ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলার চারটি ইউনিয়নের সবগুলোতেই চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের ভরাডুবি হয়েছে। চারটি ইউনিয়নের মধ্যে নৌকার কোন প্রার্থী জয়লাভ করতে পারেননি। চার ইউনিয়নের তিনটিতেই তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে নৌকা।

তিন ইউনিয়নে স্থানীয় বিএনপি সমর্থিত ও একটিতে জামায়াত সমর্থিত প্রার্থী বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। রবিবার (২৬ ডিসেম্বর) রাতে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন নাচোল উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা রোকাব আলী দেওয়ান। নাচোল উপজেলার কসবা ছাড়া বাকি ৩ ইউনিয়ন নাচোল সদর, ফতেপুর ও নেজামপুর ইউনিয়নে তৃতীয় স্থানে রয়েছে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী।

রিটার্নিং কর্মকর্তা সূত্রে জানা যায়, নাচোল উপজেলার কসবা ইউনিয়নে বেসরকারিভাবে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে চশমা প্রতীকে জাকারিয়া আল মেহরাব চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ১১০৯০ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আজিজুর রহমান পেয়েছেন ৯৪৭৭ ভোট। আজিজুর রহমান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান চেয়ারম্যান। আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী সোলাইমান আলী আনারস প্রতীকে পেয়েছেন ২২৫ ভোট।

ফতেপুর ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান সাদির আহম্মেদ ভুলু পুনরায় নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ৭২৬৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আবুল হোসেন ঘোড়া প্রতীকে পেয়েছেন ৬৮২৩ ভোট। নৌকা প্রতীকে ৬৪৫১ ভোট পেয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে ইসমাইল হক অপু। চশমা প্রতীকের আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুস সাত্তার পেয়েছেন ১৫৩ ভোট। এই ইউনিয়নে দ্বিতীয় স্থানে থাকা স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল হোসেন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেন।

নাচোল সদর ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে ৯১৯১ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী সফিকুল ইসলাম। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মেসবাউল গনি চশমা প্রতীকে পেয়েছেন ৭৮৬৩ ভোট। নৌকা প্রতীক নিয়ে কাবুল হোসেন পেয়েছেন ৫০৮৪ ভোট৷ আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী ফাইজুদ্দিন ঘোড়া প্রতীকে পেয়েছেন ১১৫ ভোট।

নেজামপুর ইউনিয়নে তিন জন চেয়ারম্যান প্রার্থী অংশ নেয়। এখানে পুনরায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন আমিনুল হক। মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে স্থানীয় জামায়াত সমর্থিত এই স্বতন্ত্র প্রার্থী পেয়েছেন ৬৩০২ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আব্দুল আওয়াল আনারস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৬১১৫। নৌকা প্রতীকে ৬০৩৪ ভোট নিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছেন নজরুল ইসলাম।

এবিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সাবেক এমপি মুহা. জিয়াউর রহমান বলেন, ফলাফল প্রকাশের পর থেকেই এনিয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে। নৌকা প্রতীকের ভরাডুবির বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। পরাজয়ের সঠিক কারন খুঁজে বের করতে আমরা কাজ করছি।

নাচোল উপজেলার ৪টি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী নির্বাচন নিয়ে তিনি আরও বলেন, জেলা বা উপজেলা আওয়ামীলীগ প্রার্থী নির্বাচনের সাথে সম্পৃক্ত নয়। কারন আমরা শুধু ঢাকায় মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রার্থীদের জীবন বৃত্তান্ত ও ফরম পাঠিয়েছি। প্রার্থী নির্বাচনের বাকি পুরো বিষয়টি ঢাকা থেকেই হয়েছে। বিষয়গুলো খতিয়ে দেখে আগামী দিনে যাতে নৌকার এমন পরাজয় না ঘটে, সেবিষয়ে সিধান্ত নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

রবিবার (২৬ ডিসেম্বর) জেলার নাচোল ও ভোলাহাট দুই উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। এদিকে, ভোলাহাটে ভোট শেষের আগ মুহুর্তে জাল দেয়ার কারণে ব্যালট পেপার শেষ হয়ে যায়। ফলে রিটার্নিং কর্মকর্তা তিনটি ইউনিয়নের ৫ টি কেন্দ্রে সাময়িক ভোট গ্রহণ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়। পরিস্থিতি স্বভাবিক না হলে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ওই ৫ কেন্দ্রে ভোট বাতিল করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোতাওয়াক্কিল রহমান।

Previous articleরাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের জনপ্রিয় অধ্যাপক ফারুক আর নেই
Next articleমার খেয়েও মামাকে জেতাতে পারলেন না রাব্বানী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।