আব্দুল লতিফ তালুকদার: টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক্সরে মেশিনটি দীর্ঘ পাঁচ বছর যাবত নষ্ট হয়ে পড়ে রয়েছে। স্থানীয় এমপির সহযোগিতায় নতুন একটি ডিজিটাল এক্সরে মেশিন আনলেও অজ্ঞাত কারণে তা চালু করা হয়নি।

উপজেলার দরিদ্র জনগোষ্ঠির অনেকেই ক্লিনিকে গিয়ে এক্স-রে করার মতো সামর্থ্য নেই। নতুন একটি এক্স-রে মেশিন থাকা সত্বেও চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সাধারণ রোগিরা। দীর্ঘ পাঁচ বছর ধরে এক্স-রে মেশিনটি নষ্ট থাকার কারণে ভূঞাপুরের যমুনার চরাঞ্চলের হতদরিদ্র মানুষগুলো চরম ভোগান্তির শিকার। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন চিকিৎসা নিতে আসা রোগির স্বজনরা। উপজেলার যমুনার চরাঞ্চল গাবসারা ইউনিয়নের ইউনুস আলী মন্ডল জানান, আমি আমার স্ত্রীকে নিয়ে ভূঞাপুর হাসপাতালে গিয়েছিলাম ডাক্তার দেখাতে। পরে ডাক্তার ডিজিটাল মেশিনে এক্স-রে করার পরামর্শ দিলে আমি স্থানীয় ক্লিনিকের কথা বললে তিনি টাঙ্গাইল গিয়ে এক্স-রে করার পরামর্শ দেন। টাঙ্গাইল গিয়ে এক্স-রে করা আমার পক্ষে সম্ভব নয় বিধায় স্ত্রীকে নিয়ে বাড়ি ফিরে গিয়ে কবিরাজের কাছে যাই।

একটি সূত্র জানায়, স্থানীয় ক্লিনিক মালিকদের সাথে যোগসাজসের কারণে দীর্ঘ পাঁচ বছরেও আলোর মুখ দেখেনি এক্স-রে মেশিনটি। এই সুযোগে ক্লিনিক মালিকগুলো সাধারণ রোগিদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে হাজার হাজার টাকা। এতে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে হতদরিদ্র মানুষগুলো। এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: মহী উদ্দিন আহমেদ জানান, একমাস আগে একটি নতুন ডিজিটাল এক্স-রে মেশিনটি আসলেও ফিল্ম এখনও আসেনি। তাছাড়া এমপি মহোদয়ের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে এক্স-রে মেশিনটি চালু করা হবে।

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে ভাতিজিকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় দুই চাচাকে মারধর
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে ৫৯ বিজিবি’র অভিযানে ফেনসিডিল ও হেরোইনসহ আটক ১
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।