বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুলাদীতে শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বরাদ্দ ছাড় করণে টাকা নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা এস.এম জাকিরুল হাসান বিদ্যালয়ের রক্ষণাবেক্ষন, ক্ষুদ্র মেরামত, ওয়াস ব্লকসহ বিভিন্ন কাজে প্রতিষ্ঠান প্রধানদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে ফাইলে স্বাক্ষর করেছেন বলে অভিযোগ করেছেন শিক্ষকরা।

টাকা ছাড়া কোনে ফাইলে স্বাক্ষর করেননি তিনি। স্বাক্ষর ও ফাইল ছাড় করনে বিদ্যালয় প্রতি ৬ থেকে ১০ হাজার টাকা নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে এই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। এনিয়ে উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা নোটিশের স্বাক্ষরে অগ্রিম তারিখ দিয়ে শিক্ষকদের বিভ্রান্ত ও হয়রানি করছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। জানা গেছে, ২০২১-২০২২ অর্থ বছরে উপজেলার ১৩৭ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রক্ষণাবেক্ষন, ক্ষুদ্র মেরামত, ওয়াসব্লক, ক্রীড়া সামগ্রী বরাদ্দসহ বিভিন্ন খাতে টাকা ৪০ হাজার থেকে ২ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বরাদ্দ দেওয়া হয়। বরাদ্দকৃত এসব টাকা ছাড়করণের জন্য উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও উপজেলা প্রকৌশল দপ্তরের কর্মকর্তাদের স্বাক্ষর ও অনুমোদনের প্রয়োজন হয়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একাধিক প্রধান শিক্ষক জানান, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও তার কার্যালয়ের খরচের জন্য বিদ্যালয় ভেদে ৬ থেকে ১০ হাজার টাকা নিয়ে স্বাক্ষর করে ফাইল ছেড়েছেন। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকরা শতভাগ কাজ করে বিপাকে পড়েছিলেন। ফাইল ছাড় না হলে তারা টাকা উত্তোলন করতে পারছিলেন না। তাই বাধ্য হয়েই শিক্ষা কর্মকর্তা ও উপজেলা প্রকৌশল দপ্তরে টাকা দিয়ে ফাইলে স্বাক্ষর নিয়েছেন। যেসকল বিদ্যালয়ে ২ লক্ষ টাকা বরাদ্দ হয়েছে তাদের কমপক্ষে ৮ থেকে ১০ হাজার, দের লক্ষ টাকা ছাড় করণের জন্য ৭ থেকে ৮ হাজার এবং এক লক্ষের নিচের বরাদ্দের জন্য ৬ হাজার টাকা নিয়েছেন। বিদ্যালয়গুলো থেকে শিক্ষা কর্মকর্তা ও প্রকৌশল দপ্তরের খরচের জন্য কমপক্ষে ১০ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেন শিক্ষকরা।

এছাড়া শিক্ষা কর্মকর্তা এসএম জাকিরুল হাসান তাদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ২৪ ডিসেম্বর ২০২১ তারিখে স্বাক্ষরিত একটি নোটিশ দিয়েছেন। নভেম্বর মাস শেষ না হতেই ডিসেম্বর মাসের তারিখ স্বাক্ষরিত নোটিশে প্রধান শিক্ষকদের মাঝে বিভ্রান্তি দেখা দিয়েছে। একজন শিক্ষা কর্মকর্তার এধরণের কর্মকান্ডের সমালোচনা করেছেন তারা। এব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা এস এম জাকিরুল হাসান প্রধান শিক্ষকদের কাছ থেকে ঘুষ গ্রহণের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, বিদ্যালয়ের রক্ষণাবেক্ষন, ক্ষুদ্র মেরামত কিংবা ওয়াসব্লকের কাজের জন্য কারও কাছ থেকে

কোন টাকা নেওয়া হয়নি। এছাড়া নোটিশে ২৪ নভেম্বর ২০২১ এর স্থলে ভুলবশত ২৪ ডিসেম্বর ২০২১ তারিখ দেওয়া হয়েছে।

Previous articleকোম্পানীগঞ্জে চোরাই মোটরসাইকেলসহ গ্রেফতার ২
Next articleশাহজাদপুরে জুয়েলারি কারখানায় ডাকাতি, ১৫ লাখ টাকার মালামাল লুট
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।