বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বগুড়ায় দলীয় কোন্দল ও আধিপত্য বিস্তার কেন্দ্র করে স্বেচ্ছাসেবক লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে গুলি বিনিময়ের ঘটনায় গুলিবিদ্ধ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা নাজমুল হাসান ওরফে ওরেঞ্জ (২৮) চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৯ দিনের মাথায় মারা গেছেন।

সোমবার (১০ জানুয়ারি) রাত ১১টার দিকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালের নিবিড় পর্যবেক্ষণ ইউনিটে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

এ ঘটনায় গ্রেফতার করা হয়েছে শহর যুবলীগের ৮নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক খাইরুল ইসলামকে (৪৮)।

গত ২ জানুয়ারি রাত ৮টার দিকে শহরের মালগ্রাম এলাকায় গুলি বিনিময়কালে গুলিবিদ্ধ হন ওরেঞ্জ। এ সময় স্বেচ্ছাসেবক লীগের কর্মী মিনহাজ হোসেন আপেলও (২৪) গুলিবিদ্ধ হন। তিনি হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে বর্তমানে নিজ বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছেন।

মৃত ওরেঞ্জ শহরের মালগ্রাম ডাবতলা এলাকার রেজাউল করিমের ছেলে ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ বগুড়া জেলা শাখার সহ-সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক ছিলেন।

নিহত ওরেঞ্জের স্ত্রী স্বর্ণালী আক্তারের দায়ের করা মামলার অন্যতম আসামি শহর যুবলীগের ৮নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক খাইরুল ইসলামকে (৪৮) সোমবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে সদর থানার ফাঁপোর এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১২ বগুড়া ক্যাম্পের সদস্যরা। এ ছাড়া তার দুই ছেলেও ওই মামলার আসামি।

মঙ্গলবার র‌্যাব এক প্রেস রিলিজে জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ৩নং আসামি খাইরুলকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি মালগ্রাম ডাবতলা মোড়ের মৃত রহমান ফকিরের ছেলে। ঘটনার পর থেকে তিনি পলাতক ছিলেন বলে র‌্যাব জানিয়েছে।

এর আগে অপর আসামি টিপুকে পুলিশ গ্রেফতার করে।

শজিমেক হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, গুরুতর আহত ওরেঞ্জের অপারেশনের জন্য শারীরিক অবস্থা না থাকায় মাথায় বিদ্ধ গুলি বাইরে বের করতে পারেননি ডাক্তাররা।

লাশ ময়নাতদন্ত শেষে দুপুরে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

এদিকে ওরেঞ্জের মৃত্যু সংবাদে তার গ্রুপের কর্মীদের মাঝে উত্তেজনা বিরাজ করছে। যেকোনো সময় উত্তপ্ত হতে পারে মালগ্রাম এলাকার আইনশৃংখলা পরিস্থিতি।

এদিকে আইনশৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার কারণে ঘটনার পর স্থানীয় স্টেডিয়াম পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জসহ পাঁচ পুলিশ কর্মকর্তাকে স্ট্যান্ড রিলিজ করেছেন জেলা পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্তি।

বগুড়া সদর থানার ওসি সেলিম রেজা বলেন, এ ঘটনায় দায়ের করা মামলায় এখন পর্যন্ত টিপু ও খাইরুল নামের দুই আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং বাকিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

উল্লেখ্য, বগুড়া শহরের মালগ্রাম এলাকায় মাদক, জুয়ার নিয়ন্ত্রণ ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে গত কয়েকদিন ধরে মালগ্রাম ডাবতলা এলাকায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও অস্ত্রের মহড়া চলে আসছিল। এর জের ধরে ২ জানুয়ারি রাত ৮টার দিকে স্বেচ্ছাসেবক লীগ কর্মী রাসেল, সানী ও সুমনের নেতৃত্বে মালগ্রাম ডাবতলা এলাকায় আরেক গ্রুপের ওপর হামলা হয়। এতে অরেঞ্জ ও আপেল গুলিবিদ্ধ হন। ঘটনার পরের দিন সাতজনের নাম উল্লেখ করে ১২ জনের নামে বগুড়া সদর থানায় মামলা করেন ওরেঞ্জের স্ত্রী স্বর্ণালী।

Previous articleরোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার ও দ্রুত প্রত্যাবাসনের দাবিতে উখিয়ায় ‘আমরা কক্সবাজারবাসী’র মানববন্ধন
Next articleফরিদগঞ্জে দশম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত গ্রেফতার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।