বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুলাদীতে ভুয়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নামে এক সংখ্যালঘু বৃদ্ধের জমি দখলের চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার চরকালেখান ইউনিয়নের মৃত মহেন্দ্র চন্দ্র হালদারের ছেলে যোগেশ চন্দ্র হালদার এই অভিযোগ করেন।

ওই ইউনিয়নের চরকালেখান গ্রামের মৃনাল কান্তি তালুকদার ও তার লোকজন ওই বৃদ্ধের জমি দখলের চেষ্টা চালাচ্ছেন। জমি রক্ষার জন্য যোগেশ চন্দ্র হালদার গত ২১ নভেম্বর বিকেলে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে আবেদন জানিয়েছেন। সত্তরোর্ধ বৃদ্ধের দাবি, প্রয়োজন না থাকলেও এলাকার একটি মহল তাঁর জমিতে প্রাথমিক বিদ্যালয় করতে চাইছে। ওই জমিতে চাষাবাদ করেই তিনি সংসারে খরচ চালান। শেষ সম্বল জমিতে বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা হলে তাকে পথে বসতে হবে। জানা গেছে, ১৯৮৯ সালে চরকালেখান নমরহাট বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নামে একটি স্কুল প্রতিষ্ঠিত হয়। ওই বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক হিসেবে চাকুরি দেওয়ায় শর্তে ১০ শতাংশ জমি দান করেন যোগেশ চন্দ্র হালদার। বিদ্যালয়ের নামে জমি দেওয়ার সময় দলিলে উল্লেখ করা হয়, বিদ্যালয় একেবারে বন্ধ হলে জমি দাতা ও তার ওয়ারিশগন জমি ভোগদখল করতে পারবেন।

যোগেশ চন্দ্র হালদার জানান, ১৯৮৯ সাল থেকে ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত আমি ওই বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেছি। বিদ্যালয়টি প্রয়োজনীয় না হওয়ায় শিক্ষা কর্মকর্তা ও সংশ্লিষ্টরা অনুমোদন না দেওয়ায় পরবর্তীতে বন্ধ হয়ে যায়। বিদ্যালয় বন্ধ হয়ে গেলে আমি জমিতে চাষাবাদ করছি। বর্তমানে আমার বয়স ৭০ বছরের বেশি। কিছুদিন ধরে এলাকার মৃনাল কান্তি নান্টু তালুকদার ও তার লোকজন ওই জমি দখল করে বিদ্যালয় করতে চাইছে। বিদ্যালয়টি করা হলে আমাকে পথে বসতে হবে। এ ব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা জাকিরুল হাসান বলেন, যোগেশ চন্দ্র হালদারের অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Previous articleচতুর্থ ধাপের ইউপি নির্বাচনে আ.লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা
Next articleময়মনসিংহ কোতোয়ালী মডেল থানার বিশেষ অভিযানে গ্রেফতার ১১ জন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।