ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: চাঁপাইনবাবগঞ্জে মহানন্দা নদীর ওপর শেখ হাসিনা সেতুর সংযোগ সড়ক প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ল আরও তিন বছর। সেই সঙ্গে জমি অধিগ্রহণের প্রায় ১৯ কোটি টাকার ব্যয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে সাড়ে ৩২ কোটি টাকার বেশি। প্রকল্পটি অনুমোদন হলে প্রথম ধাপে বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সেতু থেকে শেখ হাসিনা সেতু পর্যন্ত তিন কিলোমিটার সড়কের নির্মাণকাজ শুরু হবে।

জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে ২০১৮ সালের ১৪ আগস্ট জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় ‘চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার আওতাধীন মহানন্দা নদীর শেখ হাসিনা সেতুর সঙ্গে সংযোগ সড়ক উন্নয়ন’ প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়। এই প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল ২০২১ সালের জুন মাসে।

কিন্তু জমি অধিগ্রহণ করতেই পেরিয়ে গেছে তিন বছর। কবে নাগাদ জমি অধিগ্রহণ হবে এবং কাজ শুরু হবে, তা বলতে পারছেন না প্রকল্পসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। তাই দ্বিতীয় দফায় ২০২৪ সালের জুন মাস পর্যন্ত মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার প্রকৌশল বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, এ প্রকল্পের প্রথম ফেজে বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সেতু থেকে শেখ হাসিনা সেতু পর্যন্ত তিন কিলোমিটার সড়ক নির্মাণের জন্য ১৪ একর জমি অধিগ্রহণের প্রস্তাব দেওয়া হয়। জেলা প্রশাসনের অধিগ্রহণ শাখা প্রয়োজনীয় জমি অধিগ্রহণ করেছে।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে ভূমি উন্নয়নের জন্য অনুমতি দিয়েছে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)। তবে ভূমি উন্নয়ন, সংযোগ কালভার্ট ও সড়ক নির্মাণে প্রাক্কলন ব্যয় বাড়িয়ে গত বছরের ২ অক্টোবর নতুন করে প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে। ১৮ কোটি ৮৮ লাখ ৯০ হাজার টাকার নির্মাণ ব্যয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩২ কোটি ৫৪ লাখ ৮৫ টাকায়।

জানা গেছে, চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার আওতাধীন মহানন্দা নদীর শেখ হাসিনা সেতুর সঙ্গে সংযোগ সড়ক উন্নয়ন প্রকল্পের খরচ ধরা হয় ২৫৫ কোটি ৪৬ লাখ টাকা।

সূত্র জানায়, প্রথম ধাপে চাঁপাইনবাবগঞ্জের বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সেতু থেকে শেখ হাসিনা সেতু পর্যন্ত বাইপাস সড়কের জন্য ১৪৪ কোটি ৪৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ মূল্য নির্ধারণ করে ১৪ একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। তবে এখনো অধিকাংশ জমির মালিক ক্ষতিপূরণের টাকা পাননি। এ প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে ১ দশমিক ৫৮ কিলোমিটার ঝিলিম রোড ও ১ দশমিক ৯০ কিলোমিটার করনেশন রোড প্রশস্তকরণ।

প্রথম ধাপে চাঁপাইনবাবগঞ্জের বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সেতু থেকে শেখ হাসিনা সেতু পর্যন্ত তিন কিলোমিটার সড়কের নির্মাণ ব্যয় ধরা হয় ১৬৩ কোটি ৩৪ লাখ ৮৫ হাজার টাকা। সড়কটি নির্মাণ করবে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর।

তিন কিলোমিটার সড়কের জন্য ১৪ একর জমি অধিগ্রহণ ব্যয় ১৪৪ কোটি ৪৫ লাখ ৯৫ হাজার টাকা। ভূমি উন্নয়ন, সংযোগ কালভার্টসহ সড়ক নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে ১৮ কোটি ৮৮ লাখ ৯০ হাজার টাকা। নির্ধারিত সময়ে কাজ শুরু না হওয়ায় ব্যয় বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণ।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা রওশনা জাহান জানান, সম্পত্তি অধিগ্রহণ ও হুকুম দখল আইন, ২০১৭ অনুযায়ী ক্ষতিপূরণ দেওয়া হচ্ছে। অধিগ্রহণকৃত ১৪ একর জমির প্রায় ৭০ শতাংশ ক্ষতিপূরণের টাকা দেওয়া হয়েছে। দু-এক দিনের মধ্যে আরও ২০ জনকে চেক দেওয়া হবে। এ প্রকল্পের প্রয়োজনীয় আরও জমি অধিগ্রহণ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে এলজিইডি চাঁপাইনবাবগঞ্জ কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মোজাহার আলী বলেন, ‘চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার আওতাধীন মহানন্দা নদীর শেখ হাসিনা সেতুর সঙ্গে সংযোগ সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প ২০১৮ সালে একনেকে অনুমোদন দেওয়া হয়।

২০২১ সালের জুন মাসে এ প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হলে দ্বিতীয় দফায় ২০২৪ সালের জুন মাস পর্যন্ত মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। আশা করা যায়, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এ প্রকল্পের কাজ শেষ হবে।

Previous articleরংপুরে সেনাবাহিনীর ভুয়া নিয়োগপত্রসহ ৩ প্রতারক গ্রেফতার
Next articleমুলাদীতে বিএনপির কম্বল বিতরণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।