স্বপন কুমার কুন্ডু: ‘জীবনে অনেক কষ্ট করছি। খেঁটেখুটে খাওয়ার যোগাড় করতে পারলেও বানের পানির মতো ভেসে বেড়াতি হতো। মাথা গোঁজার কোন ঠাঁই ও ঠিকানা ছিলো না। আশ্রায়ণ প্রকল্পে এখন মাথাগোঁজার ঠাঁই পেয়ে শান্তিতে আছি। শেখের বেটি হাসিনার কারণে দিনের পরিশ্রম শেষে নিশ্চিন্তে নিজের ঘরে মাথা গুজতি পারছি। এখন আর কারো লাত্থি-গুঁতা খাতি হয় না। তাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য অন্তর থেকা দোয়া করতাছি। তিনি যেন সুস্থ ও সবল থাকেন।’

শনিবার (২৫ ডিসেম্বর) প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিন ঈশ্বরদীর বহরপুরে মুজিববর্ষে নির্মিত আশ্রয়ণ প্রকল্প পরিদর্শনকালে জমিসহ নিজের মাথাগোঁজার ঠিকানায় বসবাসকারী উপকার ভোগীরা এভাবেই তাদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। একান্ত সচিব মুলাডুলি ইউনিয়নের বহরপুর এলাকায় ভূমি ও গৃহহীনদের জন্য তৈরি করা প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহারের ঘর পরিদর্শন করেন এবং বসবাসকারীদের সাথে কথা বলেন।

এসময় পাবনা জেলা প্রশাসক বিশ্বাস রাসেল, অতিরিক্ত জেলা প্রসাষক শিমুল আকতার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পি. এম. ইমরুল কায়েস, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তৌহিদুল ইসলামসহ অন্যান্য কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন ।

নির্মিত ও নির্মাণাধীন বাড়িগুলোর নির্মাণশৈলী, গুণগতমান এবং অনুমোদিত ডিজাইন অনুযায়ী নির্মিত হয়েছে কি না তা যাচাই করে একান্ত সচিব সন্তোষ প্রকাশ করেন। বসবাসকারী উপকারভোগী পরিবারের কোনো সমস্যা হচ্ছে কি না, সে বিষয়েও তিনি জানতে চান। একান্ত সচিব বলেন, পৃথিবীর কোন দেশেই ভূমিহীনদের জন্য এভাবে বাড়ি-ঘর করে দেওয়া হয় না। বড় বড় বিল্ডিং করলে কিন্তু সুখ আসে না। সুখ আসে বন্ধুত্বে, সুখ আসে পারিবারিক বন্ধনে।

তিনি আশ্রয়ণ প্রকল্পে উপকারভোগীদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর পে উপহার শীত বস্ত্র ও কৃষি উপকরণ সামগ্রী বিতরণ করেন।

Previous article‘বাংলাদেশে খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের শান্তিপূর্ণ সহ-অবস্থান আমাদের জন্য দৃষ্টান্ত’
Next articleসেনাপ্রধানের কক্সবাজার খুরুশকুল বিশেষ আশ্রয়ণ প্রকল্প পরিদর্শন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।