তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরে যুবদল নেতা আনোয়ার হোসেন হত্যা মামলার ৭ যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামীর রায় পুনঃবিবেচনা ও মুক্তির দাবীতে মানববন্ধন করেছেন স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতাকমীর্রা।

আজ শনিবার (৮ জানুয়ারী) দুপুরে সদর উপজেলার দত্তপাড়া বাজার এলাকায় দত্তপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের ব্যানারে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন তারা।

চাঞ্চল্যকর ইউনিয়ন যুবদল নেতা আনোয়ার হোসেন হত্যা মামলায় গত ৩ জানুয়ারী একই পরিবারের ৬জনসহ ৭জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দেয় আদালত। এ মামলায় ওই ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য আ’লীগ নেতা মো.আবদুল আজিজ মেম্বার ও তার ৫ ছেলেকে ষড়যন্ত্রমূলক ভাবে ফাঁসানো হয়েছে উল্লেখ করে আদালতের রায় পুনঃবিবেচনার দাবী করেছেন মানববন্ধনে উপস্থিত নেতাকর্মীরা।

দত্তপাড়া ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান এটিএম কামাল উদ্দিনের নেতৃত্বে আয়োজিত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহীম খলিল ইবু, আওয়ামী লীগ নেতা শাহজাহান কামাল, যুবলীগ নেতা মনির হোসেন রুবেল, মঞ্জুরুল হাসান টিটু, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি কাজী নিজাম, সাধারণ সম্পাদক আল আমিন গাজী প্রমূখ। এসময় উপস্থিত ছিলেন দত্তপাড়া কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি কাজী হিরন, সাধারণ সম্পাদক জহিরুর ইসলামসহ আ’লীগ নেতৃবৃন্দসহ বাজারের ব্যবসায়ী ও স্থানীয়রা।

এ সময় বক্তারা বলেন, ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি আনোয়ার হোসন হত্যার ঘটনার সময় সাজাপ্রাপ্ত আ’লীগ নেতা আজিজ মেম্বার বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান এটিএম কামাল উদ্দিনের সাথে অন্যত্র বসা ছিলেন। তাছাড়া তাঁর ৫ ছেলে সবুজ, বিপ্লব হোসেন বিপ্লব, ইব্রাহিম, মানিক ও ইসমাইল হোসেন ঘটনাস্থলেও উপস্থিত ছিলেন না। অথচ বিএনপি নেতৃবৃন্দের রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের কারণে অন্যায়ভাবে আজিজ মেম্বার ও তার ছেলেদের মামলায় ফাঁসানো হয়েছে। ওই মামলায় সঠিক স্বাক্ষীর অভাবে তারা যাবজ্জীবন সাজার আদেশ প্রাপ্ত হয়েছে। এতে আ’লীগের একটি পরিবার বিনা অপরাধে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। নিম্ন আদালতের এ রায়ের পুনঃ বিবেচনার জন্য উচ্চ আদালতে আপিল আবেদন করা হবে বলে জানান বক্তারা। একই সাথে পুনঃবিবেচনা পূর্বক আ’লীগ নেতা আজিজ মেম্বার ও তার ছেলেদের মুক্তির দাবীও জানান উপস্থিত নেতাকর্মীরা।

উল্লেখ্য, ২০১১ সালের ৪ জুন সন্ধ্যায় দত্তপাড়া বাজারে প্রায়াত ইউপি চেয়ারম্যান নুর হোসেন শামীমের নির্বাচনী কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি আনোয়ার হোসেনকে গুলি করে হত্যা করে জড়িতরা। সে ইউপি চেয়ারম্যান শামীমের ছোট ভাই। এ ঘটনায় পরের দিন দত্তপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক ইউপি সদস্য মো. আবদুল আজিজ মেম্বারকে প্রধান আসামী করে ২৫জনের নাম উল্লেখ করে সদর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন নিহতের বড় ভাই মো. আশেক ই এলাহী ওরফে বাবুল। মামলাটি প্রথমে সদর থানা পুলিশ তদন্ত করলেও পরে সিআইডি নোয়াখালীকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়। সিআইডি ওই মামলায় ১৮জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

গত সোমবার (৩ জানুয়ারী) দীর্ঘ শুনানী শেষে এবং ১৪ জনের সাক্ষ্য প্রমানের ভিত্তিতে আদালত আজিজ মেম্বার ও তার ৫ ছেলেসহ ৭জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দেন জেলা ও দায়রা জজ আদালত। জড়িত প্রমানিত না হওয়ায় মামলার অপর ১১ আসামীকে বেকসুল খালাশ দেয়া হয়। সাজাপ্রাপ্তদের মধ্যে ইসমাইল ও আবুল কাশেম মেম্বার বর্জেতমানে জেল হাজতে থাকলেও বাকী আসামীরা পলাতক রয়েছেন। জেল হাজতে থাকা ইসমাইল গত ২৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দত্তপাড়া ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ড থেকে বিপুল ভোটে ইউপি সদস্য নির্বাচিত হন।

Previous articleজয়পুরহাটে প্রতিবন্ধীদের মাঝে হুইল চেয়ার ও কম্বল বিতরণ
Next articleসিলেট বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টা, আটক ২
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।