অতুল পাল: পটুয়াখালীর বাউফলে জীবনের নিরাপত্তা ও হামলাকারীদের বিচার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও কনকদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. শাহিন হাওলাদার।

আজ মঙ্গলবার দুপুর দেড় টার দিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয় জনতা ভবনে ওই সংবাদ সম্মেলনে করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে চেয়ারম্যান শাহিন হাওলাদার বলেন, আজ মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে দাপ্তরিক কাজের জন্য উপজেলা পরিষদে যাই। এসময় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের সামনে দাসপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান এন.এম জাহাঙ্গীর হোসেন আমাকে গুন্ডা-শালাসহ অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করেন। আমি প্রতিবাদ করলে তার সঙ্গে থাকা ৭-৮জন অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী আমার উপর হামলা চালায়। হামলার সময় চিহ্নিত সন্ত্রাসী মো. রাসেল প্যাদা (৩৫) আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে সুঁইচগিয়ার চাকু দিয়ে পাঁজোরে আঘাত করে। জ্যাকেট গায়ে থাকায় আমি প্রাণে বেঁচে যাই। এছাড়াও জাহাঙ্গীর চেয়ারম্যানের সাথে থাকা সন্ত্রাসী মো. মনির হোসেন (৩৮) প্রকাশ্যে আগ্নেয়াশ্র প্রদর্শন করে। শাহিন হাওলাদার আরো বলেন, ঘটনার পর সন্ত্রাসী জাহাঙ্গীর ও তার বাহিনীরা পৌর শহরে প্রকাশ্যে মহড়া দিয়েছেন। তারা আমাকে নিরবিচ্ছিন্নভাবে হত্যার হুমকি দিচ্ছে। আমি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। প্রশাসনের কাছে আমি আমার জীবনের নিরাপত্তা দানের অনুরোধ করছি। এবিষয়ে দাশপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান এন.এম জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, শাহিন চেয়ারম্যান আমাকে লাঞ্ছিত করেছেন। তার দোষ এরানোর জন্য সে মিথ্যাচার করছেন। এবিষয়ে বাউফল থানা পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মিজানুর রহমান বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। এখনো কোন লিখিত অভিযোগ পাইনি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বাউফল উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আল আমিন জানান, অফিসের বারান্দায় দুই চেয়ারম্যানের বাকবিতন্ডার ঘটনা ঘটেছে। তবে অস্ত্র প্রদর্শনের বিষয়ে আমি কিছু জানি না।

Previous articleএক কমিটিতেই বাকৃবি ছাত্রলীগের ৬ষ্ঠ বর্ষে পদার্পণ
Next articleবঙ্গবন্ধু পরিবারকে এসএসএফ নিরাপত্তা দিতে বিল পাস
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।