মোঃ জালাল উদ্দিন: মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনে থাকা সেই মেছো বিড়ালটি আবারও বাচ্চা প্রসব করেছে। শুক্রবার ১৯ নভেম্বর ২০২১ইং, ভোরে একটি বাচ্চা প্রসব করে মা মেছো বিড়াল। বাচ্চাটি পুরোপুরি সুস্থ রয়েছে।

এ নিয়ে চতুর্থ বারের মতো ছয়টি বাচ্চা প্রসব করল মেছো বিড়ালটি। প্রত্যেকটি বাচ্চা প্রাপ্ত বয়স্ক হলেই অবমুক্ত করে দেয়া হয়েছে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে। সর্বশেষ মেছো বিড়ালের এ বাচ্চাটিকে প্রাপ্ত বয়স্কের আগেই অবমুক্ত করার কথা জানিয়েছেন সেবা ফাউন্ডেশনের পরিচালক।

বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের পরিচালক স্বপন দেব সজল জানান, আট বছর আগে শ্রীমঙ্গল ভূনবীর এলাকার একটি ধান ক্ষেতে অগ্রাহায়ণ মাসেই দুটি মেছো বিড়ালের বাচ্চা পড়ে থাকার খবর পাওয়া যায়। খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে বাচ্চা দুটিকে উদ্ধার করে নিয়ে আসেন। তখনও বাচ্চা দুটির চোখে ভালোভাবে ফুটেনি। সেই থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত বাচ্চা দুটি বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনেই ছিল। প্রাণীর জোড়াটি প্রাপ্তবয়স্ক হলে প্রথম বছর দুটি বাচ্চা প্রসব করে। পরবর্তী বছর একটি এবং এর পরের বছর আরও দুটি বাচ্চা প্রসব করে। আর চলতি বছরও একটি বাচ্চা প্রসব করেছে মা মেছো বিড়াল।

সজল দেব জানান, মা মেছো বিড়ালটি বাচ্চাকে আদরে আগলে রেখেছে। হারানোর ভয়ে কখন কখনও বাচ্চাকে মুখে নিয়েও রাখছে। বাবা মেছো বিড়ালটিকে আলাদা খাঁচায় রাখা হয়েছে। কারণ বাবা বাচ্চাটি হাতের নাগালে পেলে হত্যা করে খেয়েও ফেলতে পারে। কয়েক বছর আগে এমনিভাবেই একটি বাচ্চাকে খেয়ে ফেলেছিল বাবা মেছো বিড়াল।

বছরের শেষে এসেও বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনে নতুন অতিথি আসায় আনন্দ বিরাজ করছে বলেও জানান তিনি।

মেছো বিড়াল সম্পর্কে বাংলাদেশ বন বিভাগের বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ কর্মকর্তা জোহরা মিলা বলেন, প্রাণীটির প্রকৃত নাম মেছো বিড়াল ( Fishing Cat:মাছ ধরার বিড়াল )। কিন্তু অনেক এলাকায় এটিকে মেছোবাঘ নামেও ডাকে। বাঘ নামে ডাকার কারণে শুধু শুধু আতঙ্ক ছড়িয়েছে। প্রাণীটি মানুষকে আক্রমণ করে না, বরং মানুষ দেখলে পালিয়ে যায়। তাই এটি নিয়ে ভীত হওয়ার কিছু নেই। বাংলাদেশের প্রায় সর্বত্রই এই প্রাণীটি বিচরণ রয়েছে। জলাভূমি আছে এমন এলাকায় বেশি দেখা যায়। প্রাণীটি জলাভূমির মাছ, ব্যাঙ, কাঁকড়া ছাড়াও পোকামাকড় ও ইঁদুর খেয়ে কৃষকের উপকার করে। জনবসতি স্থাপন, বন ও জলাভূমি ধ্বংস, পিটিয়ে হত্যা ইত্যাদি কারণে বিগত কয়েক দশকে এই প্রাণীটির সংখ্যা আশঙ্কাজনকভাবে হ্রাস পেয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ২০০৮ সালে মেছো বিড়ালকে বিপন্ন প্রাণী প্রজাতির তালিকায় অর্ন্তভুক্ত করেছে আইইউসিএন। তাছাড়া বন্যপ্রাণী আইন-২০১২ অনুযায়ী এই প্রজাতি সংরক্ষিত। তাই এই প্রাণীটি হত্যা বা এর কোনো ক্ষতিকরা শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

Previous articleসাপাহারে খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় দোয়া-মাহফিল অনুষ্ঠিত
Next articleশিবগঞ্জে আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।