বাংলাদেশ প্রতিবেদক: জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য ফিরে পেতে সরকারি দপ্তরে ঘুরছেন সাইদ আকন। ২০০৮ সালে জাতীয় পরিচয়পত্র হাতে পাওয়ার পরে কোনো আবেদন ছাড়াই সার্ভার থেকে তথ্য মুছে গেছে তাঁর। নির্বাচন কমিশনের সার্ভার থেকে তথ্য মুছে যাওয়ায় দাপ্তরিক কাজ ব্যাহত হচ্ছে সাইদের। বিভিন্ন নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন তিনি। এখন পর্যন্ত নিতে পারেননি করোনা ভ্যাকসিন।

সাইদ আকন উপজেলার চরকালেখান ইউনিয়নের চরকালেখান গ্রামের মৃত ওয়াজ উদ্দীন আকনের ছেলে। তিনি ঢাকায় গাড়ী চালক হিসেবে জীবিকা নির্বাহ করছেন। জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য ফিরে পেতে নির্বাচন কমিশন ও উপজেলা নির্বাচন দপ্তরসহ বিভিন্ন জায়গায় গিয়েছেন। সাইদ আকনের পরিচয়পত্রের তথ্য কেই মুছে ফেলেনি দাবি করেছেন নির্বাচন কর্মকর্তা। আরেকজনের আঙুলের ছাপের সাথে মিলে যাওয়ায় স্বয়ংক্রিয় ভাবে তথ্য মুছে গেছে। তবে দ্রুত বিষয়টি সমাধানের আশ্বাস দিয়েছেন ওই কর্মকর্তা।

সাইদ আকন জানান, দেশ ব্যাপী জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি সময় তিনি ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন। পরবর্তীতে জাতীয় পরিচয়পত্র হাতে পেয়েছেন। ওই পরিচয়পত্র দিয়ে বিভিন্ন কাজও করেছেন। করোনা ভ্যাকসিন গ্রহণের ৫/৬ মাস আগে অনলাইনে নিবন্ধন করতে যান। ওই সময় তার জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর দিয়ে ভ্যাকসিন নিবন্ধন করতে ব্যর্থ হন। নিবন্ধনে ব্যর্থ হয়ে সাইদ আকন উপজেলা নির্বাচন দপ্তরে যোগাযোগ করেন। সেখানে কোনো তথ্য দিতে না পারায় তিনি বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনে যান। নির্বাচন কমিশন থেকে জানানো হয় সাইদ আকনের এনআইডি তথ্য মুছে ফেলা হয়েছে। তবে কী কারণে এবং কিভাবে এনআইডি তথ্য মুছে ফেলা হয়েছে সেই তথ্য জানতে পারেননি তিনি।

Previous articleময়মনসিংহ জেলা রেটেড দাবালীগ-২০২১ উদ্বোধন
Next articleকরোনা টেস্ট ছাড়াই অবাধে দেশে ঢুকছেন ভারতীয় ট্রাকচালকরা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।