আব্দুদ দাইন: তৃতীয় ধাপ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে পাবনার সাঁথিয়ার নাগডেমড়া ইউনিয়নে নৌকা ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে উভয় পক্ষে অন্তত ২০জন আহত হয়েছে।

সংঘর্ষের সময় দোকানপাট ও বাড়িঘর ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। সোমবার সন্ধ্যা রাতে নাগডেমড়া ইউনিয়নের সোনাতলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ ৬জন আটক করে। মঙ্গলবার সকালে আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে জেল হাজতে পাঠানো হয়। নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থী হারুন অর রশিদ অভিযোগে বলেন, সোমবার নাগডেমড়া ইউনিয়নের পার্শ্ববর্তী হাড়িয়া গ্রামে ওঠোন বৈঠক শেষে তাঁর কর্মী সমর্থকেরা সোনাতলা বাজারে এলে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকেরা নৌকার কর্মীদের উপর দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা করে ১৩জন নেতা কর্মীকে গুরুতর জখম করে। পরে তাদের উদ্ধার করে সাঁথিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় একজনকে পাবনা স্থানান্তর করা হয়েছে। অপরদিকে স্বতন্ত্র চেয়াম্যান প্রার্থী হাফিজুর রহমান হাফিজ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, সোমবার সন্ধ্যায় দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে নৌকার সমর্থকেরা তার সমর্থেকদের উপর অতর্কিত হামলা করে ৭জন নেতা কর্মীকে গুরুতর জখম করে। এ সময় তারা ৫টি বাড়িঘর ও ৩টি দোকান-পাট ভাংচুর করে নগদ অর্থ লুট করে নিয়ে যায়। আহতদের সাঁথিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদের মধ্যে আব্দুস সালামের অবস্থা গুরুতর হলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সাঁথিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি)আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম বলেন, উভয় পক্ষের মামলা হয়েছে এবং ৬জনকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

Previous articleবঙ্গবন্ধু পরিবারকে এসএসএফ নিরাপত্তা দিতে বিল পাস
Next articleইউএনও অফিসে দেখা হতেই ২ চেয়ারম্যানের মারামারি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।