তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে দুই শিশু শিক্ষার্থীর পায়ে শিকল পরিয়ে মানসিক ও শারিরীক নির্যাতনের ঘটনায় সেই দুই মাদ্রাসা শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তারা হলেন-মাদ্রাসা সুপার মোঃ শহীদুল ইসলাম ও সহকারী শিক্ষক মো. আশেক এলাহী তারেক।

শনিবার (১৮সেপ্টেম্বর) দুপুরে তাদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়। এরআগে সকালে উপজেলার পানপাড়া বাজার এলাকায় থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার শহীদুৃল পানপাড়া বাজারে দারুল কোরআন মহিলা মাদ্রাসার সুপার ও সহকারী মো. আশেক এলাহী তারেক। প্রসঙ্গত শুক্রবার যুগান্তরে ‘পায়ের শিকর পরিয়ে শিক্ষার্থীদের নির্যাতন মাদ্রাসা শিক্ষকের’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হয়। এতে টনক নড়ে স্থানীয় প্রশাসনের। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানিয়েছে, ২০১৮ সালে কিছু শিশু শিক্ষার্থী নিয়ে শহীদুল পানপাড়া বাজারে দারুল কোরআন মহিলা মাদ্রাসা শুরু করেন। তার বাবা মফিজুল ইসলামকে প্রতিষ্ঠানের সভাপতি, স্ত্রী রাশেদ বেগম ও নিজের নিকটাত্বীয়দের নিয়ে মনগড়া পরিচালনা কমিটি করেন।

কারণে-অকারণে মাদ্রাসার নাজেরা বিভাগের ছাত্র আরমান, জাহেদ ও শহিদ হোসেনকে পায়ে শিকল বেঁধে কয়েকদিন মানসিক-শারিরীক নির্যাতন করে। বিষয়টি ১১ সেপ্টেম্বর জানাজানি হয়। এ ঘটনায় শুক্রবার রাতে ঘটনার শিকার ছাত্র আরমানের নানী পারভিন আক্তার থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার বাদী পারভিন আক্তার বলেন, শিশুদেরকে মাদ্রাসায় পাঠাই পড়ার জন্য। কিন্তু তাদের পায়ে শিকল বেঁধে রাখায় তারা মানসিক ও শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ে। অভিযুক্তদের বিচার চাই। গ্রেফতারের আগে প্রতিষ্ঠানের সুপার শহিদুল ইসলাম সংবাদকর্মীদের বলেন, আমরা ষড়যন্ত্রের শিকার। পাশে একটি নতুন মাদ্রাসা হচ্ছে- একারণে আমাদের বিরুদ্ধে একটি পক্ষ অপপ্রচার করছেন। এ ব্যাপারে রামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন জানান, শিশুদের শিকল দিয়ে বেঁধে রাখার ঘটনায় দুই শিক্ষককে গ্রেফতার করা হয়। তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

Previous articleফটো সাংবাদিক গোলজার রহমান আদরের দ্রুত মুক্তির দাবিতে রংপুরে মানববন্ধন
Next articleকেন্দুয়ায় জয়কা সাতাশী উচ্চ বিদ্যালয়ে গোপনীয়ভাবে নিয়োগ বাণিজ্যের প্রতিবাদে মানববন্ধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।