গিয়াস কামাল: ৫ম ধাপে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সোনারগাঁওয়ে ১টি ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আসছে ২৬ ডিসেম্বর। এই নির্বাচনকে সামনে রেখে গত রবিবার রাতে উক্ত বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের নৌকা মার্কার একটি ক্যাম্পে সাটানো নৌকা প্রতিক পোড়ানোর ঘটনাকে কেন্দ্র করে ২৯ জনের নাম উল্লেখ করে সোনারগাঁও থানায় মামলার জন্য একটি অভিযোগ পত্র দাখিল করা হয়েছে। তবে অভিযোগ দায়ের করা হলেও এখন মামলা রুজু হয়নি বলে জানিয়েছেন বাদী বাচ্চু মিয়া।

অভিযোগ পত্রে বাচ্চু মিয়া উল্লেখ করেন, আমার ভাই আল আমিন সরকার আসন্ন বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মনোনীত নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে অংশ গ্রহণ করবেন। আমি আমার ভাইয়ের পক্ষ নিয়ে নির্বাচনে প্রচারনা চালিয়ে থাকি। নির্বাচনে প্রচারনার স্বার্থে নিয়ম মেনে দামোদরদী একটি অস্থায়ী নৌকার ক্যাম্প তৈরী করি। অপরদিকে আমার ভাইয়ের প্রতিদ্ধন্ধী আনারস মার্কার প্রতীকে মাহবুব সরকার এবং ঘোড়া প্রতীকের প্রার্থী ডাঃ আঃ রব এর সমর্থকেরা আমার ভাই সহ তার কর্মীদের বিভিন্ন সময় নির্বাচনী প্রচারনার কাজে বাধা প্রদানসহ হুমকি দিয়ে আসছিল। আমি ও আমার ভাইয়ের সমর্থকেরা নৌকা প্রতীকের পক্ষ নিয়া এলাকায় প্রচারনাকালে আমার ভাইয়ের প্রতিদ্ধন্ধী প্রার্থীগণ সহ তাদের কর্মীগণ আমাদের দেখে নিবে হুমকি সহ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সকল এলাকায় মহড়া দেয় যাতে নৌকা প্রতীকের কোন সমর্থক রাস্থাঘাটে প্রচারনা চালাতে আসতে না পারে। তারই ধারাবাহিকতায় গত রবিবার রাতে নৌকার ক্যাম্প ভাংচুরসহ নৌকা প্রতীক আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়া হয়। এ ঘটনায় ২৯ জনের নাম উল্লেখ করে সোনারগাঁও থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এ ব্যাপারে সোনারগাঁও থানা পুলিশ জানান, নৌকা প্রতীক পোড়ানোর ঘটনায় অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত করে মামলা দায়ের করা হবে।

Previous articleজনগণ না চাইলে বিদেশী শক্তি সরকারকে রক্ষা করতে পারে না: গয়েশ্বর
Next articleসোনারগাঁওয়ের কাঁচপুরের শীতলক্ষ্যা নদী থেকে অজ্ঞাত ব্যক্তির বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।