জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুর উপজেলায় পঞ্চম ধাপের নির্বাচন আর মাত্র বাকী ৩ দিন। নির্বাচনের শেষ মুর্হুতে পাল্টে যাচ্ছে উপজেলার নির্বাচনী মাঠের পরিস্থিতি। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর অবস্থানে হঠাৎ করেই বদলে যাচ্ছে ইউপি ভোটের হালচাল। মাঠ দখল রাখতে চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের হানাহানি রুখতে ইউনিয়নগুলোয় টহল দিচ্ছে পুলিশ। ফলে আওয়ামী লীগের বিরোধ থেকে সৃষ্ট সংঘাতের লাগামে কিছু মাত্রায় হলেও টান পড়েছে।

পুলিশ টহলের মুখে সংঘাত-সংঘর্ষ এড়িয়ে চলছে উভয় পক্ষ। উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানাগেছে, ৫ জানুয়ারী শুরু হচ্ছে পঞ্চম ধাপের নির্বাচন। নির্বাচন সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষা করার লক্ষে ১১টি ইউনিয়নের প্রত্যেক ভোট কেন্দ্রে অফিসারসহ ২জন কনেষ্টবল, ১৫ জন আনসার সদস্য ও ইউনিয়নে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করবেন। এ ছাড়া এডিশনাল এসপিসহ একাধিক পুলিশের টিম টহলে থাকবেন। অতিরিক্ত ২ প্লাটন র‌্যাব, ২ প্লাটন বিজিবি সদস্যরা সর্বদয় নির্বাচনী সংঘাত ঠেকাতে মাঠে থাকবেন। সূত্রে আরো জানাগেছে, কেশবপুর উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন ৪৮ জন প্রার্থী। সংরক্ষিত আসনে ১২২ জন ও সদস্য পদে ৩৯৩ জন। নির্বাচনে এক লাখ ৮৫ হাজার ৯৬৫ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার রয়েছে ৯৪ হাজার ২০৮ জন আর নারী ভোটার রয়েছেন ৯১ হাজার ৭৫৭ জন।

উপজেলা নির্বাচন অফিস সুত্রে জানাগেছে, ১নং ত্রিমোহিনী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৫ জন। আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থী শেখ অহেদুজ্জামান। জাহাঙ্গীর আলম খান সুজন আব্বাজ আলী, আনিছুর রহমান ও শেখ কবীর আলমগীর প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছেন এবং সংরক্ষিত আসনে ১২ জন ও সাধারণ সদস্য পদ ৩২ জন। ২নং সাগরদাঁড়ী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৬ জন। আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থী অলিয়ার রহমান। ইসমাইল হোসেন (ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ), আমানত আলী, আকরাম খান, কাজী মুস্তাফিজুল ইসলাম ও শাহাদত হোসেন(স্বতন্ত্র)। সংরক্ষিত আসনে ১২ ও সাধারণ সদস্য পদে ৩৬ জন। ৩নং মজিদপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৩ জন। আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থী মনোজ তরফদার। আব্দুল লতিফ খান (ইসলামী আন্দোলন) ও হুমায়ুন কবীর পলাশ(স্বতন্ত্র)। সংরক্ষিত আসনে ১৩ ও সাধারণ সদস্য পদে ৩৬ জন। ৪ নং বিদ্যানন্দকাটি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪ জন। আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থী সামছুর রহমান। হযরত আলী হাতপাখা (ইসলামী আন্দোলন), কে এম খলিলুর রহমান (মোটর সাইকেল)ও আমজাদ হোসেন (আনারস) (স্বতন্ত্র)। সংরক্ষিত আসনে ১১ ও সাধারণ সদস্য পদে ৩৪ জন। ৫ নং মঙ্গলকোট ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪ জন। আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থী আব্দুল কাদের বিশ্বাস। মিজানুর রহমান মোড়ল (ইসলামী আন্দেলন), এস এম কামরুজ্জামন ও মনোয়ার হোসেন (স্বতন্ত্র)। সংরক্ষিত আসনে ৯ ও সাধারণ সদস্য পদে ৩৮ জন। ৬ নং কেশবপুর সদর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৫ জন। আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থী গৌতম রায়(বর্তমান মেম্বর)। আনিছুর রহমান (ইসলামী আন্দোলন)। অধ্যাপক মোঃ আলাউদ্দিন আলা, এ্যাড. আয়ুব আলী ও জাহাঙ্গীর আলম (স্বতন্ত্র)। সংরক্ষিত আসনে ১২ ও সাধারণ সদস্য পদে ৩৪ জন। ৭ নং পাঁজিয়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪ জন। আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থী জসিম উদ্দিন। আবুল হামিদ (ইসলামী আন্দোলন)। মকবুল হোসেন মুকুল ও মিহির কুমার বসু (স্বতন্ত্র)। সংরক্ষিত আসনে ৮ ও সাধারণ সদস্য পদে ৩৬ জন। ৮ নং সুফলাকাটী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪ জন। আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থী গোলাম কিবরিয়া মনি। আব্দুল আহাদ (ইসলামী আন্দোলন)। এস এম মঞ্জুর রহমান ও মহি উদ্দিন (স্বতন্ত্র)। সংরক্ষিত আসনে ১০ ও সাধারণ সদস্য পদে ৩২ জন। ৯ নং গৌরীঘোনা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪ জন। আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থী এস এম হাবিবুর রহমান। এস এম আলিমুজ্জামান রানা, মাসুদুর রহমান ও শেখ রুবেল হাসনাত পাশা (স্বতন্ত্র)। সংরক্ষিত আসনে ১১ ও সাধারণ সদস্য পদে ৩৭ জন।

১০নং সাতবাড়িয়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৫ জন। আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থী শামছুন্নাহার বেগম। সাইফুল ইসলাম (ইসলামী আন্দোলন)। উত্তম কুমার ঘোষ, গোলাম মোস্তফা ও রেজাউল ইসলাম (স্বতন্ত্র)। সংরক্ষিত আসনে ১০ ও সাধারণ সদস্য পদে ৩৬ জন। ১১ নং হাসানপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যন পদে ৪ জন আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থী তৌহিদুজ্জামান। আব্দুল গফফার মোড়ল (ইসলামী আন্দোলন)। আলমগীর হোসেন ও মাহবুবর রহমান (স্বতন্ত্র)। সংরক্ষিত আসনে ১৪ ও সাধারণ সদস্য পদে ৪২ জন। উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বজলুর রশিদ সাংবাদিকদের বলেন, নির্বাচন কমিশন কর্তৃক ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী পঞ্চম ধাপে কেশবপুর উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে আগামী ৫ জানুয়ারী ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ বোরহান উদ্দিন বলেন, আইনশৃঙ্খলার চাঁদরে নির্বাচনী মাঠ থাকবে ঢাকা। নির্বাচনী তফশিল অনুযায়ী নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণার সুযোগ রয়েছে আর মাত্র একদিন। ৩ জানুয়ারি মধ্যরাত্রি থেকে কোন ধরণের প্রচার-প্রচারণার সুযোগ পাবেন না প্রার্থীরা। তাই শেষ মুর্হুতে ১৫টি ইউনিয়ন জুড়ে দিনভর চলছে পথসভা, প্রচার মিছিল, মাইকিং শো-ডাউন। প্রার্থীদের মতন কর্মী-সমর্থকরাও লিফলেট হাতে ভোটারদের দ্বারপ্রান্তে ছুটে চলেছেন বিরামহীন। শনিবার উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের দৃশ্যচিত্র ছিলো লক্ষ্যনীয়। উল্লেখ্য,পুলিশি তৎপরতার মুখে বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে সংঘাত পরিস্থিতি আগের চেয়ে কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এসেছে। নৌকা ও বিদ্রোহী প্রার্থীরা সমর্থকরা মারমুখি অবস্থান রয়েছে। তবে এই কঠোর অবস্থান আলগা হয়ে গেলে পরিস্থিতির ফের অবনতির আশঙ্কা করছেন ইউনিয়নের বাসিন্দারা। তাই ভোটের দিন পর্যন্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর তৎপরতার দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা। উপজেলা নির্বাচন অফিসার বজলুর রশিদ বলেন, সুষ্ঠ নির্বাচনের লক্ষ্যে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। নির্বাচনের কোন প্রকার অনিয়ম হলেই আইনগত ব্যবস্থা। তবে পুলিশের এরকম কঠোর অবস্থানের মধ্যেও বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অভিযোগ উঠেছে। নৌকার প্রার্থীর কর্মীরা স্বতন্ত্র প্রার্থী ও তাদের ভোটারদের ভয়ভীতি দেখানোসহ নির্বাচনী পরিবেশ নষ্ট করছেন বলে দাবি করেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।

উপজেলা নির্বাচনী আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভাপতি ও নির্বাহী কর্মকর্তা এম এম আরাফাত হোসেন জানান, অবাদ সুষ্ঠ নির্বাচনের লক্ষে যাযা করণীয় সেটা আমরা করবো। তবে নির্বাচনী সংঘাত ঠেকাতে কঠোর পদক্ষেপে রয়েছে প্রশাসন।

Previous articleপাঁচবিবিতে ছাত্রদলের ৪৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত
Next articleরংপুরে ৫৮টি উপজেলায় ৪ কোটি ৪৮লাখ ৬১হাজার ৬শ৮টি নতুন বই বিতরণ করা হবে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।