তাবারক হোসেন আজাদ: রোববার লক্ষ্মীপুরের সদর উপজেলার ১৫টি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। তার মধ্যে অন্তত ৯টিতে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের আনাগোনা লক্ষ করা যাচ্ছে। তারা পছন্দের প্রার্থীকে জয়ী করতে কেন্দ্র দখলের পরিকল্পনা করেছে। একটি গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদনেও এই তথ্যের সত্যতা পাওয়া গেছে।

১৫টি ইউনিয়নে মোট ৭৯ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী। সব কয়টি ইউনিয়নে একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন। এরই মধ্যে ১৯ চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীকে দল থেকে বহিস্কার করেছে জেলা আওয়ামী লীগ।

সন্ত্রাসীদের এই দাপট, অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহার ও রক্তাক্ষয়ি সংঘর্ষ হওয়ার আশঙ্কা করছেন ভোটাররাও। এর আগে গত ২৮ নভেম্বর ভোটে রামগঞ্জের ইছাপুরে নির্বাচনী সহিংসতায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীর এজেন্টসহ দুজনের মৃত্যু হয়েছে।

সদর উপজেলার বশিকপুর, চরশাহী, হাজীরপাড়া, দত্তপাড়া, চন্দ্রগঞ্জ, ভবানীগঞ্জ, উত্তর হামছাদী, মান্দারী ও কুশাখালী ইউনিয়নে বহিরাগত সন্ত্রাসীদের আনাগোনা দেখা যাচ্ছে। চেয়ারম্যান প্রার্থীদের কাছে সন্ত্রাসীদের বেশ কদর রয়েছে বলে জনশ্রুতি রয়েছে।

বশিকপুর ইউপির স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মাহফুজুর রহমান ও তাঁর কর্মীদের শুক্রবারের মধ্যে এলাকা ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছেন পুলিশের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী আবুল কাশেম জেহাদী। তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান। তাঁর বিরুদ্ধে ইউপি চেয়ারম্যান নুর হোসেন শামীম হত্যাসহ সাতটি মামলা রয়েছে। মাহফুজুরের নির্বাচনী কার্যালয়ে তালা, নেতাকর্মীদের মারধর, সহযোগী সন্ত্রাসীদের নিয়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে হুমকি দেওয়ার ঘটনায় কাশেমকে শুক্রবার কারণ দর্শাতে বলেছেন রিটার্নিং অফিসার।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, এরই মধ্যে কুশাখালী ইউপিতে প্রচারের সময় স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ছালেহ উদ্দিন মানিক, ভবানীগঞ্জ ইউপি স্বতন্ত্র পদপ্রার্থী আবদুল হালিম মাস্টার ও দত্তপাড়া ইউপির স্বতন্ত্র প্রার্থী আমিনুল ইসলাম খান আজাদকে মারধর করা হয়। প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ প্রার্থী ও তাঁদের অনুসারীরা প্রকাশ্যে এ হামলা চালায়। গত বৃহস্পতিবার হাজীরপাড়া ইউপিতে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর অন্তত ২০ নেতাকর্মীকে মারধর করে কয়েকটি গাড়ি ভেঙে দেয় স্বতন্ত্র প্রার্থী বাবুল পাটওয়ারীর লোকজন। এসব ঘটনায় রিটার্নিং অফিসারের কাছে অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগ করা হয়েছে।

এ ছাড়া চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীরা ইচ্ছামতো প্রচার চালাচ্ছেন। এরই মধ্যে আচরণবিধি লঙ্ঘন করায় পাঁচটি অভিযানে এক লাখ ৯৪ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এ ছাড়া অন্য চেয়ারম্যান ও সদস্য প্রার্থীদের সতর্ক করা হয়।

বশিকপুরের মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘আবুল কাশেম জেহাদী এবং তাঁর অনুসারীদের হাতে বিপুলসংখ্যক অত্যাধুনিক অগ্নেয়াস্ত্র মজুদ রয়েছে। তিনি অস্ত্রধারী সহযোগীদের দিয়ে সকালেই ভোটকেন্দ্র দখল করার পরিকল্পনা করছেন।’
উত্তর হামছাদী ইউপির চেয়ারম্যান প্রার্থী নজরুল ইসলাম বলেন, ‘প্রতিদ্বন্দ্বী চেয়ারম্যান এমরান হোসেন নান্নু ও তাঁর অনুসারীরা প্রতিদিন এলাকায় মহড়া দিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করছে। তারা আমার প্রচারে বাধা, বহিরাগতদের দিয়ে ভোট কেটে নেওয়ার হুমকি দিচ্ছে।’

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্বতন্ত্র পাঁচজন চেয়ারম্যান প্রার্থী জানান, আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের সঙ্গে চুক্তি করেছেন। তাঁরা ভোটের দিন কেন্দ্র ও আশপাশে অবস্থান নেবে।

ভবানীগঞ্জ ইউপির মামুনুর রশিদ ভূঁইয়া বলেন, ‘আওয়ামী লীগ প্রার্থীর লোকজন ভোটারদের আঙুল চাপ নিয়ে বুথ থেকে বের করে দেবে। পরে তাঁরা নৌকা প্রতীক টিপে ভোট দেবে বলে প্রচার চালাচ্ছে।’

সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা স্বপন কুমার ভৌমিক বলেন, ‘প্রতিদিনই প্রার্থীদের বিভিন্ন অভিযোগ আসছে। বিষয়গুলো তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।’

চন্দ্রগঞ্জ থানার ওসি এ কে ফজলুল হক বলেন, চরশাহী, দত্তপাড়া ও বশিকপুরের পাশের থানার ওসিদের সঙ্গে কথা হয়েছে। বহিরাগত কেউ যেন ঢুকতে না পারে।

লক্ষ্মীপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. আনোয়ার হোছাইন আকন্দ বলেন, ‘আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে কয়েক স্তরের নিরাপত্তা থাকবে।’

Previous articleসীতাকুণ্ডে শিপ ইয়ার্ডে বিস্ফোরণ, ৪ শ্রমিক দগ্ধ
Next articleশেষ গোসল ছাড়াই জানাজা দিয়ে ২৭ লাশ দাফন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।