ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে ভোট প্রদানে বাধ্য করা, অন্যান্য এজেন্টদের ভয়ভীতি-হুমকি প্রদান, বহিরাগতদের অনুপ্রবেশ, প্রশাসনের অসহযোগিতাসহ নানা অনিয়মের অভিযোগে ভোট বর্জন করেছেন আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী সামিউল হক লিটন। মোবাইলফোন প্রতীকের প্রার্থী সামিউল হক লিটন মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) বিকেল ৩টায় ভোটগ্রহণ শেষের ১ ঘন্টা আগে শান্তিমোড়স্থ নিজস্ব বাসভবনে সংবাদ সম্মেলনে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন।

সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সামিউল হক লিটন বলেন, নৌকা প্রতীকের প্রার্থী সকাল থেকেই পৌর এলাকার বিভিন্ন কেন্দ্রে বহিরাগতরা অনুপ্রবেশ করিয়ে প্রভাব বিস্তার করে। বিভিন্ন পরিচয়ে বহিরাগতরা ভোট কক্ষ ও গোপন কক্ষের আশেপাশে অবস্থান নেয়। তারা নৌকা প্রতীকে ভোট দিতে ভোটারদের বাধ্য করে। এমনকি হাতের আঙুলের ছাপ নেয়ার পর ভোট হয়ে গেছে বলে ভোট কক্ষ থেকে বের করে দেন।

লিটন অভিযোগ করে বলেন, প্রচারণা চলাকালীন সময়ে আমার ২৪টি নির্বাচনী অফিস ভাংচুর করেছে। বারবার আমার কর্মী-সমর্থকদের প্রতি হামলা চালিয়েছে। বিভিন্ন সময়ে আমার ৬ জন সমর্থককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মারধর করা হয়েছে আরো ৫ সমর্থককে। এছাড়া ভোট কেন্দ্র থেকে আমার এজেন্টদের বের করে দেওয়া হয়েছে। এ কারণে আমি ভোট বর্জনের ঘোষণা দিচ্ছি।

তিনি আরো বলেন, তাজকেরাতুন প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্র পরিদর্শনে যাই, তখনও নৌকার সমর্থকরা আমাকে হেনস্থা করেছে। এ নির্বাচনে পুলিশ প্রশাসন আমাকে কোনো সহযোগীতা করেনি। ফলে আমি এ নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালাম।

সামিউল হক লিটন বলেন, আমার জীবনে এ রকম বিশৃঙ্খল নির্বাচন কখনোই দেখেনি। আমি একজন মেয়র প্রার্থী হিসেবে জনগণের কাছে উন্নয়নের কথা বলবো। কিন্তু নৌকার সমর্থকরা এমন আচরণ করেছে যে, আমাকে বাড়ি থেকে বের হতে দেবেনা। বের হলেই আমাকে মারবে, ধরবে। আমি পৌরসভার মেয়র হতে পারলাম না, কিন্ত জনগণের কাছে মেয়র মনোনীত হয়েছি।

সীমানা জটিলতায় স্থগিত হওয়া চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার ভোটগ্রহণ হয় মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর)। সকাল ৮টা ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে বিরতিহীনভাবে ভোটগ্রহণ চলে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। ১৫টি ওয়ার্ডের ৭২টি ভোটকেন্দ্রে প্রথমবারের মতো ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন-ইভিএমে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সকাল থেকেই নারী ও পুরুষ ভোটারদের দীর্ঘ সারি দেখা গেছে।

গত ০২ নভেম্বর চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার ভোট অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ২৬ অক্টোবর সীমানা জটিলতায় হাইকোর্টে একটি রিটের প্রেক্ষিতে ভোটগ্রহণ স্থগিত করে নির্বাচন কমিশন। পরে হাইকোর্টের নির্দেশে মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) ভোটগ্রহণের দিন নির্ধারণ করে নির্বাচন কমিশন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৪ জন প্রার্থী। তারা হলেন- নৌকা প্রতীকে জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য মোখলেসুর রহমান, মোবাইলফোন প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র হিসেবে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী শামিউল হক লিটন, নারিকেল গাছ প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. নজরুল ইসলাম ও জগ প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক শিবির নেতা মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল।

এছাড়াও ১৫টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ৯৮ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ২১ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভায় এবার ভোটার রয়েছেন ১ লাখ ৪৫ হাজার ৪৯৭ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৭১ হাজার ৪৩২ জন এবং নারী ভোটার রয়েছেন ৭৪ হাজার ৬৫ জন।

তফসিল অনুযায়ী সপ্তম ধাপে পৌরসভা নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন ছিল ৯ অক্টোবর। মনোনয়নপত্র বাছাই ১১ অক্টোবর, বাছাইয়ের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল দায়ের ১২ থেকে ১৪ অক্টোবর, আপলি নিষ্পত্তি ১৬ অক্টোবর, প্রার্থিতা প্রত্যাহার ১৭ অক্টোবর, প্রতীক বরাদ্দ হয় ১৮ অক্টোবর।

Previous articleময়মনসিংহ কোতোয়ালী মডেল থানার অভিযানে নারীসহ গ্রেফতার ২
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে এনজিও’র ঋণের দায়ে একজনের আত্মহত্যা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।