এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতেই সেখানে সিএনজি অটোরিকশা নিয়ে অপেক্ষমাণ চালক মোঃ সোহেল রহমানের সঙ্গে আলাপ হয়। তিনি বলেন, ‘ভাই এখানে আমাগোরে বেশি একটা দোষ নাই। কারণ আমাগো সিএনজি জমা খরচ বেশি, এরপর হাসপাতালের সামনে সিএনজি নিয়ে দাঁড়ালে বিভিন্ন জনকে টেকা দেওয়ান লাগে, না হইলে এখানে দাঁড়াতে দেয় না। তাই অনেক সময় একটু বেশি ভাড়া নিই যাত্রীদের কাছ থাইকা।’

নিজের অসহায়ত্বের কথা উল্লেখ করে আরেক অপেক্ষমাণ রোগীর স্বজন মোঃ দুলাল বললেন, এখান থেকে যাব চরবংশীর মোল্লারহাট গ্রামে। কমপক্ষে ৬টা সিএনজি চালকের সঙ্গে কথা বলেছি, কেউ যাবে না। তবে দু’জন যেতে চায়, তারা ভাড়া নিবে ২০০ টাকা। এতটুকু দূরত্বে এত টাকা ভাড়া হলে মানুষ কীভাবে যাবে? আর যেহেতু রোগী সঙ্গে আছে, আছে ব্যাগ-ব্যাগেজও তাই এরা সুযোগ বুঝে টাকা আদায় করতে চায়। আর যেহেতু আমরা এখন অসহায় তাই বাধ্য হয়েই তাদের চাহিদা অনুযায়ী বেশি ভাড়ায় যেতে হচ্ছে।

রায়পুর সরকারি হাসপাতালের আবাসিক ম্যাডিকেল অফিসার (আরএমও) ডাক্তার বাহারুল আলম বলেন, সরকারি হাসপাতালের সামনে দাড়িয়ে থাকা সিএনজি চালকদের কারনে প্রায় সময় প্রধান সড়কে দীর্ঘ যানজট লেগে থাকে। কয়েকবার নিষেধ করার পরেও শুনেনা তারা। আমাদেরও করার কিছু নেই। পুলিশ ব্যবস্থা নিবে।

Previous articleচাকরি দেওয়ার নামে প্রতিদিন তাদের আয় ১৫ লাখ টাকা!
Next articleনোয়াখালীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে নিহত ৪ জনের দাফন সম্পন্ন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।