বাংলাদেশ প্রতিবেদক: গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার পদুমশহর ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডে (ডিমলা পদুমশহর) দুই মেম্বার প্রার্থী সমান ভোট পেয়েছেন। ওই ওয়ার্ডে মেম্বার প্রার্থী মশিউর রহমান রাজা (মোরগ) ও শাহিনুর ইসলাম টুকু (বৈদ্যুতিক পাখা) দুজনই ৫৪৪টি করে ভোট পেয়েছেন। দুজনেরই প্রাপ্ত ভোট সংখ্যা একই হওয়ায় কেউ বিজয়ী হননি। পুনঃভোট গ্রহণ হবে? নাকি অন্য কোনোভাবে বিজয়ী নির্ধারণ করা হবে- এ নিয়ে দুই প্রার্থী ও তাদের সমর্থকদের মাঝে বিরাজ করছে উৎকণ্ঠা।

পদুমশহর ইউনিয়নের ওই ওয়ার্ডের আমতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার নাজমুল হোসেন জানান, দুই মেম্বার প্রার্থীর প্রাপ্ত ভোট সমান হয়েছে। এ ফলাফল ঘোষণা দিয়ে এসেছি।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সৈয়দ আবু ছাইদ জানান, একই সমান ফলাফল বিষয়ে নির্বাচন কমিশনে লিখিতভাবে জানানো হবে। দেখা যাক কি সিদ্ধান্ত আসে। ওয়ার্ডটিতে মোট ৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে।

এদিকে বোনারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৬ নম্বর ওয়ার্ডে (কালপানি) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা বাবা-ছেলের কেউই ভোট যুদ্ধে বিজয়ী হতে পারেননি। ভোটের পরদিন থেকেই তারা ক্লান্ত শান্ত।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বাবা হাছেন আলী (মোরগ) ৩০৬ ভোট পেয়েছেন। ছেলে জয়নুল আবেদীন (ফুটবল) পেয়েছেন মাত্র ১৫ ভোট। আর ওই ওয়ার্ডে ৬৩৪ ভোট পেয়ে মেম্বার নির্বাচিত হয়েছেন আফতাব হোসেন (ঘুড়ি)। দুই বাবা-ছেলের যেকোরো একজন প্রার্থী হলে অনায়াসে নির্বাচিত হওয়া সম্ভব হতো বলে জানান, এলাকার সাধারণ ভোটাররা।

হাছেন আলী বলেন, ছেলে আমার বিপক্ষে ভোট করেছে, এতে আমার কোনো আপত্তি নেই। প্রশ্ন রেখে বলেন, তবে কি লাভ হলো?। একজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলে হয়তো বিজয়ী হওয়া যেত।

Previous articleকুষ্টিয়ায় মৃত্যুর ২৭ বছর পর কবর থেকে উঠল অক্ষত লাশ, এলাকায় উৎসুক জনতার ভিড়
Next articleসাপাহারে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল চালকের মৃত্যু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।