অতুল পাল: আগামি ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য বাউফলের নওমালা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকার কর্মী সমর্থকদের লক্ষ্য করে গুলি করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এনিয়ে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ঘটনাস্থলে রয়েছেন এবং বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার নেতৃত্বে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

আজ সোমবার দুপুর সারে ১২ টার দিকে নওমালা ইউনিয়নের নগরের হাটে ওই ঘটনা ঘটেছে। স্থানীয় সূত্র থেকে জানা গেছে, নওমালা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী কামাল হোসেন বিশ্বাসের বড় বোন মমতাজ বেগম (৫৩) আজ সোমবার বেলা ১১ টার দিকে কয়েকজন নারী সমর্থক নিয়ে ৬ নম্বর ওয়ার্ডে গণসংযোগে যান। এসময় বিদ্রোহী প্রার্থী শাহজাদা হাওলাদারের (ঘোড়া মার্কা) সমর্থক আমির সরদারের ছেলে ওহাব, আমির বণিকের ছেলে বেল্লাল এবং আবুল মিয়ার ছেলে সোহাগসহ ২০-২৫ জনের একটি দল তাদেরকে হেনস্থা করে। এখবর জানাজানি হলে নৌকার সমর্থকরা তাদেরকে উদ্ধারের জন্য ৬ নম্বর ওয়ার্ডের দিকে রওয়ানা হলে নগরের হাটে বিদ্রোহী প্রার্থী শাহজাদা হাওলাদারের বাড়ি থেকে নৌকার সমর্থকদের লক্ষ্য করে ৪/৫ রাউন্ড গুলি করা হয়। তবে গুলিতে কোন হতাহত হয়নি। এসময় ২০০ গজের মধ্যেই পুলিশ অবস্থান করছিল। নৌকার প্রার্থীর সেঝ ভাই ছুটিতে বাড়িতে আসা বিমান বাহিনীর উইং কমান্ডার মশিউর রহমান লাভলু ঘটনাটি নিশ্চিত করে জানান, আমার বোনকে হেনস্থার হাত থেকে উদ্ধার করতে সোমবার বেলা সারে ১২ টার দিকে কয়েকজন সমর্থক রওয়ানা হলে প্রতিপক্ষ শাহজাদা হাওলাদারের বাড়ি থেকে ইসমাইল মৃধার ছেলে মিজান (৩৫) ওরফে পিস্তল মিজান ওই গুলি করে। এরফলে সাধারন মানুষ এদিক ওদিক ছোটাছুটি করে এবং দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায়। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং বাউফল থানাকে অবহিত করলে তারা বিপুল সংখ্যক পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থল নগরের হাটে অবস্থান নেন। নৌকার প্রার্থী কামাল হোসেন বিশ্বাস অভিযোগ করেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনারের বড় ভাই আবু তাহের খান বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে কাজ করে প্রশাসনকে বিভ্রান্ত করছেন। যার কারণে পুলিশ প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকা পালন করছেন। এলাকার বাহির থেকে প্রচুর সংখ্যক সন্ত্রাসী বাহিনী এনে নওমালার ভোটারদের জিম্মি করে ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে যেতে নিষেধ করছে এবং নৌকার গণসংযোগ করতে দিচ্ছে না। এবিষয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী শাহজাদা হাওলাদার জানান, আমি ৯ নম্বর ওয়ার্ডে গণসংযোগে ছিলাম এবং আমার বাড়িতে কোন লোক ছিল না। আমার বাড়ি থেকে কেউ গুলি করেছে এমন কথা মিথ্যা এবং উদ্দেশ্যপ্রনোদিত। বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আল মামুন গুলির ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, আমরা ঘটনাস্থলে রয়েছি। পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আল আমিন জানান, গুলির ঘটনার পর আমরা ঘটনাস্থলে যাই। এখন পরিবেশ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

Previous article‘পার্ট অব পে’ মাইলেজের দাবীতে পাকশীতে রেলওয়ের রানিং স্টাফদের বিক্ষোভ সমাবেশ
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে র‌্যাবের অভিযানে বিপুল পরিমাণ ভারতীয় পাতার বিড়িসহ গ্রেফতার ১
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।