আহাম্মদ কবির: সনাতন ধর্মালম্বীদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা,আর মাত্র কয়েকদিন বাদেই দেবী দুর্গা আসছেন।দুর্গোৎসবকে কেন্দ্র করে সুনামগঞ্জ তাহিরপুর উপজেলার প্রতিটি মণ্ডপে মণ্ডপে চলছে রঙ-তুলির আঁচড়ে প্রতিমাকে সাজানোর কাজ,প্রতিমা শিল্পীদের এখন পলক ঘোরানোর সময় নেই।ক্ষীণ হয়ে গেছে রাতের ঘুমের সময়।হিন্দু ধর্মালম্বীদের মধ্যে বিরাজ করছে সাজ-সাজ রব।হিন্দু সম্প্রদায়ের আবাল-বৃদ্ধ-বনিতা,নারী-পুরুষসহ সব বয়সী মানুষ সর্ববৃহৎ শারদীয় দুর্গোৎসব কে স্বার্থক করতে প্রহর গুনছে। সবমিলিয়ে ব্যাপক প্রস্তুতি চলছে প্রতিটি পূজামন্ডপে।

সনাতন ধর্মালম্বীদের বিশ্বাস,দুষ্টের দমন আর শিষ্টের পালনের জন্যই দেবী দুর্গার স্বর্গ থেকে আগমন ঘটেছিল মর্ত্যলোকে। এরই ধারাবাহিকতায় হিন্দু ধর্মালম্বীরা প্রতি বছর শারদীয় দুর্গোৎসব পালন করে আসছেন। আগামী ১১অক্টোবর সোমবার বেলতলায় ষষ্ঠী পূজার মধ্যদিয়ে দেবী বন্ধনা শুরু করে পাঁচদিন চলবে সনাতন ধর্মালম্বীদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় এ উৎসব। ১৫অক্টোবর মহাদশমী ও প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে শেষ হবে শারদীয় দুর্গোৎসব।

তাহিরপুর উপজেলার বিভিন্ন পূজামন্ডপে ঘুরে দেখা যায়, কোথাও খড় ও মাটি দিয়ে প্রতিমা তৈরির কাজ শেষ শেষ করেছেন। আবার কোথাও শিল্পীর সুনিপুণ হাত ও রঙ-তুলির আঁচড়ে কৃত্রিম জীবন পাচ্ছেন মা দুর্গা,লক্ষ্মী,সরস্বতী, কার্তিক, গনেশ,অসুর ও শিবমূর্তি।দিনভর পরিশ্রমে প্রতিমা শিল্পীদের দম ফেলার সময় নেই।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ তাহিরপুর উপজেলা শাখার সভাপতি সুবাস পুরকায়স্থ জানান উপজেলায় এ বছর ২৯টি পূজামণ্ডপে শারদীয় দুর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।কেন্দ্রীয় নির্দেশনা মোতাবেক স্বাস্থ্যবিধি মেনে, প্রতিমা তৈরি করে পূজা সমাপ্তি পর্যন্ত প্রতিটি মন্ডপে নিজস্ব উদ্যোগে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা,মন্দির বা পূজা মণ্ডপে আগত দর্শনার্থীদের জীবাণুমুক্ত করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা রাখা, দর্শনার্থী,ভক্ত ও পুরোহিত সবাইকে বাধ্যতামূলকভাবে মাস্ক পরা,পূজা মন্দির/মণ্ডপে নারী ও পুরুষের আলাদা যাতায়াত ব্যবস্থা রাখা,আতশবাজি ও পটকার ব্যবহার হতে বিরত থাকা,ভক্তিমূলক সংগীত ছাড়া অন্য কোন সংগীত বাজানো থেকে বিরত থাকা,কারো ধর্মানুভুতিতে আঘাত লাগে এমন কার্যক্রম থেকে বিরত থাকা। এছাড়াও মন্দির /মণ্ডপের সার্বিক নিরাপত্তা বিবেচনায় আর্থিক সঙ্গতি সাপেক্ষে সিসি ক্যামেরা সংযোগের ব্যবস্থা সহ বিভিন্ন নির্দেশনা রয়েছে।

তাহিরপুর থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি)মোঃ আব্দুল লতিফ তরফদার জানান এ বছর তাহিরপুর উপজেলায় ২৯টি পূজা মণ্ডপে শারদীয় দুর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হবে।প্রতি বছরের মত এবছরও শারদীয় দুর্গোৎসব যেন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয় সেই দিকে পুলিশের পক্ষ থেকে নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।এখন পর্যন্ত আমাদের হাতে কেন্দ্রীয় কোন নির্দেশনা আসেনি,তবে আমরা পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দের নিয়ে আলোচনা করেছি তারা যেন প্রত্যেকটি পূজামন্ডপে সিসি ক্যামেরা সংযোগ রাখেন এবং আমাদের সার্বক্ষণিক যোগাযোগ এর জন্য প্রতিটি পূজা মণ্ডপের সেচ্ছাসেবীদের তালিকা ও মোবাইল আমাদের বিট অফিসার এর হাতে দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে ।

Previous articleদেশে করোনায় আরও ১৮ জনের মৃত্যু, বেড়েছে শনাক্ত
Next article৫০ লাখ আত্মকর্মসংস্থান রক্ষায় রাস্তায় দাঁড়ালেন রিকশাচালক সংগ্রাম পরিষদ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।